শিবপুরে ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৬ বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি মামলায় গ্রেফতারী পরোয়ানা

নরসিংদির আরো টুকরো খবর 

এম, লুৎফর রহমান॥ নরসিংদীর শিবপুরের জয়নগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নাদিম সরকারসহ ছয় জনের বিরুদ্ধে চাদাঁবাজির অভিযোগ এনে আদালতে মামলা করেছেন এক গরু খামার ব্যবসায়ী। গত ৪ অক্টোবর শিবপুর উপজেলার মৈশারটেক গ্রামের মমতাজ উদ্দিনের ছেলে গরু খামার ব্যবসায়ী মোঃ উজ্জামান রবিন বাদী হয়ে মামলাটি করেন। নরসিংদীর চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিচারক রকিবুল ইসলাম অভিযোগটি আমলে নিয়ে ৭অক্টোবর ইউপি চেয়ারম্যান নাদিম সরকারসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করেছেন।

মামলায় অভিযুক্ত আসামিরা হলো- জয়নগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাদিম সরকার (৩৭) ও তার ভাই শাহিন সরকার (৪৫), জয়নগর পশ্চিম পাড়া গ্রামের আয়নব আলীর ছেলে বাদশা মিয়া (৪৫), রমি মিয়ার ছেলে মোবারক (৩৫), শাহাজ উদ্দিনের ছেলে সোহেল মিয়া (৩৫) ও দড়িপুরা গ্রামের রাজু মিয়ার ছেলে লোকমান হোসেন (৪০)। বাদী পক্ষের আইনজীবি বদরুল আলম জানান, শিবপুর উপজেলার জয়নগর ইউনিয়নের ধনাইয়া গ্রামে ৯৬ শতাংশ জমির উপর একটি টিন শেডের গরুর খামার নির্মাণ করে গরু মোটাতাজা করণের ব্যবসা শুরু করেন ব্যবসায়ী মোঃ উজ্জামান রবিন। খামারটি নির্মাণের পর থেকেই জয়নগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাদিম সরকার ও তার ৫ সহযোগী পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে আসছিলেন। দাবীকৃত চাঁদার টাকা না দেওয়ায় ২অক্টোবর রাত আনুমানিক দশটার দিকে ইউপি চেয়ারম্যান নাদিম সরকারসহ ছয়জন দা, ছুরি, কুড়াল ও পিস্তলসহ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে খামারে প্রবেশ করে। এসময় খামার মালিক রবিনকে ভয়ভীতি দেখিয়ে পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে রবিনকে এলোপাতাড়ি মারধর ও তার গলায় গামছা পেচিয়ে হত্যার চেষ্টা করে। এসময় খামারের কেয়ারটেকার রুকু মিয়া খামারী রবিনকে উদ্ধার করে। পরে তারা পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা না দিলে আগুন লাগিয়ে খামারটি পুড়িয়ে দেয়াসহ খামার ব্যবসায়ী রবিন ও খামারের কেয়ারটেকারকে হত্যার হুমকি দেয় এবং চলে যাওয়ার সময় খামার ভাংচুর ও দুটি গরু লুট করে নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে ইউপি চেয়ারম্যান নাদিম সরকারের ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী গাউস মোঃ বদরুল আলম সরকার বলেন, আদালত অভিযোগটি আমলে নিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান নাদিম সরকারসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করেন। গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি হলেও আসামীরা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদেরকে গ্রেফতার করছে না পুলিশ। শিবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোল্লা আজিজুর রহমান বলেন, চাঁদাবাজি মামলায় আসামীদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। আসামীদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

শিবপুর উপজেলা পরিষদের পুকুরে ডুবে স্কুলছাত্রের মৃত্যু:

নরসিংদীর শিবপুর উপজেলা পরিষদের পুকুরে ডুবে সাইফ হাসান (১৪) নামে স্কুলছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটেছে। নিহত সাইফ হাসান শিবপুর পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্র ও শিবপুর মডেল থানার উপ পরিদর্শক আলমগীর হোসেনের ছেলে। শিবপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোল্লা আজিজুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, দুপুর ১২টার দিকে বন্ধুদের সঙ্গে উপজেলা পরিষদের পুকুরে গোসল করতে যায় সাইফ। দীর্ঘ সময় পরও বাসায় ফিরে না আসায় পরিবারের লোকজন তার বন্ধুদের বাসায় খোঁজ করেও সাইফের সন্ধান পাননি। বিকালে উপজেলা পরিষদের পুকুরে খোঁজ করতে গিয়ে জুতা ভাসতে দেখা যায়। খবর দেয়া হলে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন এসে বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে পুকুর থেকে তার লাশ উদ্ধার করেন। এ ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।সাঁতার না জানায় পুকুরের পানিতে তলিয়ে গিয়ে তার মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

শিবপুরে করোনায় আওয়ামী লীগ নেতার মৃত্যু:

নরসিংদীর শিবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক, সাবেক ছাত্রলীগের নেতা মোঃ নাসির উদ্দীন সরকার করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) দিবাগত রাত ১টা ৩০মিনিটে তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তিনি প্রায় একমাস ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। শনিবার (১৭ অক্টোবর) বাদ যোহর বাঘাব ঈদগা মাঠে জানাজা নামাজ শেষে পারিবারিক কবর স্থানে তার লাশ দাফন করা হয়। মৃত্যুকালে তিনি মা, স্ত্রী, দুই ছেলে দুই মেয়েসহ বহু গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। জানাজা নামাজে উপস্থিত ছিলেন শিবপুরের এমপি জহিরুল হক ভূঞা মোহন, সাবেক এমপি সিরাজুল ইসলাম মোল্লা, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হারুনুর রশীদ খান, সাধারণ সম্পাদক সামসুল আলম ভূঞা রাখিল প্রমুখ। নেতৃবৃন্দ সকলেই মরহুমের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দু:খ প্রকাশ করে শোকাহত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

রায়পুরার শ্রীরামপুরে বসতবাড়ীতে হামলা ভাংচুর:

নরসিংদীর রায়পুরায় বসত বাড়িতে হামলা, ভাংচুর করার অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) সন্ধ্যায় রায়পুরা থানার শ্রীরামপুর উত্তপাড়া গ্রামের মোঃ কাউসার আহমেদের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটেছে।
এ ঘটনায় ভুক্তভোগী কাউসার আহমেদ বাদী হয়ে ১০ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ১৫/২০ জনের বিরুদ্ধে রায়পুরা থানায় অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগে যাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে হলেন, রায়পুরার শাহীন জেনারেল হাসপাতালের মালিক মাহবুবুল আলম শাহীন (৪৫), শ্রীরামপুর গ্রামের কাশেম ভেন্ডারের ছেলে জাহাঙ্গীর (৪০), একই এলাকার বাচ্চু মিয়া (৬৫), মাইন উদ্দিন (৩০), খসরু মিয়া (২৮), রাসেল মিয়া (২৮), নাহিদ মিয়া (২৫), মালেক মিয়া (৪০), রামীম (২৫) ও শাকিল মিয়া (২২)সহ অজ্ঞাত আরও ১৫/২০ জন।

মামলার বিবরণে বলা হয়েছে, উল্লেখিত ব্যক্তি পূর্ব শত্রুতার জের ধরে শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে কাউসার আহমেদের বাড়িতে প্রবেশ করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। এসময় বাড়ির লোকজন প্রাণরক্ষার্থে ঘরের দরজা আটকিয়ে দেয়। এক পর্যায়ে মাহবুবুল আলম শাহীনের নির্দেশে ঘরের দরজা ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করে থাই গ্লাসের জানালা, দরজা, বেসিনসহ বিভিন্ন মূল্যবান জিনিসপত্র ভাংচুর।
এ ঘটনায় রায়পুরা থানায় অভিযোগ দেয়া হলে রাতেই থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।