নোয়াখালীতে গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে আটক ৩

নোয়াখালীর আরও টুকরো খবর। 

নুর রহমান, নোয়াখালী প্রতিনিধি : নোয়াখালীর সেনবাগের ছাতারপাইয়া ইউনিয়নে এক গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে ৩জনকে আটক করেছে পুলিশ।

আটককৃতরা হলো- উপজেলার ছাতারপাইয়া ইউনিয়নের পূর্ব ছাতারপাইয়া এলাকার আব্দুল কাইয়ুম’র ছেলে শুভ (১৯), ছাতারপাইয়া বদর বাড়ির হাসান (১৯), আব্দুল হকের ছেলে রকি (২০)।

বুধবার (২১ অক্টোবর) সকালে ভুক্তভোগী গৃহবধূ মামলা দায়ের করলে আটককৃতদের গ্রেফতার দেখিয়ে দুপুর পৌনে ২টার দিকে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে প্রেরণ করে পুলিশ। এর আগে, উপজেলার পূর্ব ছাতারপাইয়া গ্রাম থেকে মঙ্গলবার রাতে পুলিশ তাদের আটক করে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত (৯ অক্টোবর) রাতে বাড়ির ভিতর চাচাতো দেবর ঘরে ঢুকে ওই গৃহবধূকে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে। ধর্ষকের সহযোগীরা ওই গৃহবধূকে ধর্ষকের পাশে বসিয়ে মুঠোফোনে ভিডিও চিত্র ধারণ করে। পরে ইন্টারনেটে ভিডিও ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে নির্যাতিতা গৃহবধূ ও তার স্বামীর কাছে ত্রিশ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে ধর্ষক পারভেজ ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা।

সেনবাগ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ইকবাল হোসেন জানান, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ভুক্তভোগী গৃহবধূ বাদী হয়ে মামলা করেন। মামলার আলোকে পুলিশ আসামিদের গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বুধবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করে।।

নোয়াখালীত খেলতে গিয়ে পানিতে পড়ে দুই শিশুর মৃত্যু: নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলায় পুকরের পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

বুধবার (২১ অক্টোবর) সকাল ১১টার উপজেলার চরজব্বর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের পশ্চিম চরজব্বর গ্রামের বেলায়েত’র বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

মৃত শিশুরা হলো-উপজেলার চরজব্বর ইউনিয়নের প্রশ্চিম চরজব্বর গ্রামের বেলায়েত’র মেয়ে সুইটি বেগম স্মৃতি (৪) এবং পাশ্ববর্তী বাড়ির গিয়াস উদ্দিন’র মেয়ে ফারজানা বেগম (৫)।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, ওই দুই শিশু বাড়ির পুকুরপাড়ে খেলা করছিল। হঠাৎ অসাবধানতাবশত পরিবারের সদস্যদের অগোচরে পুকুরে পানিতে পড়ে যায় তারা। পরে বাড়ির লোকজন টের পেয়ে তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কতর্ব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

চরজব্বর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান তরিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, খেলতে গিয়ে পুকুরের পানিতে পড়ে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। আমি ঘটনাস্থলে রয়েছি। খবর পেয়ে চরজব্বার থানার পুলিশও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।

নোয়াখালীত খাবারের সাথে নেশাজাতীয় দ্রব্য খাইয়ে ৮জনকে অচেতন করে এক পরিবারের সর্বস্ব লুট:

নোয়াখালীর সদর উপজেলার বিনোদপুর গ্রামের দু’টি পরিবারের লোকজনকে রাতের খাবারের সাথে নেশাজাতীয় দ্রব্য খাইয়ে অচেতন করে একটি পরিবারের ঘরের সর্বস্ব লুটে নিয়েছে র্দুবৃত্তরা।

এই ঘটনায় দু’টি পরিবারের ৮জন সদস্য অচেতন অবস্থায় নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

মঙ্গলবার রাতে সদর উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের বিনোদপুর গ্রামের আব্দুর রহমান ডাক্তার বাড়ি ও একই গ্রামের ছেরাজ মাওলানার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, বিনোদপুর গ্রামের ডাক্তার বাড়ির আব্দুর রহমান ও একই গ্রামের ছেরাজ মাওলানা বাড়ির সফিকুর রহমানের ঘরের সদস্যরা বুধবার রাত ৯টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে ডাক্তার বাড়ির পরিবারকে বুধবার রাতে ও মাওলানা বাড়ির পরিবারকে বুধবার সকালে অচেতন অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। দুই পরিবারের ৮জন সদস্য এখনো হাসপাতালে অচেতন অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছে।

ভুক্তভোগী ডাক্তার বাড়ির আব্দুর রহমান’র ছেলে মাহফুজুর রহমান জানান, রাতে তাদের পরিবারের ৪সদস্যকে নিয়ে অচেতন অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে গেলে দুর্বৃত্তরা ঘরের ভেনটিলেটর ভেঙ্গে ঘরে প্রবেশ করে নগদ অর্থ , স্বর্ণালংকারসহ মালামাল নিয়ে যায়।।

অচেতন থাকা দুই পরিবারের সদস্যরা হলেন, ডাক্তার বাড়ির আব্দুর রহমান (৭৫), রোকেয়া বেগম (৬০), নিলু আক্তার (২৭), মাওলানা বাড়ির সফিকুর রহমান (৫৫), তাজুল ইসলাম (২৮), হাসিনা আক্তার (৪৫), নিপু আক্তার (২০), ইয়ামুন (২০)।

বিনোদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তোফাজ্জল হোসেন বাবলু ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, অচেতন অবস্থায় দু’টি পরিবারের ৮জন নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

সুধারাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো.নবীর হোসেন জানান, এ ঘটনা সম্পর্কে কেউ আমাকে কিছুই জানায়নি।