বিশ্বে প্রতি ৩ নারীর এক জন হাড়ক্ষয় রোগে ভুগছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিশ্বের মোট জনগোষ্ঠীর মধ্যে ৫০ বছরের বেশি বয়সী প্রতি ৩ জন নারীর মধ্যে ১ জন ও ৫ জন পুরুষের মধ্যে ১ জন হাড়ক্ষয় রোগে ভুগছেন।

মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) বিশ্ব অস্টিওপোরোসিস বা হাড়ক্ষয় রোগ দিবসের বৈজ্ঞানিক সেশনে এ তথ্য জানানো হয়।

সেশনে বিজ্ঞানসম্মত প্রবন্ধ উপস্থাপনসহ হাড়ক্ষয় রোগ চিহ্নিত এবং এর আধুনিক ও উন্নত চিকিৎসা নিয়ে আলোচনা হয়।

দিবসটির এবারে প্রতিপাদ্য- ‘অস্টিওপোরোসিস বা হাড়ক্ষয় রোগে হাড় ভেঙে হুইল চেয়ারের জীবন-ই অস্টিওপোরোসিস’।

বক্তারা জানান, ‘বাংলাদেশে নারীরা গড়ে প্রায় ৭৪ বছর বাঁচেন। পুরুষরা বাঁচেন প্রায় ৭০ বছর। এই উপাত্ত বলছে, বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু দিনে দিনে বাড়ছে। এটি অবশ্যই খুশির খবর, এই আনন্দের খবরের উল্টোপিঠে অনেক কষ্ট আছে এবং উঁকি দিচ্ছে তা হলো অস্টিওপোরোসিস বা হাড়ক্ষয় রোগ।’

আক্রান্ত রোগীরা অল্প আঘাতেই মেরুদণ্ডের হাড়, কুচকির হাড়, কব্জির হাড়সহ অন্যান্য হাড়ভাঙাজনিত কারণে হুইল চেয়ার বা লাঠি নির্ভর জীবন যাপন করেন।

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে অন্যান্য অনেক রোগ তাদের নিত্যসঙ্গী হয়। যেমন-ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, বয়সজনিত বাতব্যথার কষ্ট ইত্যাদি। এর সঙ্গে চিকিৎসা ব্যয় বেড়ে যায় বিধায় অনেক বয়স্ক মানুষ অবহেলিত জীবন যাপনেও বাধ্য হন। যা কাম্য নয়।

এসময় জানানো হয়- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে রিউমাটোলজি বিভাগে অস্টিওপোরোসিসসহ বাত রোগের উন্নত চিকিৎসা রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসনের সার্বিক সহায়তায় এই বিভাগের উন্নতি ও সমৃদ্ধি দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

বৈজ্ঞানিক সেশনে বাত ব্যথা রোগী এবং বয়স্ক মানুষগুলোর সার্বিক স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে সরকারি হাসপাতালগুলোতেও স্বল্প সময়ের মধ্যে রিউমাটোলজি বিভাগ সৃষ্টির প্রয়োজনীয়তার কথাও উল্লেখ করা হয়।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ডি ব্লকের ১৭তলার মেডিসিন বিভাগ ও রিউমাটোলজি বিভাগের ক্লাশ রুমে আয়োজিত বৈজ্ঞানিক সেশনে প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. খান আবুল কালাম আজাদ।

বিশেষ অতিথি ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ডিন অধ্যাপক ডা. জিলন মিঞা সরকার। সভাপতিত্ব করেন রিউমাটোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. নজরুল ইসলাম।

প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. আবু শাহীন, ডা. আসিফ হাসান খান, ফেইজ-বি এর রেসিডেন্ট ডা. এস এম আহমেদ ও ডা. রাফিয়া আফরোজ।