ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের মৃত্যুতে বিভিন্ন মহলে শোক

ব্যারিস্টার রফিক-উল হক

ডেস্ক রিপোর্ট: সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের মৃত্যুতে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন, ও সেতুমন্ত্রী ওবাদুল কাদের, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ,এলজিআরডি মন্ত্রী তাজুল ইসলাম, সংস্কৃতিক মন্ত্রী কেম.এম খালেদ মাহমুদ, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেনসহ বিভিন্ন মহলে শোক জানিয়েছেন। তারা পৃথক শোক বিজ্ঞপ্তিতে মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন।

 এলজিআরডি মন্ত্রীর শোক: সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ও দেশের খ্যাতিমান আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম। স্থানীয় সরকার মন্ত্রী আজ এক শোক বার্তায় মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। মোঃ তাজুল ইসলাম শোক বার্তায় আরো জানান, প্রবীন এই আইনজীবী ছিলেন বাংলাদেশের আইন অঙ্গনের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র। তিনি নিজ কর্মগুণেই দেশের মানুষের কাছে চির স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন ব্যারিস্টার রফিক-উল-হকের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।
এক শোক বার্তায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, রফিক-উল হক ছিলেন অত্যন্ত দক্ষ আইনজীবী। নব্বই দশকের প্রথম দিকে আমি যখন নারী ও শিশু পাচার রোধে কাজ করতাম; বিশেষ করে শিশুদের উটের জকি হিসেবে ব্যবহার বন্ধে আমার আন্দোলনে আইনজীবী রফিক-উল- হক সহযোগিতা করেছিলেন।
ড. মোমেন মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর শোক: বিশিষ্ট প্রবীণ আইনজীবী ও সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাকির হোসেন এমপি। প্রতিমন্ত্রী আজ এক শোক বার্তায় জানান, ব্যারিস্টার রফিক-উল হক দেশের আইন অঙ্গনে একজন অত্যন্ত দক্ষ ও অভিজ্ঞ আইনজীবী ছিলেন। অকুতোভয় আইনজীবী হিসেবে তিনি আজীবন সাহসী ভূমিকা পালন করেছেন। আইন পেশায় তাঁর অবদান জাতি দীর্ঘদিন শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ রাখবে। বিজ্ঞ এই আইনজীবীর মৃত্যু জাতির অপূরণীয় ক্ষতি সাধিত হলো । প্রতিমন্ত্রী এক শোক বার্তায় মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন শোক বার্তায় বলেন, এই প্রথিতযশা আইনজীবী অত্যন্ত সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে গিয়েছেন।

গুরুত্বপূর্ণ সাংবিধানিক ও আইনি বিষয় নিয়ে তিনি আদালতকে সবসময় সহযোগিতা করেছেন। সর্বজন শ্রদ্ধেয় এবং সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য ব্যারিস্টার রফিক-উল হক একটি প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছিলেন। আইনের শাসন এবং সুশাসন প্রতিষ্ঠায় তার অবদান অনস্বীকার্য।

প্রধান বিচারপতি মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছেন।

তারা বলেন, এই প্রথিতযশা আইনজীবী অত্যন্ত সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে গেছেন। গুরুত্বপূর্ণ সাংবিধানিক ও আইনি বিষয় নিয়ে তিনি আদালতকে সবসময় সহযোগিতা করেছেন। সর্বজন শ্রদ্ধেয় এবং সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য ব্যারিস্টার রফিক-উল হক একটি প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছিলেন। আইনের শাসন এবং সুশাসন প্রতিষ্ঠায় তার অবদান অনস্বীকার্য। আজ শনিবার সকাল ৮টা ৩০ মিনিটে সুপ্রিম কোর্টের এই জ্যেষ্ঠ আইনজীবী রাজধানীর আদ-দ্বীন হাসপাতালে মারা যান (ইন্না লিল্লাহী ওয়া ইন্না ইলাইহী রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর।