লালমনিরহাটে দাদনের হাত থেকে রক্ষা পেতে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের আকুতি

এম এ মান্নান, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: লালমনিরহাটে চরা সুদে ঋণ নিয়ে বিপাকে পড়েছেন এক মুক্তিযোদ্ধা পরিিিবা।  ওই দাদন ব্যবসায়ী ফাঁদ থেকে বাঁচার আকুতি জানিয়েছে শনিবার (২৪ অক্টোবর) দুপুরে লালমনিরহাট শহরের খোচাবাড়ি এলাকার নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ভুক্তভুগি নবিয়ার হোসেনের স্ত্রী মুক্তিযোদ্ধার মেয়ে শাহানা বেগম।


সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে শাহানা বেগম অভিযোগ করে বলেন, প্রতিবেশি মৃত আজাহার আলী ড্রাইভারের স্ত্রী মরিয়ম, ছেলে মুন্না, মিনাল, ছেলের বউ সুখি বেগম ও মেয়ে সুমি বেগম একটি দাদন ব্যবসায়ী পরিবার।

শাহানা বেগম বলেন, রেলওয়ে নিম্নপদের কর্মচারী হিসেবে আমার সামান্য আয়ে চলে ৫ সদস্যের সংসার। পরিবারের প্রয়োজনে ওই পরিবারের কাছে ৬পাতা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করে ২০১৪ সালে সুদের উপর ২লাখ টাকা গ্রহন করি। যা গত বছর সুদে আসলে পরিশোধ করলেও স্ট্যাম্পগুলো আজ কাল বলে আর ফেরত দেয়নি। চাইলে উল্টো তারা ৩ লাখ টাকা দাবি করেন। অন্যথায় বাড়িটি ছেড়ে দিতে হুমকী দেন।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো বলেন, উক্ত স্ট্যাম্পগুলো ফেরত চাওয়ায় গত ২জুলাই তারা আমার উপর হামলা চালিয়ে বাড়ি ভাংচুর করে। এ নিয়ে গত ২২ জুলাই দাদন চক্রটির বিরুদ্ধে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করি। উক্ত মামলাটির কাউন্টার দিতে তারাও তৎকালিন ওসি মাহফুজকে ম্যানেজ করে মিথ্যা ঘটনা সাাাজিয়ে মামলা দায়ের  করে। (নং-৪৬০)।

ওসি মাহফুজের উক্ত মামলায় ম্যানেজ হওয়ার বিষয়টির ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ গনমাধ্যমে ভাইরাল হলে ওসি মাহফুজকে তাৎক্ষণিক স্ট্যান্ড রিলিজ করে পুলিশ সদর দপ্তর। তিনি  এসময়  মামলাটি প্রত্যাহারের দাবি জানান।
সংবাদ সম্মেলনে শাহানা বেগম জানান, কুটবুদ্ধিতে দাদন চক্রটি আমার বন্ধ হওয়া ব্যাংক হিসাবের চেক দিয়ে মিথ্যা ১৪ লাখ টাকা দাবি করে উকিল নোটিশ ও স্ট্যাম্পগুলো দিয়ে আমার রেলওয়ের বাড়িটি দখলে পায়তারা করছে। তাদের নির্যাতন থেকে বাঁচতে একাধিক জিডি করেছি, মামলা করেছি। কিন্তু তারা টাকার জোরে মিথ্যাকে সত্য বানানোর অপচেষ্টা করছে। আমার পরিবারের প্রতিটি সদস্যের ক্ষতি সাধনের অপচেষ্টা করছে। আমি দাদন চক্রটির মিথ্যা হয়রানি থেকে বাঁচতে চাই। এ জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
সংবাদ সম্মেলন চলাকালে অভিযুক্ত দাদন ব্যবসায়ী মরিয়ম বেগম কয়েকজনকে নিয়ে অতর্কিত ভাবে ওই বাড়িতে প্রবেশ করে হট্রগোল বাঁধান। এ সময় শাহানাকে দেখে নেয়ার হুমকীও দেন তারা। সংবাদ সম্মেলনে আগত সাংবাদিকরা বিরক্ত হয়ে অনেক চেষ্টায় মরিয়মকে সংযত করেন।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিতি ছিলেন, শাহানার বাবা মুক্তিযোদ্ধা শাহাজাহান আলী, মুক্তিযোদ্ধা রমজান আলী, নুরজামাল হোসেন প্রমুখ।