গমের ৬টি রোগ ও তার প্রতিকার

 

কৃষি ডেস্ক: যে জমিতে সেচের সুবিধা নেই অথচ মাটিতে যথেষ্ট পরিমানে রস থাকে সে জমিতে বিনাসেচেও সফলভাবে গম চাষ করা যায়। কিন্তু গমের রোগবালাই গম চাষের একটি অন্যতম প্রতিবন্ধক। এব ফলে গমের যথেষ্ট ক্ষতি সাধন হয়।

এ পর্যন্ত গমের ১৫টি রোগ সনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে অধিকাংশই ছত্রাক জনিত। গমের রোগ নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারলে গমের উৎপাদন অনেক বৃদ্ধি পাবে। গমের কয়েকটি প্রধান মারাত্মক রোগ সম্পর্কে বর্ণনা করা হল।

এক. রোগের নাম : গোড়া পঁচা রোগ (Foot and root rot)

রোগের কারণ : স্কেরোসিয়াম (Sclerotium), রাইজোকটোনিয়া (Rhizoctonia), ফিউজারিয়াম (Fusarium) ইত্যাদি ছত্রাক দ্বারা এ রোগ হয়ে থাকে।

রোগের বিস্তার : মাটিতে ও বীজে বসবাসকারী ছত্রাকের আক্রমণে এ রোগের উৎপত্তি হয়। স্যাঁতস্যাঁতে মাটি ও ঠান্ডা আবহাওয়া এ রোগ বিস্তারে সহায়ক।

রোগের লক্ষণ : এ রোগের ফলে বীজে পচন ধরে, চারা ঝলসে যায় এবং গোড়া ও শিকড় পঁচে যায়।
-চারা গজানোর পর গাছ আক্রান্ত হলে প্রথমে গাছটি হলুদ বর্ন ধারন করে এবং আস্তে আস্তে গাছটি মারা যায়।
-এ অবস্থায় টান দিলে গাছটি সহজেই মাটি হতে উঠে আসে।
-আক্রান্ত গাছটির গোড়া ভালভাবে পরীক্ষা করলে গোড়ায় সাদা বর্ণের ছত্রাকের মাইসিলিয়াম এবং অনেক সময় সরিষার দানার মত স্কেরোসিয়া দেখা যায়।
-এ সময় সমস্ত শিকড় পচে যায়, শিকড় ও কান্ড সংলগ্ন অংশে কালচে বাদামী দাগ দেখতে পাওয়া যায়।

রোগের প্রতিকার : সুস্থ, সবল ও উচ্চ অঙ্কুরোদগম ক্ষমতা সম্পন্ন বীজ বপন করতে হবে।
-কার্বেন্ডাজিম (অটোস্টিন) অথবা কার্বোক্সিন + থিরাম (প্রোভ্যাক্স ২০০ ডব্লিউপি) প্রতি কেজি বীজে ২.৫ গ্রাম হারে মিশিয়ে বীজ শোধন করে বপন করতে হবে।
-উচ্চ তাপমাত্রা ও বৃষ্টিহীন মৌসুমে (মার্চ-এপ্রিল) জমি ভালভাবে চাষ দিয়ে ফেলে রাখতে হবে।
-জমিতে রোগ দেখা দিলে কার্বেন্ডাজিম (অটোস্টিন) অথবা কার্বোক্সিন + থিরাম (প্রোভ্যাক্স ২০০ ডব্লিউপি) প্রতি লিটার পানিতে ২ গ্রাম হারে মিশিয়ে গাছের গোড়ায় মাটিতে স্প্রে করতে হবে।

দুই. রোগের নাম : গমের ব্লাস্ট রোগ (Wheat blast)

এই রোগটি ২০১৬ সনে বাংলাদেশে মারাত্মক আকারে প্রথম দেখা যায়।

রোগের কারণ : ম্যাগনেপরথে অরাইজি প্যাথোটাইপ ট্রিটিকাম (Magnaporthe oryzae pathotype triticum) নামক ছত্রাক দ্বারা এ রোগ হয়ে থাকে।

রোগের বিস্তার: আক্রান্ত বীজের মাধ্যমে গমের ব্লাস্ট রোগ ছড়ায়। গমের শীষ বের হওয়া থেকে ফুল ফোটার সময়ে তুলনামূলক গরম ও স্যাঁতস্যাঁতে আবহাওয়া থাকলে এ রোগের আক্রমন ঘটতে পারে। বৃষ্টির কারণে গমের শীষ ১২-২৪ ঘন্টা ভেজা থাকলে ও তাপমাত্রা ১৮ সেঃ অথবা এর অধিক হলে এ রোগের সংক্রমণ হয় এবং রোগের জীবাণু দ্রুত বাতাসের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

রোগের লক্ষণ: প্রধানত: গমের শীষে ছত্রাকের আক্রমণ হয়।
-পাতায় চোখের ন্যায় ধূসর বর্ণের ছোট ছোট দাগ পড়ে।
-শীষের আক্রান্ত স্থানে কালো দাগ পড়ে।
-আক্রান্ত স্থানের উপরের অংশ সাদা হয়ে যায়।
-শীষের গোড়ায় আক্রমণ হলে পুরো শীষ শুকিয়ে সাদা হয়ে যায়।
-আক্রান্ত শীষের দানা অপুষ্ট হয় ও কুঁচকে যায় এবং দানা ধুসর বর্ণের হয়।
-পাতায়ও এ রোগের আক্রমন হতে পারে এবং এক্ষেত্রে পাতায় চোখের মত ধূসর বর্ণের ছোট ছোট দাগ পড়ে।

রোগের প্রতিকার: ব্লাস্ট মুক্ত ক্ষেত থেকে গম বীজ সংগ্রহ করতে হবে।
-মাড়াইয়ের পর আক্রান্ত গম ফসলের অবশিষ্টাংশ পুড়িয়ে ধ্বংস করে ফেলতে হবে।
-অপেক্ষাকৃত কম সংবেদনশীল জাত যেমনঃ বারি গম ২৮ ও বারি গম ৩০ জাতের চাষ করতে হবে।
-উপযুক্ত সময়ে (অগ্রহায়ণের ০১ হতে ১৫ তারিখ) বীজ বপন করতে হবে যাতে শীষ বের হওয়ার সময়ে বৃষ্টি ও উচ্চ তাপমাত্রা পরিহার করা যায়।
-বপনের পূর্বে প্রতি কেজি বীজের সাথে ৩ গ্রাম প্রোভ্যাক্স-২০০ ডব্লিউপি অথবা ৩ মিলি হারে ভিটাফ্লো-২০০ এফএফ ছত্রাকনাশক মিশিয়ে বীজ শোধন করলে গমের ব্লাস্ট রোগের পাশাপাশি অন্যান্য বীজবাহিত রোগও দমন হবে এবং ফলন বৃদ্ধি পাবে।
-গমের ক্ষেত ও আইল আগাছামুক্ত রাখুন।
-নাটিভো ৭৫ ডব্লিউ জি/নভিটা ৭৫ ডব্লিউজি প্রতি লিটার পানিতে ০.৬ গ্রাম হারে মিশিয়ে শীষ বের হওয়ার সময় একবার এবং তার ১২-১৫ দিন পর আরেকবার স্প্রে করলে গমের পাতা ঝলসানো রোগ, বীজের কালো দাগ রোগ এবং মরিচা রোগ ইত্যাদিও দমন হবে।