কাউন্সিলর এরফান কারাগারে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে

আদালত প্রতিবেদক: করোনাভাইরাস অতিমারী চলাকালীন নতুন কয়েদিদের ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হয়। নিয়ম অনুযায়ী কাউন্সিলর ইরফানও কোয়ারন্টিনে থাকবেন। ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী মো. সেলিমের ছেলে ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. ইরফান সেলিম কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। কেরাণীগঞ্জে অবস্থিত ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে ১৪ দিনে কোয়ারেন্টিনে রাখা হবে তাকে। মঙ্গলবার বিষয়টি জানিয়েছেন, ঢাকার জেলার মাহবুবুল ইসলাম। তিনি জানান, এদিন ভোরে র‌্যাব হেফাজতে ইরফানকে কারাগারে নিয়ে আসা হয়।

এদিকে, সোমবার (২৬ অক্টোবর) পুরান ঢাকার সাংসদ হাজী সেলিমের মালিকানাধীন মদিনা আশিক টাওয়ারে একটি টর্চার সেলের সন্ধান পেয়েছে র‌্যাব। হাজী সেলিমের ছেলে ও ৩০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ এরফান সেলিমের নেতৃত্বে এই টর্চার সেলে নানা ধরনের অনৈতিক এবং অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড করা হতো।

সেখান থেকে মানুষের হাড়, ওয়াকবটকিসহ বিভিন্ন ইলেকট্রিক সামগ্রীও জব্দ করা হয়েছে। অভিযানের পর র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ সাংবাদিকদের জানান, ওই রুম থেকে দড়ি, চাকু, ডিভাইস উদ্ধার করা হয়েছে। যেগুলো ফরেনসিক পরীক্ষা করা হবে।

জানা গেছে, ১৬ তলা ভবনের ছাদের একটি রুমের টর্চার সেল তৈরি করেন হাজী সেলিমের ছেলে গ্রেফতারকৃত এরফান। এখানে মাঝেমধ্যে সাংসদ নিজেও বসতেন। এখান থেকেই আশপাশের ১০ থেকে ১২ কিলোমিটারের মধ্যে সে সব ধরনের নেতাকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য ওয়াটকির নেটওয়ার্ক ব্যবহার করতেন। এছাড়া সেখানে মানুষকে শক দেওয়ার বিভিন্ন ইলেকট্রিক যন্ত্রপাতিও উদ্ধার করা হয়। এলাকায় আধিপত্য এবং তাদের কথা কেউ না শুনলেই গভীর রাতে এখানে মানুষ এনে বিচারের নামে নির্যাতন করা হতো বলে অভিযোগ রয়েছে।

এর আগে নৌবাহিনীর অফিসারকে মারধরের অভিযোগে ইরফান ও তার দেহরক্ষীসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে ধানমন্ডি থানায় মামলা করা হয়। এরপরই এরফানসহ অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে হাজী সেলিমের মালিকানাধীন চকবাজারের দুটি বাসায় সোমবার (২৬ অক্টোবর) দুপুরের পর ঘিরে ফেলে র‌্যাব ও পুলিশসহ সরকারের বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তারা। দীর্ঘ পাঁচ ঘণ্টা এরফানের দাদার চকবাজারের দেব দাস লেনের বাসায় অভিযান পরিচালনা করেন র‌্যাবের ম্যাজিস্ট্রেট সরোয়ার আলম। সেখান থেকে ৩৮টি ওয়াকিটকি, হ্যান্ডকাপ, বিদেশী মদ ও বিয়ার ও অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

দুটি অভিযোগে ইরফান ও তার দেহরক্ষী জাহিদুল ইসলামকে ১ বছর করে সাজা দেন র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। তাদের কেরাণীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।