নান্দাইলে বৃষ্টি আর দমকা হাওয়ায় কৃষকের স্বপ্ন স্লান

আরএন শ্যামা, নান্দাইল (ময়মনসিংহ) : ময়মনসিংহ নান্দাইল গত কয়দিনের টানা বর্ষণ আর দমকা হাওয়ায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে রোপা আমনসহ বিভিন্ন ফসলের। শতশত কৃষকের স্বপ্নের ক্ষেতের ফসল বর্তমানে কাঁদাপানিতে লেপ্টে আছে।

চলতি রোপা আমন চাষের শুরু থেকে প্রকৃতির সাথে অবিরাম লড়াই চলছে নান্দাইল কৃষকদের। আমনের চারা রোপনের পরে কয়েক দফা বন্যার ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই অনেক ক্ষেতে দেখা দেয় পোকার আক্রমণ। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ব্যাপক তৎপরতা আর কৃষকদের হার না মানা লড়াইয়ে জয় কৃষকের। কৃষাণ-কৃষাণীরা আশায় বুক বাঁধেন, স্বপ্ন দেখেন ফসল ঘরে তুলে নবান্ন উৎসবে মেতে ওঠার। তবে তাদের আশার পাতে ছাঁই। তাদের স্বপ্নের আমন ক্ষেতের ধান গাছ এখন মাটির সাথে মিশে আছে।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে শত শত কৃষকের পাকা, আধাপাকা, কাঁচা ধান মাটিতে লুটিয়ে পড়েছে। বৃৃষ্টি আর বাতাসের তোড়ে নষ্ট হয়ে গেছে ফুলকপি, বাঁধাকপি, বেগুন, লাউ ক্ষেত সহ বিভিন্ন প্রকার সবজি ক্ষেত।আচারগাও ইউনিয়নের ধরগাও গ্রামের কৃষক জামাল বলেন, আমার‌ দুই একর জমির ক্ষেতের সদ্য শীষ বের হওয়া স্বর্ণ জাতের ধানের গাছ মাটিতে শুয়ে পড়েছে। চন্ডিপাশা ইউনিয়নের খামার গ্রামের কৃষক মিজান জানান, তার এক বিঘা জমির ধান গাছ জমির কাঁদাপানিতে লেপ্টে আছে। এতে জমির ধান পঁচে নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা দেখছেন তিনি। পরিস্থিতির কথা জানিয়ছেন উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলের প্রান্তিক কৃষক। চলতি মৌসুমে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে সৃষ্ট দুরাবস্থা কাটিয়ে উঠতে সরকারী সহায়তার দাবি জানান ক্ষতিগ্রস্ত প্রান্তিক কৃষকরা।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হারুন -অর-রশিদ বলেন, উপজেলায় এবারে ২২হাজার ৪৬৫হেক্টর জমিতে আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা হয়েছে।সবশেষ বৃষ্টি ও বাতাসের কারণে ৩৭০ একর জমির ধান মাটিতে লুটিয়ে পড়ায় ২ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।