লাখো মানুষের অংশ গ্রহণে ঈদে মিলাদুন্নবীর জুলুস পালিত

যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) পালিত

নিজস্ব প্রতিবেদক:

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে রাজধানীতে জশনে জুলুস শোভাযাত্রা ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। অপরদিকে, চট্টগ্রামে ঈদে মিলাদুন্নবীর জুলুসে লাখো মানুষের ঢল।

শুক্রবার (৩০ অক্টোবর) সকালে রাজধানীর রমনা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ মিলনায়তন প্রাঙ্গন থেকে জশনে জুলুস শোভাযাত্রা বের হয়ে রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে।
শোভাযাত্রার আয়োজন করে আন্জুমানে রহমানিয়া মইনিয়া মাইজভান্ডারীয়া।

মাইজভান্ডার দরবার শরীফের ইমাম শাহ্সূফি মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন্ আহমদ আল্-হাসানীর নেতৃত্বে শোভাযাত্রা পর মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম। সেই ইসলাম ধর্ম প্রচারে, মানব জাতির কল্যাণে আল্লাহ রাসুলকে (সা.) তার দূত হিসেবে আমাদের মধ্যে পাঠান। আমাদের সবার কাছে রাসুলের জীবন শিক্ষণীয়।

তিনি বলেন, মহানবী অন্য ধর্মকে শ্রদ্ধা করতেন এবং তার অনুসারীদেরও অন্য ধর্ম বা ধর্মাবলম্বীদের অবমাননা করতে মানা করেছেন। কেননা কোন ধর্মের অনুসারিরাই তাদের ধর্মীয় ব্যক্তিত্বের অবমাননা মেনে নিতে পারেন না।

সভাপতির বক্তব্যে সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী বলেন, পৃথিবী থেকে অন্ধকার অনাচার ব্যভিচারসহ মানবতাবিরোধী অপরাধ দূর করতে আলোর মশাল নিয়ে শুভাগমন করেন মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)। তিনি পৃথিবীতে মানবিক সমাজ গড়ে তোলার জন্য কাজ করেছেন এবং সবাইকে আহ্বান জানিয়েছেন। পৃথিবীতে তার শুভাগমন মানবজাতির জন্য আল্লাহর বিশেষ নিয়ামত।

এসময় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন আলোচক হযরত মাওলানা বাকী বিল্লাহ্ আল-আযহারী, হযরত মাওলানা রুহুল আমিন ভূঁইয়া চাঁদপুরী, আঞ্জুমান সাধারণ সম্পাদক খলিফা মো. আলমগীর খাঁন, সহ-সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ।

অনুষ্ঠান শেষে বিশ্ব মানবতার কল্যাণ, করোনা থেকে মুক্তি, মুসলিম উম্মাহর ঐক্য ও সমৃদ্ধি এবং দেশবাসীর ওপর আল্লাহর রহমত কামনায় বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।
অপরদিকে, চট্টগ্রামে ঈদে মিলাদুন্নবীর জুলুসে লাখো মানুষের ঢল। যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে চট্টগ্রামে পালিত হয়েছে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.)। এই উপলক্ষে সকালে চট্টগ্রাম নগরীর ষোলশহরের জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া মাদরাসা সংলগ্ন আলমগীর খানকাহ থেকে বের করা হয় ঐতিহ্যবাহী জশনে জুলুস। এটি নগরীর মুরাদপুর, জিইসি ও ওয়াসা মোড় হয়ে আবার মাদরাসা মাঠে গিয়ে শেষ হয়। জুলুসে বিভিন্ন উপজেলা থেকে মানুষজন অংশ নেন।

বৈশ্বিক মহামারী করোনা ও শুক্রবার জুমার নামাজের কারণে চট্টগ্রামে এবার ঈদে মিলাদুন্নবীর জুলুস (শোভাযাত্রা) সংক্ষিপ্ত করা হলেও লাখো ধর্মপ্রাণ মানুষের ঢল নামে নগরীতে।

পরে মাদরাসা মাঠে আলোচনা সভা, জুমার নামাজ, মিলাদ, কিয়াম ও মুনাজাতের মাধ্যমে শেষ হয়। আখেরি মোনাজাতে করোনামুক্ত বিশ্বের জন্য দোয়া করা হয় বলে জানিয়েছেন আয়োজকরা।

১২ রবিউল আওয়াল বিশ্বনবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) এর জন্মদিন উপলক্ষে ১৯৭৪ সাল থেকে চট্টগ্রামে জশনে জুলুস আয়োজন করা হচ্ছে। এছাড়াও ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে।