বুড়িমারীতে গণপিটুনিতে নিহতের পর লাশ পুড়িয়ে ছাই: ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন

উত্তেজিত জনতা কর্তৃক আগুনে পুড়িয়ে যাওয়া মোটরসাইকেল

এম এ মান্নান, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বুড়িমারীতে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আবু ইউনুস মোঃ শহীদুন্নবী জুয়েল (৫০) নামের এক ব্যক্তিকে গণপিটুনি দিয়ে হত্যার পর লাশ পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনায় জেলা প্রশাসক আবু জাফর তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। শুক্রবার গঠিত এ তদন্ত কমিটিতে লালমনিরহাট অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট(এডিএম) টিএমএ মোমিনকে প্রধান নিযুক্ত করা হয়েছে। অপর দুই সদস্য হলেন লালমনিরহাট অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম ও পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বেগম কামরুন নাহার।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক মোঃ আবু জাফর বলেন, কমিটিকে তিন কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জেলা প্রশাসকের নিকট জমা দিতে বলা হয়েছে। জানতে চাইলে লালমনিরহাট অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) টিএমএ মোমিন বলেন, আমরা তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেছি। তবে যেহেতু তিন কর্মদিবস সেহেতু আগামী মঙ্গলবার নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হবে। তিনি আরো বলেন, র্যাব এ ঘটনায় ছায়া তদন্ত করছে। সেখানে র্যাব, বিজিবি ও পুলিশের সাথে আমরাও টহলে আছি।

এদিকে, লালমনিরহাটের পাটগ্রামে গুজব ছড়িয়ে ‍গণপিটুনিতে হত্যার পর লাশ পুড়িয়ে বুড়িমারীতে কোরআন অবমাননার গুজবে গণপিটুনিতে নিহত আবু ইউনুস মোহাম্মদ শহীদুন্নবী (৫০) নামের এক ব্যক্তির মরদেহ আগুনে পুড়ে ছাই করা হয়েছে। একই ঘটনায় আহত হন সুলতান জোবায়ের আব্বাস (৪৫)। নিহত আবু ইউনুস মোহাম্মদ শহীদুন্নবী রংপুর শহরের শালবন মিস্ত্রি পাড়ার মৃত আবু ওয়াজেদ মিয়ার ছেলে। তিনি রংপুর ক্যান্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের সাবেক লাইব্রেরীয়ান। আহত সুলতান জোবায়ের একই এলাকার শেখ আব্বাস আলীর ছেলে। তিনি পেশায় দলিল লেখক বলে জানা যায়। মর্মান্তিক এ ঘটনাটি ঘটেছে গত বৃহস্পতিবার ২৯ অক্টোবর সন্ধ্যায়। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো মামলা দায়ের বা কেউ আটক হয়নি। পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার আবু ইউনুস মোহাম্মদ শহীদুন্নবী ও সুলতান জোবায়ের আব্বাস পাটগ্রামের বুড়িমারী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে আসর নামাজের পর মসজিদের খাদেম জুবেদ আলী (৬০) এর সাথে সালাম ও করমর্দন করার পর এখানে অস্ত্র আছে এমন দাবী করে মসজিদের কোরআন ও হাদিস রাখার সেলফে খোঁজা খুজি করে। এসময় মসজিদের উঠানে থাকা স্থানীয় আবুল হোসেন ( হোসেন ডেকোরেটর) সহ ৫/৬ জন মুসল্লি তাদের দুজনকে মসজিদের বারান্দায় বসিয়ে মারপিট করে। খবর পেয়ে বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের এক নম্বর ওয়ার্ড ইউপি সদস্য হাফিজুল ইসলাম তাদেরকে সেখান থেকে উদ্ধার করে বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের একটি কক্ষে বাহির থেকে তালা দিয়ে রাখে। এদিকে দুই ব্যক্তি মসজিদে ঢুকে কোরআন অবমাননার কথিত গুজব ছড়িয়ে পড়লে, চার দিক থেকে হাজার হাজার উত্তেজিত মানুষ বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে জমায়েত হয়ে বিভিন্ন শ্লোগান দেয়। এরএক পর্যায়ে ইউনিয়ন পরিষদের জানালা দরজা ভেঙে উত্তেজিত জনতা ভেতরে প্রবেশ করে তাদেরকে গণপিটুনি দিতে থাকলে পুলিশ একজনকে সরিয়ে নিতে পারলেও শহীদুন্নবী কে উদ্ধার করতে পারেনি। তিনি গণপিটুনিতে সেখানেই মারা যান। এরপর তার মরদেহ ইউনিয়ন পরিষদ চত্বর থেকে টেনে হেচরে নিয়ে এসে লালমনিরহাট – বুড়িমারী জাতীয় মহা সড়কের বুড়িমারী প্রথম বাশ কল মেসার্স জয় ট্রেডার্সের সামনে কাঠ খড়ি,প্যাট্রল ও টায়ার জ্বালিয়ে পুড়িয়ে দেয়। বুড়িমারী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খাদেম জুবেদ আলী বলেন, আসরের নামাজ শেষ হওয়ার পর অচেনা দুই ব্যক্তির মধ্যে শহীদুন্নবী নিজেকে র্যা ব পরিচয় দিয়ে আমাকে বলে যে মসজিদের সেলফে অস্ত্র আছে দাবি করে তল্লাশি শুরু করে। এ সময় মসজিদের উঠানে থাকা হোসেন আলীসহ ৫/৬ জন মুসল্লি ওই ব্যক্তিকে মসজিদের বারান্দায় এনে মারপিট করে। ইউপি সদস্য হাফিজুল ইসলাম বলেন আমি তাদের নিয়ে এসে ইউনিয়ন পরিষদের একটি কক্ষে তালা দিয়ে রেখে প্রশাসনসহ জনপ্রতিনিধিদের আসার জন্য সংবাদ দেই। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে ছিল যে সে সময় তাদের পরিচয় নিতেও পারিনি। এরই মধ্যে সংশ্লিষ্ট সকল কতৃপক্ষের লোকজন এসে উপস্থিত হলেও পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি। লোকটাকে বাচাতে পারলো না কেউ। লালমনিরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম আজ শুক্রবার পাটগ্রাম থানায় উপস্থিত গণ মাধ্যম কর্মীদের বলেন ঘটনাস্হল আমরা পরিদর্শন করে আলামত সংগ্রহ করেছি। আমাদের সিআইডিসহ অন্যান্য সংস্থা ঘটনার বিষয়ে তদন্ত করছে। পরিস্হিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এ ঘটনায় একাধিক মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলমান রয়েছে। লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক মোঃ আবু জাফর বলেন, বৃহস্পতিবার রাতেই আমরা ঘটনাস্হল পরিদর্শন করে জনপ্রতিনিধি, প্রশাসন ও স্হানীয় লোকজনের সাথে কথা বলেছি পরিস্থিতি শান্ত রাখার জন্য। ঘটনার অধিকতর তদন্তের পর প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।