বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে বিতর্ক থাকতে পারে না: নৌ প্রতিমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের প্রশ্নে কোনো বিতর্ক থাকতে পারে না বলে মন্তব্য করেছেন নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধকে নিয়ে যারা বিতর্ক করে, তারা বাংলাদেশকে ধারণ করতে পারে না। বাংলাদেশকে ধারণ করতে তারা পছন্দ করে না।

রোববার সকালে রজতজয়ন্তী উপলক্ষে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি আয়োজিত বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা প্রদর্শনীর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

নৌ প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ আছি, যারা অনেক লেখকের লেখা পছন্দ করতে পারি। বিভিন্ন সাহিত্যিক আমাদের প্রিয় হতে পারে। নেতৃত্বের পছন্দ-অপছন্দ থাকতে পারে। রাজনৈতিক দলের পছন্দ-অপছন্দ থাকতে পারে। বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের প্রশ্নে কোনো বিতর্ক থাকতে পারে না।

বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধকে সমুন্নত রাখার আহ্বান জানিয়ে খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশের সৃষ্টির সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর যে অবদান তা অনস্বীকার্য। মুক্তিযুদ্ধে পাক হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে বিজয় লাভ করা, ৯ মাসের মুক্তিযুদ্ধ আমাদের অহংকার। এ জায়গাগুলো সমুন্নত রেখে পথ চলতে হবে। ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি এরকম একটি পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। আমি তাদের অভিনন্দন জানাই।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন উদার। তার উদারতা আমরা কিছু স্বার্থান্বেষী মানুষ গ্রহণ করতে পারিনি। সেজন্য বাংলাদেশকে অনেক মূল্য দিতে হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, একেকজন রাজনৈতিক নেতা, একেকজন বিশ্লেষক একেক রকম করে বিশ্লেষণ করেন। কিন্তু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পুরো জাতিকে একটি জায়গায় নিয়ে এসেছেন। মুক্তিযুদ্ধের জন্য প্রস্তুত করেছেন এবং মুক্তিযুদ্ধে জয়ী হয়েছেন।

খালিদ মাহমুদ বলেন, বিশ্বে এমন কোনো দেশ নেই যেখানে একটি গণতান্ত্রিক আন্দোলন সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধে পরিণত হয়। বঙ্গবন্ধু একদিনের জন্য সশস্ত্র বিপ্লবের কথা বলেননি। বঙ্গবন্ধু কোনো বিপ্লবী নেতা ছিলেন না। তিনি ছিলেন গণতান্ত্রিক সংগ্রামী নেতা। এ সংগ্রামকে তিনি সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধে পরিণত করেছেন। এটি ইতিহাসে বিরল ঘটনা। বঙ্গবন্ধু কখনো রক্তপাতে বিশ্বাস করতেন না। তিনি মানুষ হত্যায় বিশ্বাস করতেন না। তিনি উদার ও মানবতাবাদী একজন মানুষ। সেই মানবতার জায়গা থেকে বাংলার মানুষ তার প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করেছিল। সেই বিশ্বাসের জায়গা থেকে মুক্তিযুদ্ধে জয়লাভ করেছিল বাঙালি জাতি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাংলা সাহিত্যে নোবেল পেয়েছেন, কিন্তু বাঙালিকে জাতি হিসেবে বিশ্বে তুলে ধরতে পারেননি। অনেক কবি, সাহিত্যিক, রাজনীতিক অনেকে কিছু করেছেন। কিন্তু জাতি হিসেবে আমাদের পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি রফিকুল ইসলাম আজাদের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ডিআরইউ রজতজয়ন্তী উদযাপন কমিটির চেয়ারম্যান শাহজাহান সরদার, ডিআরইউ’র সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক হাবীবুর রহমান, নারী সম্পাদক রীতা নাহার, সিনিয়র সাংবাদিক আজিজুল ইসলাম ভূঁইয়া। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ডিআরইউ কার্যনির্বাহী সদস্য আহমেদ মুশফিকা নাজনীন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন অর্থ সম্পাদক জিয়াউল হক সবুজ ও আপ্যায়ন সম্পাদক এইচ এম আকতার।

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা প্রদর্শনের পাশাপাশি সদস্যদের লেখা বই, প্রয়াত সদস্যদের ছবি, সদস্য সন্তানদের আঁকা ছবি ও ডিআরইউ ২৫ বছরের পথচলার বিভিন্ন ছবিও প্রদর্শনীতে স্থান পায়। উদ্বোধন শেষে নৌ প্রতিমন্ত্রী প্রদর্শনী ঘুরে দেখেন।