অবশেষে পরাজয় মেনে নিলেন ট্রাম্প নিয়মমাফিক ক্ষমতা হস্তান্তর

বাহিরের দেশ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেস গত বছরের নভেম্বরে হওয়া প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জো বাইডেনের জয়কে স্বীকৃতি দেওয়ার পরপরই ডনাল্ড ট্রাম্প জানুয়ারির ২০ তারিখ নিয়ম অনুযায়ী নতুন প্রেসিডেন্টের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।
ক্যাপিটল ভবনে গত বুধবার ট্রাম্প সমর্থকদের তাণ্ডব ও দাঙ্গার পর মার্কিন কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনে বাইডেনের জয়ের স্বীকৃতি মেলে। আনুষ্ঠানিক এ স্বীকৃতির পর অপেক্ষা এখন কেবল ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্টের শপথ গ্রহণের।
কংগ্রেসের স্বীকৃতির পর দেওয়া বিবৃতিতে ট্রাম্প নিয়মানুসারে ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রতিশ্রুতির পাশাপাশি অবসর জীবনযাপন না করে সামনের দিনগুলোতে রাজনীতিতে সক্রিয় থাকারও ইঙ্গিত দিয়েছেন বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।
৭৪ বছর বয়সী এ প্রেসিডেন্ট ২০২৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়তে পারেন বলে অনেকের অনুমান। ট্রাম্প তার বিবৃতিতে নির্বাচনে কারচুপি সংক্রান্ত তার আগের অভিযোগগুলোও পুনর্ব্যক্ত করেছেন । “যদিও আমি নির্বাচনের ফলের সঙ্গে একমত নই, তবুও ২০ জানুয়ারি নিয়ম অনুযায়ীই ক্ষমতা হস্তান্তর হবে,” বলেছেন এ রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট।
তিনি বলেন, “আমি সবসময়ই বলে আসছি কেবল বৈধ ভোট গণনা করার এ লড়াই আমরা অব্যাহত রাখবো। যদিও এখানেই প্রেসিডেন্টদের ইতিহাসের সবচেয়ে সেরা প্রথম মেয়াদের শেষ হচ্ছে, আদতে এটা হচ্ছে মেইক আমেরিকা গ্রেট অ্যাগেইন লড়াইয়ের কেবল শুরু। এর আগে বুধবার কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনে বাইডেন ও কমলা হ্যারিসকে যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট ও ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে সরকারিভাবে স্বীকৃতি দেওয়া হয় বলে জানিয়েছে বিবিসি।
পেনসিলভেইনিয়া ও আরিজোনা রাজ্যের ভোট নিয়ে কয়েক রিপাবলিকানের তোলা আপত্তি কংগ্রেসের উভয় কক্ষ সেনেট ও প্রতিনিধি পরিষদে প্রত্যাখ্যাত হওয়ার পর ইলেকটোরাল ভোটের ফলাফল অনুমোদন করা হয়।কংগ্রেস রাজ্যগুলোর ফলাফলের ইলেকটোরাল কলেজ টালি নিশ্চিত করেছে আর তাতে ৩ নভেম্বরের প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ক্ষমতাসীন ডনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে বাইডেন জয়ী হয়েছেন, এমনটি দেখা গেছে বলে ঘোষণা করেন কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনে সভাপতিত্ব করা যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স। ইলেকটোরাল কলেজে বাইডেন ৩০৬ ও ট্রাম্প ২৩২ ভোট পেয়েছেন বলে অধিবেশন স্বীকৃতি দেয়। প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থকরা ক্যাপিটল ভবনে হামলা চালানোয় কংগ্রেসের এই নিয়মতান্ত্রিক অধিবেশন বিঘ্নিত হয়েছিল। এ সময় অধিবেশন কয়েক ঘণ্টা স্থগিত ছিল।