রৌমারীতে রাস্তা বিহীন ৫ গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ

নাজমুল আলম, কুড়িগ্রাম: কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার সীমান্ত ঘেষা রাস্তা বিহীন ৫টি গ্রামের মানুষের চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। উপজেলার রৌমারী সদর ইউনিয়নের চর বারবান্দা, ভুন্দরচর, পূ্র্ব ইজলামারী, চর ফুলবাড়ী নয়ারচরসহ ৫টি গ্রামের মানুষের চলাচলে দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে। ওই গ্রামের নুরুল আমিনের দোকান হইতে রহম আলীর বাড়ী পর্যন্ত মাত্র ৩০০ মিটার রাস্তা সংস্কার না করায় এ দূর্ভোগের সৃষ্টি হয়। গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া রাস্তাটি সংকুচিত হওয়ায় পায়ে হাটা ছাড়া কোন যানবাহন যেতে পারছে না। এ ছাড়াও চর বারবান্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪ তলা ভবন নির্মান কাজের মালামাল পবিবহনে আনতে পারছেনা ঠিকাদার। ফলে নির্মাণ কাজ ব্যাহত সৃষ্টি হচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, গ্রামবাসী, স্কুল শিক্ষার্থী, চাকুরিজীবি, ব্যবসায়ীসহ সকল পেশাজীবি মানুষের প্রয়োজনে গত বছর নিজেদের জমি ও নিজস্ব অর্থ দিয়ে ৪ ফুট প্রসস্থ রাস্তা মেরামত করেন। সেটাও এবার জমির মালিকগণ রাস্তার বেশি অংশই কেটে নেয়। এতে যানবাহন তো দুরের কথা মানুয়ও ঠিকা মতো যাতায়াত করতে পারছে না। গ্রামবাসি শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও ঠিকাদারের দাবি রাস্তাটি দ্রুত প্রসস্থ করে সরকারের উন্নয়ন কাজের লক্ষে প্রতিষ্ঠানের ৪ তলা ভবনটির নির্মান কাজের মালামাল পরিবহনসহ যাতায়াতের ব্যবস্থা গ্রহন করা দরকার।

চর বারবান্দা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক রফিকুল ইসলাম জানান, দীর্ঘদিন থেকে আমরা এলাকাবাসী রাস্তাটিতে কষ্টের সাথে যাতায়াত করে আসছি এবং আমি আমার জমি দিয়ে তিলতিল করে প্রতিষ্ঠানটি গড়েছি। আজ সরকার প্রতিষ্ঠানটি সরকারি করন করে ৪ তলা বিশিষ্ট একটি ভবন দিয়েছে। রাস্তাটি সংকুচিত করায় ভবনের নির্মান কাজের মালামাল আনতে পারছে না ঠিকাদার। আমাদের দাবী তাড়াতাড়ি রাস্তাটি প্রসস্থ করে শিক্ষার্থীসহ এলাকার মানুষের যাতায়াত ও ভবনটি নির্মান কাজের মালামাল পরিবহন করতে শিক্ষা বিভাগসহ স্থানীয় প্রশাসনের কাছে জোড় দাবী করছি।
সাবেক মেম্বার আবুল কালাম আজাদ জানান, আমি জমির মালিকদের বলে ৪ ফিট রাস্তার ব্যবস্থা করেছিলাম। আজ দেখি সেই রাস্তাটি নাই। কেন যে তারা রাস্তাটি কেটে ছোট করলো তা আমার জানা নাই।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার আল ইমরান বলেন, বিষয়টি আমি জেনেছি। এলাকাবাসি একটি আবেদন দিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।