কানাডায় পিকে হালদারের এনজিওতে কাজ করছে ১৩ দেশ

প্রশান্ত কুমার হালদার (পি কে হালদার)

পিকে হালদারের বিরুদ্ধে ইন্টারপোলের রেড অ্যালার্ড জারি:

আদালত প্রতিবেদক: কানাডায় পিকে হালদারের আসা-যাওয়া ২০১৫ সাল থেকে। ২০১৭ সালে সরকার ফ্যামিলি হোপ ফাউন্ডেশন নামে এনজিওতে অর্থলগ্নি করেন। বাংলাদেশ থেকে অবৈধভাবে পাচার করা অর্থের বৈধতা দিতে আরেকটি দেশ ব্যবহার করে কানাডায় সে অর্থ পৌঁছান। কোম্পানি খুলতে সে দেশের নিয়ম মেনে ২৫ শতাংশ সিটিজেন শেয়ারও দেন একজন বাংলাদেশি কানাডিয়ানকে।

সে প্রতিষ্ঠানটি এখন বাংলাদেশসহ ১৩টি দেশে কাজ করছে। ২০১৯ সালে কানাডায় বাড়ি-গাড়ি কেনেন হালদার। পরিবারসহ সেখানেই থাকছেন তিনি। কানাডায় সম্পূর্ণ বৈধ অভিবাসী তিনি। এ অবস্থায় তার বিরুদ্ধে বাংলাদেশে চলা বিচার বা তাকে দেশে ফেরত আনা কতটা কার্যকর হবে সেটিই প্রশ্ন।

বাংলাদেশ থেকে পাচার করে নে5ওয়া শত শত কোটি টাকা তৃতীয় দেশের মাধ্যমে নিয়ে কানাডায় বৈধ করেছেন পিকে হালদার। গড়েছেন আন্তর্জাতিক এনজিও, বাড়ি। আইনিভাবে এ অর্থ ফেরত পাওয়া নিয়ে সন্দিহান অনেকেই। তবে দুদক আইনজীবী বলেন, অর্থপাচারে ব্যবহার হওয়া তৃতীয় দেশের তথ্য সংগ্রহ সময়সাপেক্ষ ও কঠিন হলেও অসম্ভব নয় অর্থ ফেরত পাওয়া।

কানাডায় পিকে হালদারের এনজিওতে ১৩ দেশ কাজ করছে। পলাতক পিকে হালদারের কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেন কানাডায় বসবাসরত বাংলাদেশিরা। প্রবাসীরা জানান, পিকে হালদারের বিরুদ্ধে আমরা সমাবেশ করেছি। তাদেরকে সামাজিকভাবে বয়কট করতে হবে। দুদক আইনজীবী বলেন, অর্থপাচারে ব্যবহার করা তৃতীয় দেশগুলোর কাছ থেকে তথ্য পেলে আরো গতি পাবে এই তদন্ত।

অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম খান বলেন, অবৈধভাবে টাকা নিয়ে বৈধ করার সুযোগ পাবে না। সেটা হয়তো কানাডাতে বৈধ হতে পারে। কানাডা হয়তো আপনি ইনভেস্টমেন্ট করলেন আরেকটা থার্ড কান্ট্রির মাধ্যমে কিন্তু সেটা টাকাটা গেল আমার দেশ থেকে। বাংলাদেশ দেখবে টাকা কীভাবে কানাডায় গেল এবং দেখার যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে। ৩৬০০ কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা পিকে হালদারকে আইনের আওতায় আনা গেলে কানাডার বেগমপাড়ায় যারা অবৈধ সম্পদ গড়েছেন তাদের বিরুদ্ধেও তদন্তের দ্বার খুলবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

পিকে হালদারের বিরুদ্ধে ইন্টারপোলের রেড অ্যালার্ড জারি: প্রায় সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকা পাচারের অভিযোগের মুখে বিদেশে পলাতক প্রশান্ত কুমার হালদারকে (পিকে হালদার) গ্রেফতারে রেড অ্যালার্ট জারি করেছে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিমিনাল পুলিশ অর্গানাইজেশন (ইন্টারপোল)।

শুক্রবার এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ পুলিশ হেডকোয়ার্টারের এআইজি (মিডিয়া) সোহেল রানা।

তিনি বলেন, পুলিশের আবেদনের প্রেক্ষিতে শুক্রবার ইন্টারপোল পিকে হালদারের বিরুদ্ধে রেড অ্যালার্ট জারি করেছে।

এর আগে পিকে হালদারকে দেশে ফিরিয়ে আনতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে ইন্টারপোলের সহায়তার আবেদন করে দুর্নীতি দমন কমিশন। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে পিকে হালদারের বিরুদ্ধে করা সব মামলার নথি চায় ইন্টারপোল। পরে ২ ডিসেম্বর ইন্টারপোলের মাধ্যমে পিকে হালদারকে গ্রেফতারের জন্য পরোয়ানা জারি করেন ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ কেএম ইমরুল কায়েশ।

আর্থিক খাত থেকে আত্মীয়-স্বজন চক্রের মাধ্যমে অন্তত ১০ হাজার কোটি টাকা সরিয়ে নেয়ার কারিগর পিকে হালদারের বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত ৪০০ কোটি টাকা বিদেশে পাচারের অফিসিয়াল তথ্য পাওয়া গেছে। দুদক ছাড়াও বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক গোয়েন্দা বিভাগ পিকে হালদার ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান করছে।

এছাড়া দুদকের ক্যাসিনো দুর্নীতির মামলায় চার্জশিট তালিকায় লিজিং কোম্পানি ও আর্থিক খাত থেকে কয়েক হাজার কোটি টাকা পাচারে পিকে হালদার জড়িত। ক্যাসিনো সংশ্লিষ্টতায় তার বিরুদ্ধে ৮ জানুয়ারি মামলা করেন দুদকের উপ-পরিচালক মো. সালাহউদ্দিন।

এদিকে নিরাপত্তা চেয়ে ১৯ অক্টোবর হাইকোর্টে আবেদন করে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেড (আইএলএফএসএল) জানায়, আত্মসাৎ করা অর্থ ফেরত দিতে জীবনের নিরাপত্তার জন্য আদালতের আশ্রয়ে পিকে হালদার দেশে ফিরতে চাইছেন।

আবেদন গ্রহণ করে ২১ অক্টোবর হাইকোর্ট এক আদেশে বলেন, পিকে হালদার বিমান থেকে দেশের মাটিতে পা রাখার সঙ্গে সঙ্গে তাকে গ্রেফতার করে উপযুক্ত আদালতে সোপর্দ করতে হবে। পিকে হালদার যদি দেশে আসেন, তাহলে এ কোম্পানি ম্যাটারটা নিষ্পত্তি করা যাবে।

সেটা নিষ্পত্তি করতে এ কোর্ট দেখতে চায় যে, তিনি বিমানে দেশে পা ফেলা মাত্র তাকে যেন অ্যারেস্ট করা হয় এবং জেলে নেয়া হয়। তাকে যেন বাইরে যেতে না দেয়া হয়। এ কাজটা যদি করা হয়, তাহলে তার আবেদন অনুযায়ী তিনি যে মনে করছেন, তাকে কিডন্যাপ করা হবে, তা আর হবে না। তবে ২৪ অক্টোবর পিকে হালদার দেশে ফিরছেন না বলে দুদক ও অ্যাটর্নি জেনারেলের কার্যালয়কে আইএলএফএসএলের আইনজীবী ই-মেইল করে জানান।