রাজশাহীর পদ্মার চরে ভাসছে মাথায় লালটুপি পরা ‘রাঙ্গামুড়ি হাঁস’

ফাইল ছবি

গবেষকরা সন্ধ্যা পেয়েছেন ৪১ প্রজাতির পাখি

রাজশাহী ব্যুরো: একটি গবেষক দল জেলার পদ্মা নদীর বিভিন্ন চরাঞ্চলে জরিপ চালিয়ে ৪১ প্রজাতির পাখি খুঁজে পেয়েছে। চলতি সপ্তাহে বাংলাদেশ ওয়াইল্ড বার্ড মনিটরিং প্রোগ্রামের অধীনে যৌথভাবে বাংলাদেশ বার্ডস ক্লাব, রাজশাহী বার্ড ক্লাব এবং বন বিভাগের সহযোগিতায় ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অব নেচার (আইইউসিএন) পদ্মা নদীর ৩৯ কিলোমিটার চর এলাকায় এই জরিপ চালায়।

আইইউসিএন-এর সিনিয়র প্রোগ্রাম অফিসার ও পাখি গবেষক সারওয়ার আলম দীপু সাংবাদিকদের জানান, চর খানপুর, চর খিদিরপুর, ১০ নাম্বার চর, চারঘাট ও মধ্য চর এলাকায় বেশিরভাগ পাখি প্রজাতি দেখা যায়। জরিপ চলাকালীন ৪১টি প্রজাতির মোট ২ হাজার ৭০৯টি পাখি গণনা করা হয় এবং এর মধ্যে ২৮টি অতিথি পাখি রয়েছে। দিপু বলেন, পদ্মা নদীর বিভিন্ন চরাঞ্চল রয়েছে যা প্রাকৃতিক সম্পদে পরিপূর্ণ হওয়ায় এখানে বসবাস ও খাদ্যের কারণে তা পাখিদের আকর্ষণ করে। তিনি বলেন, তাই পদ্মা নদী অববাহিকার চরভূমির ওপর দৃষ্টি দিয়ে এই জরিপ করা হয়।

এই জাতীয় নদী অঞ্চলের আবাসস্থল পাখি প্রজাতির ব্যাপক বৈচিত্র্যে সহায়তা করে, এদের মধ্যে অনেকগুলোই বালুচরে এবং অন্যগুলো ঘাসে বা খালের মধ্যে বাসা বাঁধে। শীত মৌসুমে বেশ কিছু পরিযায়ী (অতিথি) পাখি পদ্মা চরাঞ্চলে আসে এবং কিছু মানুষ অর্থ উপার্জনের জন্য এইসব পাখি শিকার করে।

গত বছর ৩৭টি প্রজাতির মোট ৪ হাজার ২৫টি পাখি গণনা করা হয় এবং এর মধ্যে ২৭টি পরিযায়ী পাখি ছিল। রাজশাহী বার্ড ক্লাবের সদস্য নূর-ই-সৌদ পদ্মা নদী ক‚লকে পাখিদের জন্য একটি অভয়ারণ্য হিসেবে ঘোষণা করার আহবান জানান।

পদ্মায় রাঙ্গামুড়ি হাঁস :

মাথায় লালটুপি পরা রাঙ্গামুড়ি হাঁসদের প্রথম দেখা যায় সিলেট বিভাগের টাঙ্গুয়ার হাওরে। শীতের এই পরিযায়ী পাখিগুলো সচরাচর অক্টোবর-নভেম্বরে এ দেশে আসে এবং মার্চ-এপ্রিলে মূল আবাস এলাকায় চলে যায়। গত এপ্রিলে এদেরই তিনটিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের মহানন্দা নদীতে দেখা গিয়েছিল।

এ মাসে রাজশাহীতে সদলে পাখি খুঁজতে খুঁজতে পদ্মার চরে এ রকম একটি হাঁসের সন্ধান মিলল। সিলেট অঞ্চলে এরা মৌলভি হাঁস নামেই বেশি পরিচিত। স্ত্রী-পুরুষনির্বিশেষে মাথার ঝুঁটিটি দেখলে মনে হবে যেন মাথায় টুপি পরে আছে, তাই এই নাম। এ ছাড়া বজ্রমুড়ি বা লালঝুঁটি ভুতিহাঁস নামেও পরিচিত।

ইংরেজি নাম জবফ-Red-crested Pochard। Anatidae পরিবারের হাঁসটির বৈজ্ঞানিক নাম Netta rufina। এরা দেখতে খুবই সুন্দর। হাঁসা আকারে বড় হয়। দেহের দৈর্ঘ্য ৫০-৬৫ সেন্টিমিটার এবং প্রসারিত ডানা ৮৫-৯০ সেন্টিমিটার। হাঁসার মাথা বড়। প্রজননকালে মাথার টুপি লালচে-কমলা ধারণ করে।

গলার ওপরটা হয় গাঢ় খয়েরি। ঘাড়, গলার নিচ, বুক, পেট-তলপেট ও কোমর কালো। পিঠ ধূসর-বাদামি। দেহের দুই পাশ সাদা। লেজ কালো ও লেজের আগা ধূসর। ঠোঁট গোলাপি-লাল। হাঁসির মাথার টুপি খয়েরি। পুরো দেহ হালকা ধূসর-বাদামি। গাল, গলা ও লেজের তলা সাদা। হাঁসার চোখ লাল, হাঁসির কালো। অপ্রাপ্তবয়স্ক বাচ্চাদের দেহের রং গাঢ়, পেট বহুরঙা ও ঠোঁট কালচে।

রাঙ্গামুড়ি হাঁস সচরাচর দৃশ্যমান পরিযায়ী পাখি। মূল আবাস ইউরোপ, তুরস্ক, চীন, মঙ্গোলিয়াসহ এশিয়ার আরও কয়েকটি দেশ। সাধারণত শীতকালে আমাদের দেশে দেখা যায়। সচরাচর একক বা মিশ্র দলে বিচরণ করে। জলজ আগাছা, উদ্ভিদ, শৈবাল ইত্যাদি মূল খাবার। এপ্রিল থেকে জুলাই এদের প্রজননকাল। জলাশয় বা হ্রদের পাশে লতাপাতার মধ্যে ঘাসের স্তূপ দিয়ে বাসা তৈরি করে তাতে পালকের আস্তরণ দেয়।

ডিম পাড়ে ৮-১২টি, ডিমের রং হালকা সবুজ যা ফোটে ২৬-২৮ দিনে। বাচ্চারা ৩৫-৪০ দিনে উড়তে শেখে ও ৪৫-৫০ দিনে স্বাবলম্বী হয়ে যায়। এক-দুই বছরে প্রাপ্তবয়স্ক হয়। বুনো পরিবেশে চার-সাত বছর বাঁচে। এরা একসময় বাংলাদেশে প্রচুর সংখ্যায় আসত। কিন্তু বর্তমানে তুলনামূলকভাবে কম আসে। জলাশয়-বিল-হাওর-বাঁওড় মাছের খামারিদের হাতে চলে যাওয়া, শিকারির উৎপাত তো আছেই। নামার জায়গার সংকটও আছে।