দিহানের দায় স্বীকার : ঢাকায় স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা

২৬ জানুয়ারি তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য

ময়নাতদন্ত রিপোর্টে মৃত্যুর কারণ অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ

দোষীর সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি আনুশকার পরিবারের

বিশেষ প্রতিবেদক: রাজধানীর কলাবাগানে ইংলিশ মিডিয়ামের ও লেবেলের ছাত্রী আনুশকাকে (১৭) ধর্ষণের পর হত্যা মামলার একমাত্র আসামি তানভীর ইফতেখার দিহান আদালতে দায় স্বীকার করেছেন।  শুক্রবার (৮ জানুয়ারী) স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়ার পর তাকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

ধর্ষণ ও হত্যার অভিযোগে দায়ের করা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ২৬ জানুয়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত। ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রশিদের আদালত এই আদেশ দেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কলাবাগান থানার পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) আ ফ ম আসাদুজ্জামানকে মামলাটি তদন্ত করে ২৬ জানুয়ারি প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আদেশ দেন তিনি। ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে শুক্রবার দিহান জবানবন্দি দেন। জবানবন্দি রেকর্ড শেষে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

এ তথ্য নিশ্চিত করেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) অপরাধ ও তথ্য বিভাগের উপপরিদর্শক (এসআই) শহিদুল ইসলাম। এর আগে গতকাল দুপুরে তানভীরকে আদালতে হাজির করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করার আবেদন করে কলাবাগান থানা-পুলিশ।

ডিএমপির অপরাধ ও তথ্য বিভাগের উপপরিদর্শক স্বপন কুমার রায় বলেন, এই মামলায় গ্রেফতার আসামিকে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করার জন্য আবেদন করে কলাবাগান থানা-পুলিশ। আসামি আদালতের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। পরে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত। ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ এনে কিশোরীর বন্ধুকে আসামি করে নিহতের বাবা কলাবাগান থানায় বৃহস্পতিবার রাতে মামলা করেন। মামলায় তানভীরকে আসামি করা হয়।

পুলিশের সঙ্গে কথা বলে এবং মামলার কাগজপত্রের তথ্য অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার দুপুরে কলাবাগানে বন্ধুর (আসামি) বাসায় অসুস্থ হয়ে পড়লে আনুশকাকে আনোয়ার খান মডার্ন কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক কিশোরীকে মৃত ঘোষণা করেন। তার লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। নিউমার্কেট অঞ্চলের পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে ধানমন্ডির আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কলাবাগান থানায় ফোন করে জানায়, এক তরুণ এক কিশোরীকে হাসপাতালে মৃত অবস্থায় এনেছেন। কিশোরীর রক্তক্ষরণ হচ্ছে। তখন নিউমার্কেট অঞ্চল পুলিশের জ্যেষ্ঠ সহকারী কমিশনার (এসি) আবুল হাসান ওই তরুণকে আটকে রাখতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করেন। এরই মধ্যে কলাবাগান থানার পুলিশ আনোয়ার খান হাসপাতালে গিয়ে ওই তরুণকে আটক করে। খবর পেয়ে তরুণটির তিন বন্ধু হাসপাতালে গেলে পুলিশ তাদেরও আটক করে।

নিহত কিশোরীর পরিবারের অভিযোগ, কৌশলে মেয়েটিকে বাড়িতে নিয়ে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, ফারদিন ইফতেখার দিহান বৃহস্পতিবার দুপুর আনুমানিক ১২টার দিকে স্কুলছাত্রী আনুশকাকে প্রেমে প্রলুব্ধ করে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর ৬৩/৪, লেক সার্কাস ডলফিন গলি, পান্থপথ, কলাবাগানের ফাঁকা বাসায় মেয়েটিকে নিয়ে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করে। ধর্ষণের সময় প্রচুর রক্তক্ষরণে মেয়েটি অচেতন হয়ে পড়ে। তখন বিবাদী ধর্ষণের বিষয়টি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য মেয়েটিকে নিয়ে আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে যায়। সেখানে ভিকটিমের মৃত্যু হয়। সংবাদ পেয়ে কলাবাগান থানা পুলিশের একটি দল দ্রুত হাসপাতালে যায়।

খবর পেয়ে আনুশকার তিন বন্ধু হাসপাতালে গেলে পুলিশ তাদেরও আটক করে পুলিশ। পরে চারজনকে কলাবাগান থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পুলিশ পরে স্কুলছাত্রীর লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

অতিরিক্ত রক্তক্ষরণেই মৃত্যু : রাজধানীর কলাবাগানে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় ‘ও’ লেভেল শিক্ষার্থী আনুশকার ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। গতকাল বিকেলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদের নেতৃত্বে ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়। ময়নাতদন্ত শেষে ডা. সোহেল মাহমুদ বলেন, ‘ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে। ধর্ষণের ফলে যৌন ও পায়ু পথে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণেই তার মৃত্যু হয়েছে। তিনি আরও বলেন, এ ছাড়াও ডিএনএ প্রোফাইলিংয়ের জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। মৃত্যুর পূর্বে চেতনানাশক কিছু খাওয়ানো হয়েছে কিনা, তার জন্য প্রয়োজনীয় নমুনা সংগ্রহ করে কেমিকেল পরীক্ষায় পাঠানো হয়েছে।

এসব রিপোর্ট পাওয়ার পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ বলা যাবে। এর আগে বয়স নির্ধারণের জন্য ওই ছাত্রীর মরদেহের এক্স-রেসহ প্রয়োজনীয় আলামত সংগ্রহ করা হয়। পরে স্বজনরা তার মরদেহ নিয়ে যান। এমন ঘটনায় জড়িতদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি পরিবারের। স্বজনদের দাবি, তাকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর ধর্ষণ করে হত্যা করা হয়। দোষীকে সর্বোচ্চ শাস্তি দিতে হবে। এ ঘটনায় প্রেসক্লাবের সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীসহ কয়েকটি সংগঠন। দাবি একটাই, দোষীর সর্বোচ্চ শাস্তি।