রাজধানীতে ৪৭ কেজি গাঁজাসহ ৩ জন গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর হাজারীবাগের কোম্পানীঘাট হতে ৪৭ কেজি গাঁজাসহ ৩ মাদককারবারিকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। এসময় মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত একটি ট্রাক জব্দ করা হয়েছে।
মাদকাসক্তি একটি বহুমাত্রিক সামাজিক সমস্যা। যে যুব সমাজ দেশ ও জাতির আগামী দিনের চালিকাশক্তি, তাদের একটি অংশ মাদকাসক্তির কবলে পড়ে নানা ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ছে। র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সবসময়ই মাদক উদ্ধারের ক্ষেত্রে অত্যন্ত অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে এবং এই পর্যন্ত বিপুল পরিমাণ দেশী/বিদেশী অবৈধ মাদক উদ্ধার করে সাধারণ জনগণের আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। মাদক ব্যবসায়ীরা প্রতিনিয়ত মাদক পরিবহনে নিত্য নতুনও অভিনব কৌশল অবলম্বন করে আসছে। র‌্যাব এসকল মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে দীর্ঘদিন ধরে গোয়েন্দা কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে।
এরই ধারাবাহিকতায় আজ শনিবার বিকেল ৪টার দিকে র‌্যাব-২ এর আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কুমিল্লা হতে ১টি হলুদ ও নীল রংয়ের ট্রাক যোগে বিপুল পরিমান গাঁজা (মাদক) নিয়ে হাজারীবাগ থানা এলাকায় হাস্তান্তরের জন্য আসছে। উক্ত সংবাদ এর সত্যতা যাচায়ে র‌্যাব-২ এর আভিযানিক দল ভোর পৌনে ৫ টার দিকে রাজধানী হাজারীবাগ থানাধীন কোম্পানী ঘাট মসজিদ সংলগ্ন শেখ কালিমের চায়ের দোকানের সামনে পাঁকা রাস্তার উপর উপস্থিত হয়ে উক্ত ট্রাকটি আটকের অপেক্ষায় ওৎ পেতে থাকে। সোয়া ৫টার দিকে ট্রাকটি ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে থামার জন্য সংকেত দেওয়া মাত্র, র‌্যাবের উপস্থিত টের পেয়ে ট্রাকটি থামিয়ে দৌড়ে পালানোর চেষ্টাকালে ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে। আটককৃতরা হচ্ছে ইব্রাহিম শেখ @ সোনামিয়া শেখ (২৮), সোহেল মোল্লা (৩৫), ও আলহাজ¦ মোল্লা (২০)। পরে গ্রেফতারকৃতদেরকে গাঁজার চালান সংক্রান্ত বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদে প্রথমে অস্বীকার করে। পরবর্তীতে তাদের ট্রাকটি তল্লাশি করে ট্রাকের উপরে খালি ক্যারেটের নিচে ৩টি বস্তার ভিতর হতে পলিথিনে মোড়ানো ৪৭ কেজি নিষিদ্ধ মাদকদ্রব্য (গাঁজা) পাওয়া যায়। গ্রেফতারকৃতরা জানায়, দীর্ঘদিন যাবৎ তারা রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় মাদক ব্যবসা করে আসছে।
জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানান যে, তারা পরস্পর যোগসাজোসে দীর্ঘদিন যাবৎ ট্রাক যোগে বিভিন্ন মালামালের অন্তরালে অবৈধভাবে বাংলাদেশে আসা গাঁজা (মাদক) ক্রয় করে রাজধানীর ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় বিক্রয় করে আসছিল। তাদের ব্যবহৃত ট্রাক এবং মোবাইল সেটগুলি মাদকদ্রব্য ব্যবসার কাজে ব্যবহার করে বলিয়া জানায়। ধৃতআসামীদের জিজ্ঞাসাবাদে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য যাচাই বাছাই করে ভবিষ্যতে র‌্যাব-২ এ ধরনের মাদক বিরোধী অভিযান অব্যাহত থাকবে। এ নিয়ে মামলা দায়ের হয়েছে।