শনিবার মঞ্চায়িত হবে প্রাচ্যনাটের ‘পুলসিরাত’

আনন্দ ঘর ডেস্ক : স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির পরীক্ষণ থিয়েটার হলে আজ শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় মঞ্চস্থ হবে প্রাচ্যনাট প্রযোজিত নাটক ‘পুলসিরাত’।

ফিলিস্তিনি লেখক ঘাসান কানাফানির উপন্যাস ‘মেন ইন দ্য সান’ অবলম্বনে এটি অনুবাদ করেছেন মাসুমুল আলম।

নাট্যরূপ দিয়েছেন মনিরুল ইসলাম রুবেল এবং নির্দেশনায় কাজী তৌফিকুল ইসলাম ইমন।

নাটকটির গল্পে দেখা যাবে, আবু কায়েস তার দুই সন্তান ও এক স্ত্রী রেখে বন্ধুর পরামর্শে নতুন এক সচ্ছল জীবনের সন্ধানে কুয়েত পাড়ি দিতে চান। তার স্বপ্ন– তার সন্তানরা স্কুলে পড়াশোনা করতে পারবে। নরম ও ভীতু স্বভাবের আবু কায়েসের বিপরীত চরিত্র আসাদের। সে এর আগেও সীমান্ত পার হয়ে অবৈধ পথে কুয়েত যেতে চেষ্টা করেছিল।

নিশ্চিত ও উন্নত ভবিষ্যৎ, চাচাতো বোনকে বিয়ে করার স্বপ্ন আবার একই সঙ্গে চাচার করা অপমান তাকে তাড়িত করে।

অন্যদিকে ষোলো বছরের মারওয়ান স্কুলের পড়াশোনা ছেড়ে নিজের পরিবারের দায়িত্বের চাপে পাড়ি দিতে চায় স্বপ্নের কুয়েতে। নিজের বড়ভাই কুয়েত থাকে। সেখানে সে কাজ করে দেশে পরিবারের জন্য টাকা পাঠাত। কিন্তু বিয়ে করে টাকা পাঠানো বন্ধ করে দেয়।

মারওয়ান তাই পরিবারকে বাঁচাতে অর্থ উপার্জনের স্বপ্ন নিয়ে পাড়ি দিতে চান কুয়েত।

তারা সবাই-ই ঘটনাক্রমে আবুল খাইজুরানের শরণাপন্ন হয়। আবুল খাইজুরান একজন পানিবাহী ট্যাংক লরির ড্রাইভার। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে সে ব্রিটিশ বাহিনীর হয়ে যুদ্ধ করেছেন। আবার ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ যোদ্ধাদের সঙ্গেও কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করেছেন।

এই আবুল খাইজুরান কায়েস, আসাদ আর মারওয়ানকে স্বপ্নের কুয়েত পর্যন্ত নিয়ে যেতে এগিয়ে আসেন। বিনিময়ে তিনি তিনজনের কাছ থেকে ১০ দিনার করে নেবেন। তার পানিবাহী লরিতে করে সীমান্ত পাড়ি দেবেন তিনজনকে নিয়ে। খাইজুরানের জন্য সেটি কোনো কষ্টকর কিছু নয়। আগস্ট মাসের প্রচণ্ড গরমে রোদে পুড়ে মরুভূমির পথে লরিটি এগিয়ে যায়।

তিনটি হতভাগ্য বিড়ম্বিত জীবন ছুটে চলে স্বপ্নময় এক নতুন সচ্ছল জীবনের প্রত্যাশায়, এভাবেই এগিয়ে যায় নাটকটির গল্প।
এতে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেন আজাদ আবুল কালাম, শাহরিয়ার সজীব, মনিরুল ইসলাম রুবেল, সাইফুল ইসলাম জার্নাল, চেতনা রহমান ভাষা প্রমুখ।