অ্যাপসে নিবন্ধন করে ভ্যাকসিন নিতে হবে : সেব্রিনা ফ্লোরা

করোনার আরো গুচ্ছ খবর

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন পেতে অনলাইনে তালিকা চূড়ান্ত পর্যায়ে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা।

শনিবার বিএমএ ভবনে বাংলাদেশ হেলথ রিপোর্টার্স ফোরাম আয়োজিত ‘কোভিড-১৯ টিকা ব্যবস্থাপনা ক্লোন প্রেক্ষাপট বাংলাদেশ’ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। মীরজাদী অনলাইনের মাধ্যমে এ সভায় যুক্ত ছিলেন। সেব্রিনা ফ্লোরা বলেছেন, অ্যাপসের মাধ্যমে নিবন্ধন করে প্রত্যেককে ভ্যাকসিন নিতে হবে। এ অ্যাপস তৈরির কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। অ্যাপসটির মাধ্যমে ভ্যাকসিন গ্রহণের সময় জানিয়ে দেয়া হবে। তিনি আরো বলেন, ভ্যাকসিন কীভাবে দেয়া হবে এবং কারা পাবেন সে বিষয় নিয়ে কাজ চলছে। ভ্যাকসিন দেয়ার পর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হলে কীভাবে ম্যানেজ করা হবে তা নিয়েও কাজ করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের কাছ থেকে করোনা ভ্যাকসিন পেতে ত্রিপক্ষীয় চুক্তি করেছে বাংলাদেশ। প্রথম ধাপে ফেব্রæয়ারিতে ভ্যাকসিন পাওয়ার আশা করছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এরইমধ্যে অক্সফোর্ডের করোনা ভ্যাকসিন ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

দেশে করোনার টিকা সংরক্ষণ বিতরণ ও প্রয়োগের প্রস্তুতি

করোনাভাইরাসের টিকা দেশে আনার পরে তা সংরক্ষণ, বিতরণ ও প্রয়োগের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। এরই মধ্যে মন্ত্রণালয়ে জমা পড়েছে কর্মপরিকল্পনার চূড়ান্ত খসড়া। একই সঙ্গে যেসব প্রতিষ্ঠান বা এলাকায় টিকা দেওয়া হবে, সেগুলো প্রস্তুত করা হচ্ছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে জানানো হয়েছে, ঢাকা এবং সারা দেশে যে স্টোরগুলোতে টিকা সংরক্ষণ করা হবে, সেগুলো প্রস্তুত করা হচ্ছে। টিকা সরবরাহের জন্য যে পরিবহন ব্যবহার করা হবে, সেই পরিবহনও এরই মধ্যে তৈরি হয়েছে।
সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হচ্ছে, এরই মধ্যে দেশের প্রায় পাঁচ কোটি মানুষের জন্য টিকা সংগ্রহের বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছে। এর মধ্যে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি টিকার তিন কোটি ডোজ ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে আনার জন্য চুক্তি করেছে সরকার।
জানা গেছে, সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে বিদ্যমান টিকা সংরক্ষণ ব্যবস্থাকেই কাজে লাগানো হবে করোনার টিকা রাখার জন্য। সেগুলোকে প্রস্তুত করা হচ্ছে। কোভ্যাক্স থেকে আসা টিকার জন্য বিমানবন্দর এলাকায় বিএডিসির হিমাগার ভাড়া নেওয়া হবে। সেরাম থেকে আসা টিকা দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হবে বেক্সিমকোর নিজস্ব পরিবহনে।

করোনা রোধে বাংলাদেশে যেসব চিকিৎসা সামগ্রী পাঠাবে তুরস্ক

বাংলাদেশকে করোনাভাইরাসবিরোধী লড়াইয়ে জরুরি চিকিৎসাসামগ্রী দিয়ে সহায়তা করবে তুরস্ক। মহামারি নির্মূলের বৈশ্বিক প্রচেষ্টায় সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে আরও দুটি দেশ; জর্জিয়া এবং তুর্কি প্রজাতন্ত্রী উত্তর সাইপ্রাসকেও এ সাহায্য পাঠানো হবে। বাংলাদেশে তুরস্কের এ ত্রাণটি আসবে দ্বিপাক্ষিক এক চুক্তির আওতায়। গত বৃহস্পতিবার তুর্কি সরকারের এক প্রজ্ঞাপনে বিষয়টি সম্পর্কে নিশ্চিত করা হয়। এর আগে গেল বছরের ১২ অক্টোবর আঙ্কারায় দুই দেশের মধ্যে চিকিৎসা সরঞ্জাম অনুদান সম্পর্কিত চুক্তিটি হয়, বলে প্রজ্ঞাপনটি উল্লেখ করে। সেখানে বলা হয়, ‘সৌহার্দ্য এবং ভ্রাতৃত্বের নিদর্শন’ হিসেবে তুরস্ক; ২০টি ভেন্টিলেটর, ১০ হাজার গাউন, ১০ হাজার এন-৯৫ মাস্ক, ১০ হাজার প্রটেক্টিভ কাভারঅল, ২ হাজার ফেস শিল্ড এবং ৫ হাজার সুরক্ষা চশমা অনুদান দেবে।
গেল বছরের ৯ অক্টোবর স্বাক্ষরিত একই ধরনের আরেক চুক্তির আওতায় জর্জিয়া পাবে ২০টি ভেন্টিলেটর, ৫০ হাজার ডায়াগনস্টিক কিট, ২ হাজার বাক্স প্লেকুয়েনিল ট্যাবলেট, ৪ হাজার বাক্স ফেভিপিরাভির এবং ২ হাজার বাক্স লাইঞ্জোলিড এবং করোনা চিকিৎসায় ব্যবহৃত আরও বেশকিছু ওষুধপত্র।