পাখির মতো উড়ে সাগর-পাহাড়-সবুজ দেখা

প্রতিনিধি, কক্সবাজার: কক্সবাজার সমুদ্রসৈকতে প্যারাসেলিং এনে দিয়েছে রোমাঞ্চের নতুন অনুভ‚তি। উত্তাল ঢেউ, সবুজ পাহাড়, মেরিন ড্রাইভ; সবকিছুই যেন পাখির মতো উড়ে উড়ে দেখা। দিন দিন যা পর্যটকদের কাছে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। উদ্যোক্তারা চান প্যারাসেইলিংয়ের মাধ্যমে কক্সবাজারকে বিশ্বের কাছে আরও বেশি আকর্ষণীয় করে তুলে ধরতে। বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ঘেঁষে তৈরি করা হয়েছে মেরিন ড্রাইভ। দীর্ঘ ৮০ কি.মি সড়কটিও বিশ্বের দীর্ঘতম মেরিন ড্রাইভের পরিচয় পেয়েছে। কেবল দীর্ঘতম সৈকত বা মেরিন ড্রাইভ নয়; এখানকার পাহাড়-সমুদ্রের অপরূপ মিতালি উপভোগ করতে প্যারাসেলিংয়ে উড়ছেন পর্যটকরা।

সাগরে নীল জলরাশি। উপরে ডাকছে আকাশ। এই নিয়ে রোমাঞ্চকর এক ভ্রমণ। স্পিডবোটের সঙ্গে বেঁধে বিশেষ প্যারাসুটের সাহায্যে আকাশে ঘুরে বেড়ানোর নাম প্যারাসেলিং। সাগর থেকে প্রায় তিন থেকে চারশো ফুট উঁচুতে হাওয়ায় ভেসে সাগর ও পাহাড়ের সৌন্দর্য উপভোগ করে উচ্ছ¡সিত পর্যটকরা। এক পর্যটক বলেন, ‘প্যারাসেলিং কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের প্রতি আকর্ষণ আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। প্যারাসেলিংয়ের কারণে সৌন্দর্যও বৃদ্ধি পেল।’

আরেক পর্যটক বলেন, ‘প্যারাসেলিংয়ের উড়ার মজাটা অন্যরকম। সমুদ্রসৈকতের সৌন্দর্য ভালোভাবে উপভোগ করা যায়।’ মালয়েশিয়ার পেনাং বিচের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে কক্সবাজারে প্রথম প্যারাসেলিং চালু করা হয়েছে বলে জানালেন এই সুপারভাইজার।

কক্সবাজার স্যাটেলাইট ভিশন সী স্পোর্টস সুপারভাইজার আব্দুল খালেক বলেন, ‘এত বিশাল সমুদ্র সৈকত অথচ এখানে কোনো বিনোদন কেন্দ্র নাই। আমরা প্যারাসেলিংয়ের মাধ্যমে বিনোদনের একটা সুযোগ তৈরি করার চেষ্টা করছি।’ বেসরকারি এই উদ্যোক্তা জানালেন, সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেলে প্যারাসেলিংয়ের মাধ্যমে কক্সবাজারের পর্যটনকে বিশ্বের কাছে আরও ভালোভাবে তুলে ধরা সম্ভব।

স্যাটেলাইট ভিশন সি স্পোর্টসের মহাব্যবস্থাপক আনোয়ার হোসাইন নয়ন বলেন, ‘প্যারাসেইলিংয়ের পাশাপাশি আমাদের আরও অনেক চিন্তাভাবনা রয়েছে। পর্যটকদের কক্সবাজারের প্রতি আরও কিভাবে আকর্ষণ করা যায়। সেক্ষেত্রে যদি সরকারীভাবে কোন সাহায্য পাওয়া যেত আমরা আরও বেশি উপকৃত হতাম।’ সৈকতের দরিয়ানগর ও হিমছড়ি সৈকতে অবস্থিত এ প্যারাসেইলিং। আবহাওয়ার ওপর নির্ভর করে যা করা যাবে সকাল ১০টা থেকে ৫টা পর্যন্ত।