প্রয়োজনে ভারতের পাশাপাশি বিকল্প উৎস থেকে করোনা প্রতিরোধে ভ্যাকসিন আমদানী করতে হবে : জিএম কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক : জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা জনবন্ধু গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি বলেছেন, প্রয়োজনে ভারতের পাশাপাশি বিকল্প উৎস থেকে করোনা প্রতিরোধে ভ্যাকসিন আমদানী করতে হবে। তিনি বলেন, ১৬ থেকে ১৮ কোটি মানুষের জন্য ভ্যাকসিন নিশ্চিত করতে বিকল্প উৎসের সাথে সরকারিভাবেই যোগাযোগ থাকতে হবে। তিনি প্রতিটি মানুষের জন্য বিনামূল্যে ভ্যাকসিন দেয়ার দাবিও জানান। এছাড়া ভ্যাকসিন সংরক্ষণ, পরিবহন ও বিতরণে এখনই কার্যকর উদ্যোগ নিতে সরকারকে পরামর্শ দেন। বলেন, কোটি কোটি মানুষকে টিকা দেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় লোকবলকে এখনই প্রশিক্ষণ দিতে হবে।

আজ দুপুরে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান-এর বনানী কার্যালয়ে জাতীয় পার্টি নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর এবং মুন্সিগঞ্জ জেলার সাংগঠনিক সভার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান একথা বলেন।
জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং ঢাকা বিভাগীয় অতিরিক্ত মহাসচিব লিয়াকত হোসেন খোকা এমপির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সাংগঠনিক সভায় গোলাম মোহাম্মদ কাদের আরো বলেন, প্রতিটি সরাকারি হাসপাতালে করোনার উন্নত চিকিৎসা নিশ্চিত করতে হবে। এখন শুধু বেসরকারি হাসপাতালে করোনার উন্নত চিকিৎসা আছে, যা অত্যন্ত ব্যয়বহুল। আবার বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিতেও তদবির করতে হচ্ছে। এ কারণেই উপজেলা, জেলা ও বিভাগীয় শহরের হাসপাতালগুলোতে করোনা সুচিকিৎসা জরুরি হয়ে পড়েছে। মানুষ যেন সবচেয়ে কাছের হাসপাতালে করোনার উন্নত চিকিৎসা পায় তা নিশ্চিত করতে হবে।
জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জনবন্ধু গোলাম মোহাম্মদ কাদের এসময় আরো বলেন, জাতীয় পার্টি আগামী দিনে একমাত্র সম্ভাবনাময় রাজনৈতিক শক্তি। কারণ, বিএনপি নেত্রী মুচলেকা দিয়ে মুক্তি পেয়েছেন, তিনি রাজনীতির বাইরে আছেন। আবার তাদের আরেক শীর্ষ নেতা দেশের বাইরে, দলে তার গ্রহণযোগ্যতা নেই। বিএনপির রাজনৈতিক নেতৃত্বে শুণ্যতা সৃষ্টি হয়েছে। আবার আওয়ামী লীগের অন্তর্দন্ত প্রকাশ্যে চলে এসেছে। ঢাকার সাবেক এক মেয়র বর্তমান মেয়রকে দুর্নীতিবাজ ও অযোগ্য ঘোষণা করেছেন প্রকাশ্যে। আওয়ামী লীগের এক শীর্ষ নেতার ভাই যে বক্তব্য দিয়েছেন তাতে দেশের মানুষ বুঝতে পেরেছে তাদের বর্তমান অবস্থা। এমন বাস্তবতায় দেশের মানুষ জাতীয় পার্টির দিকে তাকিয়ে আছেন। তারা জাতীয় পার্টিকে রাষ্ট্র ক্ষমতায় দেখতে চান। ক্ষুধা, দারিদ্র, শোষণ, বঞ্চনা, দুর্নীতি ও বেকারত্বমুক্ত নতুন বাংলাদেশ গড়তেই জাতীয় পার্টির রাজনীতি।
জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জনবন্ধু গোলাম মোহাম্মদ কাদের আরো বলেন, দেশে নাকি মাথাপিছু আয় বেড়েছে, আসলে বৈষম্য বেড়েছে। কিছু মানুষ লুটপাট করে টাকার পাহাড় জমিয়েছে। তাদের টাকা দেশে রাখার জায়গা নেই, এখন বিদেশ পাচার করছে। বিদেশে বেগম পাড়া হচ্ছে দেশের টাকা পাচার করে। তাই মাথা পিছু আয় বেড়েছে কিন্তু তাতে দেশের মানুষের মঙ্গল হয়নি। করোনার আগে দেশে সাড়ে ৪ থেকে ৫ কোটি বেকার ছিলো, এখন বেকার বা আধা বেকারের সংখ্যা কেউ জানেনা।
জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ বলেন, পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ আদালতের রায়ে বৈধ সরকারের প্রধান হিসেবেই সাংবিধানিকভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করেছেন। তাই একটি বৈধ সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন কখনোই বৈধ হতে পারেনা। তিনি বলেন, পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ গণতন্ত্রমনা ছিলেন তাই তিন জোটের রুপরেখা অনুযায়ী সাংবিধানিকভাবে ক্ষমতা হস্থান্তর করে নির্বাচনে গিয়েছিলেন। কিন্তু নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রতি অবিচার করেছিলো তৎকালীন তত্বাবধায়ক সরকার। তারা পল্লীবন্ধু ও দেশের মানুষের সাথে প্রতারণা করেছিলো। কিন্তু মানুষের ভালোবাসায় পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ জেলে থেকে নির্বাচনে দুই বার পাঁচটি করে আসনে জয়ী হয়েছেন। তিনি জননন্দিত নেতা হিসেবে সমাদৃত ছিলেন। ৯ বছর সাফল্যের সাথে দেশ পরিচালনা করেছেন আবার রাষ্ট্র ক্ষমতার বাইরে থেকে দীর্ঘ সাতাশ বছর মানুষের আস্থা ও ভালোবাসায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। গণতন্ত্র সমুন্নত রাখতে আজীবন কাজ করেছেন পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ।
জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান বলেন, ৯১ সালের পর আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সংসদীয় সরকার পদ্ধতি প্রবর্তন করেছে। কিন্তু সংবিধানে ৭০ ধারা যোগ করে সংসদীয় একনায়কন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছে, যাকে স্বৈরতন্ত্র বলা যায়। এতে সরকারের ক্ষমতা নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়েছে, জাবাবদিহিতা নেই বললেই চলে। তাই দুর্নীতি ও দলীয়করণের কারণে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতা-কর্মীরা আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়েছে। তিনি বলেন, পল্লীবন্ধু এসিড সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে ফাঁসির রায় কার্যকর করে এসিড সন্ত্রাস বন্ধ করতে সমর্থ হয়েছিলেন। কারন, তখন আইনের শাসন ছিলো। কিন্তু আমরা ধর্ষণের বিরুদ্ধে ফাঁসির দন্ড রেখে আইন করতে বলেছিলাম। সরকার ফাঁসির বিধান রেখে আইন করেছে কিন্তু ধর্ষণ বন্ধ হচ্ছেনা। এতে প্রমাণ হয়, দেশে আইনের শাসনে ফাঁক রয়েছে। ধর্ষণ কমছে না কারণ, সবার জন্য আইন সমানভাবে প্রযোজ্য হয়না।
জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান এসময় জাতীয় পার্টির নির্বাহী সদস্য বাহাদুর ইসলাম ইমতিয়াজ এর রোগমুক্তি কামনা করেন।
এসময় জাতীয় পার্টি মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু বলেন, বর্তমান সরকার এক সময় বলেছে বাংলাদেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পন্ন, বাংলাদেশ খাদ্য রফতানী করেছে। কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে বাংলাদেশ বিভিন্ন দেশ থেকে খাদ্য আমদানী করছে। এতে প্রমাণ হয়ে, সরকার যা বলে তার সাথে বাস্তবতার মিল নেই। তিনি বলেন, সরকার পদ্মাসেতু নির্মাণ করেছে কিন্তু মানুষের মনে স্বস্তি নেই। মানুষের জীবনের নিরাপত্তা নেই। নারীর সম্ভ্রমের নিরাপত্তা নেই। আইনের শাসন ও সুশাসন না থাকলে পদ্মাসেতু পাড়ি দিয়ে ১০টি হোন্ডা আর ২০টি গুন্ডা মানুষের জীবন বিপন্ন করে তুলবে। দেশের মানুষ এমন উন্নয়ন চায়না। দেশের মানুষ চায় জীবনের নিরাপত্তা, স্বাভাবিক জীবনের নিশ্চয়তা। তিনি বলেন, ছাত্রদল-ছাত্রলীগ, যুবদল-যুবলীগের সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজীর বিরুদ্ধে দেশের মানুষ বিরক্ত। পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এর উন্নয়ন ও সুশাসনে ফিরে যেতে চায় দেশের মানুষ।
এসময় আরো বক্তৃতা করেন প্রেসিডিয়াম সদস্য এডভোকেট শেখ মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম, চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জামাল উদ্দিন, ভাইস চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান খান, যুগ্ম মহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ রাজু, মোঃ নোমান মিয়া, জেলা নেতা সানাউল্লাহ সানু, মিজানুর রহমান মিরু, আব্দুল বাতেন, আফজাল হোসেন।
উপস্থিত ছিলেন- প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভরায়, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও চেয়ারম্যানের বিশেষ সহকারী মীর আব্দুস সবুর আসুদ, এডভোকেট মোঃ রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, ভাইস চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান শফিক, যুগ্ম মহাসচিব মোঃ বেলাল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ হেলাল উদ্দিন, এনাম জয়নাল আবেদীন, হুমায়ুন খান, সাইফুল ইসলাম, সৈয়দ ইফতেকার আহসান হাসান। সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য মাসুদুর রহমান মাসুম, সুলতান আহমেদ, এম.এ. রাজ্জাক খান, মাহমুদ আলম, সমরেশ মন্ডল, মোঃ আনোয়ার হোসেন, আবু নাঈম ইকবাল, আক্তারুজ্জামান খান ।