তানিয়া ১৭ বছর পর খুঁজে পেলো পরিবারকে

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচার:

প্রতিনিধি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া: প্রায় ১৭ বছর আগে তানিয়াকে নিয়ে রাজধানী ঢাকায় বাবা সুন্দর আলী এক আত্মীয়র বাড়িতে বেড়াতে নিয়ে যায়। তখন তানিয়ার বয়স ছিল ৬ বছর। তানিয়াকে ঢাকায় রেখে গ্রামের বাড়ি চলে যায় বাবা সুন্দর আলী।

পরে জানতে পারেন, বাবার পিছু পিছু তানিয়াও সেদিন বাসা থেকে বেরিয়ে যায়। এরপর অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তানিয়ার খোঁজ পাওয়া যায়নি। দীর্ঘ ১৭ বছর পর সেই ছয় বছর বয়সে হারিয়ে যাওয়া তানিয়া ফেইসবুকের কল্যাণে পরিবারের কাছে ফিরলেন।

তানিয়ার বাবা সুন্দর আলী জানান, ১৭ বছর আগে ঢাকা থেকে নিখোঁজ হন তানিয়া আক্তার। পরিবারের সদস্যরা তাকে কোথাও খুঁজে পাচ্ছিলেন না। মেয়েকে হারিয়ে যন্ত্রণাময় দিন কাটছিল বাবা সুন্দর আলী ও নিখোঁজ তানিয়ার পরিবারের। অবশেষে সন্ধান মিলেছে তানিয়ার।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেইসবুকের কল্যাণে রোববার (১০ জানুয়ারি) পরিবার ফিরে পেয়েছে গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়া উপজেলার এই তরুণী। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার শান্তিনগর এলাকায় বসবাস করা মেয়ে তানিয়াকে নিতে আসেন বাবা সুন্দর আলীসহ পরিবারের সদস্যরা।

এ নিয়ে বিভিন্ন সংবাদপত্রে নিখোঁজ বিজ্ঞপ্তি ছাপানো হয়। তারপরেও সন্ধান পাওয়া যায়নি তানিয়ার। কিছুদিন আগে ফেইসবুকে তানিয়ার ছবিসহ হারিয়ে যাওয়ার সংবাদ দেখে তানিয়ার খোঁজ পায় তার পরিবার।

তানিয়ার বাবা বলেন, ‘ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার রাইতলা গ্রামের রিপন মিয়া আমার মেয়েকে লালন-পালন করেছেন এবং ভালো পাত্র দেখে বিয়েও দিয়েছেন। আমি এবং আমার পরিবার তাঁর প্রতি চিরকৃতজ্ঞ।

এদিকে তানিয়া আক্তার বলেন, ‘আমি আমার পরিবারকে হারিয়ে ফেলার পর বাবা রিপন মিয়া আমাকে লালন-পালন করেছেন। আমি আমার পরিবারকে খুঁজে পেতে অনেক চেষ্টা করেও পাইনি। এখন পরিবারকে ফিরে পেয়ে আনন্দিত।’