হোয়াটসঅ্যাপের পরিবর্তে ভাইবার ব্যবহারের আহ্বান

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ডেস্ক : হোয়াটসঅ্যাপের প্রাইভেসি–বিষয়ক নীতিমালা ও ব্যবহারের শর্ত পরিবর্তন নিয়ে বিশ্বজুড়ে গত বেশ কয়েকদিন ধরে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে। ফেসবুকের মালিকানাধীন এই অ্যাপের নতুন পদক্ষেপ অনেককেই খেপিয়ে দিয়েছে। তাদের মধ্যে রয়েছেন স্পেসএক্স ও টেসলার প্রতিষ্ঠাতা ইলন মাস্ক। কিছুদিন আগে তিনি ব্যবহারকারীদের আরো প্রাইভেসি সুবিধাযুক্ত মেসেজিং সেবা ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছেন।

আর এবার জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপ ভাইবার হোয়াটসঅ্যাপের সর্বশেষ গোপনীয়তা সংক্রান্ত আপডেট নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। আগে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীরা তাদের ফোন নম্বর ফেসবুকের সঙ্গে শেয়ার করবে কিনা তা নির্বাচন করার সুযোগ পেত। কিন্তু আগামী মাস থেকে এটি ব্যবহারকারীদের জন্য বাধ্যতামূলক করা হবে। ব্যবহারকারীদের অবশ্যই ৩০ দিনের মধ্যে নতুন শর্তাদিতে সম্মতি প্রদান করতে হবে, অন্যথায় তারা তাদের অ্যাকাউন্ট আর ব্যবহার করতে পারবেন না বলে শর্ত দিয়েছে হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষ।

এ প্রসঙ্গে ভাইবারের প্রধান নির্বাহী জ্যামেল আগাওয়া বলেন, ‘হোয়াটসঅ্যাপের গোপনীয়তা সংক্রান্ত নীতিমালায় সাম্প্রতিক আপত্তিকর আপডেটটি গোপনীয়তার মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কে একটি হাস্যকর বিষয়ে পরিণত করেছে। হোয়াটসঅ্যাপের কাছে ব্যবহারকারীদের গোপনীয়তা কতটা অর্থহীন আপডেটটি কেবল তাই প্রদর্শন করে না, এটি ব্যবহারকারীদের তথ্য অবমাননার ক্ষেত্রে একটি নতুন রেকর্ড বলা যায় এবং নিঃসন্দেহে ভবিষ্যতে এই রেকর্ড আরও ভাঙতে থাকবে। আজ আমি ভাইবারের গোপনীয়তা সংক্রান্ত নীতিমালা নিয়ে সবচেয়ে বেশি গর্ববোধ করছি এবং যেসকল নারী-পুরুষ নিজেদের সর্বাধিক নিলামকারীর কাছে বিক্রিযোগ্য তথ্যের চেয়ে বেশি কিছু মনে করেন, তাদের সকলকে মেসেজিং ও কল করার ক্ষেত্রে ভাইবার ব্যবহারের আহ্বান জানাচ্ছি।’

ভাইবার জানিয়েছে, তথ্য সংক্রান্ত গোপনীয়তা নিয়ে হোয়াটসঅ্যাপের এই অনিশ্চয়তাপূর্ণ নীতির সম্পূর্ণ বিপরীতে ভাইবার অনন্য। ব্যবহারকারীদের তথ্যের নিরাপত্তা ও সুরক্ষা সুনিশ্চিত করতে ভাইবারে কিছু গুরুত্বপূর্ণ ফিচার রয়েছে। এই ফিচারগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- বিনামূল্যে ব্যক্তিগত কল এবং চ্যাটের জন্য ডিফল্টস্বরূপ এন্ড-টু-এন্ড এনক্রিপশন, যেখানে বিশেষ কোনো সেটিংসের প্রয়োজন নেই। ভাইবারে অংশগ্রহণকারী ব্যতীত ভাইবার নিজেও কোনো ব্যবহারকারীর কল এবং চ্যাট অ্যাকসেস করতে পারবে না।

প্রেরিত কোনো মেসেজ ভাইবার সংরক্ষণ করে না এবং ক্লাউড ব্যাকআপ ডিফল্টভাবে বন্ধ থাকে। যেসব ব্যবহারকারীরা তাদের বার্তা ব্যাকআপ রাখতে চান, তারা চাইলে ক্লাউড ব্যাকআপ সক্রিয় করতে পারেন। ভাইবার ব্যবহারকারীদের মেসেজ এবং কলের কোনো অনুলিপি রাখে না। এছাড়া এই মেসেজিং অ্যাপে সেলফ-ডেস্ট্রাক্টিং বার্তা পাঠানোর সুযোগ রয়েছে। পাশাপাশি, বার্তা আদান-প্রদানের সময় ব্যবহারকারীরা চাইলেই পুরো কথোপকথনটি গোপন করতে পারবেন, যা শুধুমাত্র পিন কোডের মাধ্যমেই দেখা যাবে। ভাইবারে ব্যবহারকারীর তথ্য কখনো ফেসবুকের সঙ্গে শেয়ার করা হয় না। কেননা ফেসবুকের সঙ্গে সমস্ত ব্যবসায়িক সম্পর্ক ছিন্ন করেছে ভাইবার।