লালমনিরহাটে তরুণীকে গণধর্ষণের অভিযোগে দুই ধর্ষক আটক

এম এ মান্নান, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: লালমনিরহাট সদর উপজলার গোকুন্ডা ইউনিয়নের পুর্ব দালালটারী এলাকায় এক ষোড়সী কন্যাকে গণধর্ষণের অভিযাগে দুই ধর্ষককে আটক করেছে লালমনিরহাট সদর থানা পুলিশ। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে লালমনিরহাট সদর উপজেলার গোকুন্ডা ইউনিয়নের পূর্ব দালালপাড়া তিস্তা টোলপ্লাজা সংলগ্ন আফজালনগর এলাকায় রিপনের গুদাম ঘরে এ ঘটনা ঘটেছে।

পুলিশ, জানায়, ওই কিশোরীকে নির্মল চন্দ্র রায় তিস্তা ব্রীজ দেখানোর কথা বলে মোবাইলে ডেকে আনেন। ওই কিশোরী নির্মল চদ্র রায়ের প্রতিবেশি। আটককৃতরা হলেন- কুড়িগ্রাম জেলার রাজারহাট উপজেলার ঘড়িয়ালডাঙা ইউনিয়নের পশ্চিম দেবাত্তর এলাকার ত্রিপদ রায়ের ছেলে রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ী নির্মল চন্দ্র রায় (২৮) ও লালমনিরহাট সদর উপজেলার গোকুন্ডা ইউনিয়নের পূর্ব দালালপাড়া তিস্তা টোলপ্লাজা আফজালনগর এলাকার ট্রাক্টর চালক তৈয়ব আলীর ছেলে আতিকুল ইসলাম (২৫)।

ওসি শাহা আলম জানান, লালমনিরহাট তিস্তা টোলপ্লাজা পুলিশ চেক পোস্টে দায়িত্বরত এস আই নুর আলমকে কুড়িগ্রাম জেলার রাজারহাট উপজেলার ঘড়িয়াল ডাঙা ইউনিয়নের পশ্চিম দেবাত্তর এলাকার এক ষোড়শীকন্যা গণধর্ষণের শিকার হওয়ার কথা জানালে তাৎক্ষণিক ওই পুলিশ অফিসার দুই ধর্ষককে আটক করে এবং ভিকটিমকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিস্তা টোলপ্লাজা আফজালনগর এলাকার সিকদার আলীর ছেলে রিপন (৩৫) নামে এক যুবকের গোডাউনে ওই কিশারীকে ডেকে নিয়ে গণর্ধষণ করে নির্মল ও তার বন্ধু আতিকুল ইসলাম।

এসময় ওই গোডাউন ঘরের মালিক ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল বলে জানা গেছে।

লালমনিরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এ সার্কেল) মারুফা জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘আমি ভিকটিমের সাথে কথা বলেছি। তাকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এ জঘন্য ঘটনায় জড়িত প্রত্যেককেই আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।

লালমনিরহাট সদর থানার ওসি শাহা আলম জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধায় আটক দু’জনের বিরুদ্ধে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করা হয়েছে।