নবগঠিত ভাসানচর থানা উদ্বোধন করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

বিশেষ প্রতিবেদক : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান আজ মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) ভাসানচর আশ্রয়ণ প্রকল্প-৩ পরিদর্শন করেছেন। এসময় মন্ত্রী নবগঠিত ভাসানচর থানা উদ্বোধন করেন।

ভাসানচর থানা উদ্বোধন এবং আশ্রয়ণ প্রকল্প পরিদর্শন শেষে কক্সবাজারের উখিয়া কুতুপালং ক্যাম্প পরিদর্শন করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। সেখানে মন্ত্রী রোহিঙ্গা মাঝিদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন এবং তাদের বিভিন্ন কথা শোনেন।

এসময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিক ঔদার্যে মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয় দেয়া হয়েছে। রোহিঙ্গারা যাতে শিগগিরই তাদের নিজ দেশে টেকসই প্রত্যাবর্তন করতে পারে সেজন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আশা করছি— রোহিঙ্গারা শিগগিরই তাদের নিজ দেশে ফিরে যেতে পারবে। ফিরে যাওয়ার আগে যতদিন আপনারা (রোহিঙ্গাদের উদ্দেশ্য) বাংলাদেশে অবস্থান করবেন ততদিন বাংলাদেশের আইন মেনে চলতে হবে। আইন মেনে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রেখে বাংলাদেশে অবস্থান করবেন।

মন্ত্রী আরও বলেন, বাংলাদেশে আমরা কোনো চাঁদাবাজ, মাদক কারবারি রাখব না। কোনো সন্ত্রাসী বাহিনীকে আশ্রয় দেয়া হবে না। আপনারা সন্ত্রাসী, মাদক কারবারি ও অভ্যন্তরীণ গ্রুপ সৃষ্টিকারীদের সম্পর্কে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে অবহিত করবেন।

জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তাফা কামাল উদ্দীন বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে সম্মানজনক প্রত্যাবাসনের জন্য আমরা কাজ করছি।’

রোহিঙ্গাদের উদ্দেশ্যে আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘আপনারা নিজ দেশে না ফেরা পর্যন্ত বাংলাদেশে অবস্থানকালে এ দেশের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকবেন, আইন মেনে চলবেন। ক্যাম্পে অবস্থানকালে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখবেন।’

আইজিপি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশ পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী অন্যান্য বাহিনীর সদস্যরা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আপনাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছে।’

এসময় অন্যাদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব মো. শহিদুজ্জামান, শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার, চট্টগ্রামের ডিআইজি প্রমূখ।

পরে রাত সাড়ে ৮টার দিকে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে বলপ্রয়োগে বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকদের সমন্বয়, ব্যবস্থাপনা ও আইনশৃঙ্খলা সম্পর্কিত নির্বাহী কমিটির সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় অংশ নেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান।