এবছরেও ‘বিশ্ব ভালোবাসা দিবস’ পালন করবে জুম বাংলাদেশ

জুম বাংলা ইয়ুথ ফাউন্ডেশনের আয়োজনে "বিশ্ব ভালোবাসা দিবস" উৎযাপন -ফাইল ছবি

শাবনাজ আক্তার শাহানা: দুনিয়াজুড়ে কত আনুষ্ঠানিকতাই না হয় ভালোবাসা দিবসে। ‘ভালবাসা শুধু একটি বিশেষ দিনের মধ্যেই কিংবা বিশেষ কিছু শ্রেণির মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, ভালোবাসা সর্বজনীন’ – এটাই এই ইভেন্টের মূল প্রতিপাদ্য। জীবের প্রতি মানুষের ভালবাসা, মমত্ববোধ এবং সহমর্মিতা থাকবে চিরকাল।

বিভিন্ন পেশাজীবী মানুষ, যারা ছিলেন প্রথম সারির কোভিড যোদ্ধা এবং যাদের পরিশ্রম, ত্যাগ এবং ভালোবাসায় সুন্দর থেকে সুন্দরতম হচ্ছে আমাদের জীবন, তাদেরকে ভালোবাসা দিবসের শুভেচ্ছা জানানোর জন্যই মুলত জুম বাংলা ইয়ুথ ফাউন্ডেশন আয়োজন করেছে “বিশ্ব ভালোবাসা দিবস-২০২১”।

”লাভ ফর অল”স্লোগান সামনে রেখে ৫ম বারের মত ‘বিশ্ব ভালোবাসা দিবস’ পালন করতে যাচ্ছে জুম বাংলাদেশ নামের সংগঠনটি।

সংগঠনের কর্মকর্তা মনে করেন, ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। আর বিশেষ এই দিনকে কেন্দ্র করে জুম বাংলা ইয়ুথ ফাউন্ডেশন প্রতি বছর ব্যতিক্রমধর্মী এক ইভেন্টের আয়োজন করে থাকে।

দিবসটি উপলক্ষে সংগঠনের পক্ষ ”লাভ ফর অল” ইভেন্টে রেজিস্ট্রেশন করার আহবান জানিয়েছেন। তাদের রেজিস্ট্রেশন ফি নির্ধারণ করেছেন ১৫০/= টাকা মাত্র। যে কেউ ০১৭৫৭৮৯৭০৯৯ (বিকাশ পার্সোনাল) এই নাম্বারে রেজিষ্ট্রেশন ফি পরিশোধ করে ফর্ম পুরন করতে পারেন। বিস্তারিত জানতে ও রেজিষ্ট্রেশনের জন্য সংগঠনের পক্ষ থেকে Registration Form: https://forms.gle/8ZYLTNPFGo8F8iKm8 লিংকটি সংযুক্ত করেছেন।

এছাড়া ফর্ম পুরন হলে নিচে দেওয়া নাম্বারে ফোন দিয়ে কনফার্মেশন এস এম এস সংগ্রহ করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। যেসব নাম্বারে এস এম এস সংগ্রহ করা যাবে;

সেগুলো হচ্ছে জেলা সমন্বয়ক ঢাকা: Mijan-01757897099, গাইবান্ধা: Mehedi-01767140114, চট্টগ্রাম: Rashed-0174599107, নোয়াখালী: Sumu-01533557083, নারায়ণগঞ্জ: Rajeb-01719104922, যশোর: সরদার ফরিদ আহমেদ-01711663191.

যে ভাবে এসেছে বিশ্ব ভালোবাসা দিবসটি?
ইউনিভার্সিটি অব কলোরাডো বুল্ডারের অধ্যাপক নোয়েল লেনস্কির বলেছেন, প্রায় দুই হাজার বছর আগে তৎকালীন রোমান সাম্রাজ্যে ভালোবাসা দিবস উদ্‌যাপন শুরু হয়। সে সময় ভালোবাসা আর প্রাচুর্যের আশায় ৩ থেকে ৫ ফেব্রুয়ারি পালিত হতো লুপারক্যালিয়া নামে এক উৎসব। তবে সে উদ্‌যাপনের সংস্কৃতিতে ভালোবাসার লেশমাত্র ছিল না, ছিল আদিম বর্বরতা।

ভালোবাসা দিবসের নামকরণ ‘ভ্যালেন্টাইনস ডে’ হওয়ার ক্ষেত্রে রোমানদের ভূমিকা রয়েছে। ২৭০ সালের কোনো এক সময় রোমান সম্রাট দ্বিতীয় ক্লদিয়াস সাম্রাজ্যের তরুণদের বিয়ে না করার নির্দেশ দেন। কিন্তু সম্রাটের আদেশ অমান্য করে ভালোবাসার বাণী প্রচার শুরু করেন ভ্যালেন্টাইন নামে এক সাধু। সম্রাটের নির্দেশ অমান্যের শাস্তিস্বরূপ সাধু ভ্যালেন্টাইনকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়।

পঞ্চম শতাব্দীর মাঝামাঝি, পোপ গেলাসিয়াস রোমানদের বর্বর উৎসবের ইতি টানা এবং সাধু ভ্যালেন্টাইনের আত্মত্যাগকে স্মরণীয় করার উদ্দেশ্যেই ফেব্রুয়ারি মাসের ১৪ তারিখকে ভালোবাসা দিবস ঘোষণা করেন। বিশ্বব্যাপী খ্রিষ্টধর্মাবলম্বীদের মধ্যে যা দ্রুতই জনপ্রিয় হয়ে ওঠে।

অবশ্য বর্তমান যুগে ভালোবাসা দিবসকে সাধারণ মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়ার কৃতিত্বটা শুভেচ্ছা কার্ড তৈরিকারী প্রতিষ্ঠান হলমার্কের। ১৯১৩ সাল থেকে হলমার্ক যখন ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে হাজার হাজার কার্ড তৈরি শুরু করে, মূলত তখন থেকেই দিবসটির কথা ব্যাপকভাবে প্রচার পায় এবং ছড়িয়ে পড়ে বিশ্বের প্রতিটি দেশে।