ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে কেঁচো সার উৎপাদনে আবুল হাসেমের সাফল্য

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি: ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার টাঙ্গাব ইউনিয়নের টাঙ্গাব গ্রামের বাসিন্দা সাবেক মেম্বার আবুল হাসেম কেঁচো সার উৎপাদন করে আশার আলো দেখছেন। নিজে কেঁচো সার ব্যবহারের পাশাপাশি বিক্রি করে পরিবারে স্বচ্ছলতা ফিরিয়ে এনেছেন।

বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, বাড়ির সামনের একটি শেড ঘরে কম্পোস্ট সার তৈরি করছেন।তিনি ২০১৭ সালে কেঁচো সার উৎপাদন শুরু করেন সিমেন্টের তৈরি ২০টি চারি দিয়ে।বর্তমানে চারির সংখ্যা ২০৮টি। সার উৎপাদনের মিনি কারখানায় প্রতি মাসে প্রায় তিন টন কেঁচো সার উৎপাদন করে। প্রতি টন বিক্রি হয় ১৪ থেকে ১৫ হাজার টাকায়।

সেই হিসেবে তিনি প্রতি মাসে ৪২ থেকে ৪৫ হাজার টাকার সার বিক্রি করেন। খরচ বাদে বছরে আয় করছেন অন্তত সাড়ে তিন লাখ টাকা। কেঁচো সার উৎপাদন শুরুর পর আর পেছনে তাকাতে হয়নি তাকে আবুল হাসেমকে। নিজের কৃষি কাজে এই সার ব্যবহারের পাশাপাশি তিনি বানিজ্যিক ভাবেও বিক্রি করে লাভবান। এই উদ্যোগ আবুল হোসেনের জীবনে অভাবনীয় সাফল্য এনেছে দিয়েছে।

আবুল হাসেম বলেন, গোবর, চা পাতা, কচুরিপানা লতা-পাতা ও ডিমের খোসা, হাঁস-মুরগির বিষ্ঠা ও কলাগাছ টুকরা টুকরা করে কেটে মেশানো হয়। সেগুলো চারিতে ভাগ করে রাখা হয়। প্রতিটিতে ছেড়ে দেয়া হয় অন্তত এক হাজার কেঁচো। চটের বস্তা দিয়ে চারি ঢেকে রাখা হয়। এই প্রক্রিয়ায় কেঁচো সার উৎপাদন হতে দুই মাস সময় লাগে।

তিনি আরও বলেন, এই সার ব্যবহার করে তিনি তার মেহগণি গাছের বাগান ও এক একর ১৪ শতাংশ জমিতে ধান চাষ করছেন।
গফরগাঁও উপজেলা কৃষি অফিসার আনোয়ার হোসেন এ প্রসঙ্গে বলেন, টাঙ্গাব গ্রামের কৃষক আবুল হাসেম কেঁচো সারের সফল উদ্যোক্তা। বাণিজ্যিকভাবে কেঁচো সার উৎপাদন করছেন। আবুল হাসেমকে দেখে এখন উপজেলার অকেকেই কেঁচো চাষ করছেন।