মেয়র আবদুল কাদের মির্জা ও সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদলের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

মেয়র আবদুল কাদের মির্জা ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল

মির্জার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ অনেক ত্যাগী নেতাকর্মি বিভিন্ন দলে যোগদান করেছে : বাদল

আমাকে হত্যা করে ভাগনে রাহাতকে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র করা হবে: কাদের মির্জা

বাঙলা প্রতিদিন ডেস্ক: সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদল একে অপরের বিরুদ্ধে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করেছে।

এদিকে, নোয়াখালী প্রতিনিধি জানান: সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা এক ফেইসবুক স্ট্যাটাসে জানিয়েছেন, তাকে হত্যা করে নীল নকশা বাস্তবায়ন করা হবে।

তিনি ওই স্ট্যাটাসে আরো দাবি করেন, তাকে হত্যা করে তার ভাগনে ফখরুল ইসলাম রাহাতকে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র করা হবে।

বুধবার (২৪ মার্চ) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে নিজের ফেইসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে এক স্ট্যাটাসে তিনি এ মন্তব্য গুলো করেন।

ফেইসবুক স্ট্যাটাসে তিনি উল্লেখ করেন, বিশ্বস্ত সূত্রে খবর পাওয়া গেছে। আমাকে হত্যার করে তারা এই নীল নকশা বাস্তবায়ন করবে। গত (২১ মার্চ) তারিখ নোয়াখালী জেলহাজতে কারাবন্দি মিজানুর রহমান বাদলের সঙ্গে একরামুল করিম চৌধুরী ও জেহান দেখা করে একটা নতুন ছক তৈরি করেছে। নোয়াখালী ৫ আসনে শিউলি একরামকে এমপি করবে । কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বর্তমান চেয়ারম্যান জনাব শাহাব উদ্দিন সাহেব পদত্যাগ করে মিজানুর রহমান বাদল কে চেয়ারম্যান করবে। কবিরহাট উপজেলায় সাবাব চৌধুরীর কে উপজেলার চেয়ারম্যান করা হবে ।

কবিরহাট পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে রায়হান বুঝিয়েছে সে মন্ত্রীর লোক। কিন্তু আসলে সে একরামুল করিম চৌধুরীর লোক। তাই রায়হান কবিরহাট পৌরসভা মেয়র থাকবে এবং বসুরহাট পৌরসভায় আমাকে হত্যা করে ফখরুল ইসলাম রাহাত (ভাগনে) কে বসুরহাট পৌর মেয়র করা হবে। এই বিষয়ে মন্ত্রীর স্ত্রী ও নিজাম হাজারীর সঙ্গে ফোন আলাপ করে তারা সিদ্ধান্ত করে। এটাই হচ্ছে তাদের নতুন ছক

এ বিষয়ে কাদের মির্জার সাথে ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তিনি যত টুকু জানতে পেরেছেন, তত টুকুই তিনি ফেইসবুক স্ট্যাটাসে উল্লেখ করেছেন। তিনি জীবনের নিরাপত্তার জন্য থানায় জিডি করবেন। থানা জিডি না নিলে তিনি আদালতের দারস্থ হবেন।

এ বিষয়ে স্বাধীনতা ব্যাংকার্স পরিষদের সদস্য মির্জা বিরোধী বলয়ের অন্যতম নেতা কাদের মির্জার ভাগনে ফখরুল ইসলাম রাহাত জানান, কাদের মির্জার কার বিরুদ্ধে অভিযোগ নেই। সে নিলজ্জ মিথ্যাচার করে, সে মিথ্যাচারের জনকে পরিনত হয়েছে। একজন স্বাভাবিক মানুষ এভাবে করতে এবং বলতে পারে না। তার দ্রুত মানসিক চিকিৎসার প্রয়োজন। কাদের মির্জার দৃষ্টিতে সে এবং তার ছেলে ছাড়া সৎ এবং ভালো মানুষ আর কেউ নেই।

মির্জার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ অনেক ত্যাগী নেতাকর্মি বিভিন্ন দলে যোগদান করেছে: বাদল

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদল বলেছেন, আবদুল কাদের মির্জাকে দুঃসময়ে পাইনি। সে এ কোম্পানীগঞ্জে দলের ভিতর একটা কুলাঙ্গার বলে অভিযোগ তুলেছেন। সে বলেছে সে ৪৭ বছর রাজনীতি করেছে।

এই ৪৭ বছরে উপজেলা আ.লীগ থেকে মেধাবী এবং ত্যাগী ৪৭ হাজার নেতাকর্মি তার যন্ত্রনায় অতিষ্ঠ হয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলে যোগদান করেছে। সেই কুলাঙ্গার ফেসবুক লাইভে এসে আমাকে বলে আমি নাকি নৌকার ভোট করিনি। আমাকে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে দলীয় নমিনেশন দিলে তিনি নাকি সে অত্নহত্যা করবে।

নেতা তখন অসুস্থ ওনার সহধর্মীনি আমাকে ফোন করে সিঙ্গাপুর থেকে বলেছেন, তোমার নেতার সিদ্ধান্ত তুমি যদি মান তুমি একদিন বড় নেতা হবে।

বুধবার রাতে ফেইসবুক লাইভে কাদের মির্জার মিথ্যাচারের প্রতিবাদে তিনি তার ফেইসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে লাইভে এসে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমি আল্লাহকে হাজির নাজির করে বলছি ইসরাতুন্নেছা কাদের কোম্পানীগঞ্জ নিয়ে ১ সেকেন্ডের জন্য মাথা ঘামাননি। ওনার কোন রাজনৈতিক বিলাসিতা নেই।

উনি একটা ভদ্র মহিলা,তাকে কুরুচিপূর্ণ কথা বলে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করছে জনসম্মুখে। ওনার কতটুকু বিবেকবোধ আছে আজকে জনগণের কাছে প্রশ্ন। ওনার বড় ভাই ওনার পিতার সমতুল্য,তাহলে ওনার ভাাবি ওনার মাতার সমতুল্য। সে মাতা তুল্য ভাবিকে কিভাবে নোংরা ভাষায়, আমার মুখ দিয়ে বের করতে আমার বিবেক বাধাগ্রস্থ হয়েছে।

এভাবে নোংরাভাবে কথা বলে হেয় প্রতিপন্ন করছেন। শুধু ওনাকে নয়,ওনি আজকে বঙ্গবন্ধু কন্যাকেও ছাড়েন নাই। পিতৃতুল্য ওবায়দুল কাদের সাহেবকেও ছাড়েন নাই,তার চরিত্র হনন করে যাচ্ছেন। একজন মফস্বল এলাকার ২৭ হাজার মানুষের প্রতিনিধি ৪ লক্ষ মানুষের প্রতিনিধিকে বিষেদাগার করে, এই ক্ষমতাটা তাকে কে দিয়েছে।

আজকে কাদের মির্জা সত্য বচনের নামে সারা বংলাদেশে পাগল হিসেবে অখ্যাহিত হয়েছে। ওনি মানুষের নামকে বিৃতভাবে উপস্থাপন করেন। উনি আজকে বিভিন্ন এমপির বিরুদ্ধে টেন্ডারবাজির কথা বলেন-আজকে কোম্পানীগঞ্জবাসীকে আমি প্রশ্ন রাখতে চাই। বসুরহাট পৌরসভার ১৫ বছর ওনি মেয়র, কোন ব্যাক্তি টেন্ডারে এটেন্ড করতে পারেনি,ওনার নির্দেশ ছাড়া।

তিনি আরো বলেন, কোটি কোটি টাকার টেন্ডার ওনি নিজ হাতে (আবদুল কাদের মির্জা) নিয়ন্ত্রন করতেন। নামে বেনামে লাইসেন্স দিয়ে সকল কাজ করে তিনি কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেন। কোম্পানীগঞ্জের বসুরহাট বাজারে দীঘির পাড়ে পেশী শক্তি দিয়ে একটা মার্কেট নির্মানের করেন। যদিও সেটা বৈধ নয়। সে মার্কেটে ১০০টির উপরে দোকান বরাদ্দ দিয়ে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

আজকে ওনারও সব দরজা বন্ধ হয়ে গেছে,এজন্য ওনি বসুরহাট বাজারের আরেকটি প্রাণকেন্দ্র জিরো পয়েন্টের কাছে মির্জা টাওয়ার নামে নিজ নামে টাওয়ার করছেন। এই বলে সাইনবোর্ড লাগিয়ে কোম্পানীগঞ্জবাসীর থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়ার আরেকটি পাঁয়তারা করছেন। আমি কোম্পানীগঞ্জের ব্যবসায়ীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলব তার এ ফাঁদে পা দিবেন না।

কারণ মির্জা টাওয়ার এখনো স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন পায়নি। ওনার এখন সকল দরজা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে মির্জা টাওয়ারের নামে দোকান বরাদ্দের নামে টাকা হাতিয়ে নিয়ে আমার মনে হয় উনি আমেরিকায় পাড়ি জমানোর প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে। তাই সকলকে অনুরোধ করবো এ মির্জা টাওয়ারে কেউ দোকান বরাদ্দের চেষ্টা করবেন না।

এসময় মিজানুর রহমান বাদল আবদুল কাদের মির্জার বিরুদ্ধে বিভিন্ন ডির্পাটমেন্টে টেন্ডারবাজি সহ বিভিন্ন অভিযোগ উপস্থাপন করে বলেন- যাদের বিরুদ্ধে তিনি বিষেদাগার করেছেন প্রত্যেকটা জায়গায় কোন না কোন অর্থনৈতিক লেনদেনের সর্ম্পক রয়েছে। সে অর্থনৈতিক লেনদেন যাদের সাথে মিলে নাই তাদের বিরুদ্ধে বক্তব্য দিয়েছেন।

নোয়াখালী জেলা আ.লীগের সভাপতির কি প্রশংসাই না ওনি করেছেন। যখনই নোয়াখালী জেলা আ.লীগের সভাপতি উনাকে সঠিকপথে চলার জন্য বলেছেন তখনই উনার বিরুদ্ধে,উনাকে বলে মেরুদন্ডহীন প্রানী।