শোক থেকে শিক্ষা নিয়ে উন্নয়নে অংশগ্রহন করতে হবে: উম্মে কুলসুম স্মৃতি এমপি

সর্বকালের সর্বশেষ্ঠ বাঙালি বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান- ছবি সংগৃহীত

ডেস্ক রিপোর্ট, বাঙলা প্রতিদিন:
‘এসেছে কান্নার দিন, কাঁদো বাঙালি কাঁদো জানি, দীর্ঘদিন কান্নার অধিকারহীন ছিলে তুমি/হে ভাগ্যহত বাংলার মানুষ, আমি জানি/একুশ বছর তুমি কাঁদতে পারােনি। আজ কাঁদো/আজ প্রাণ ভরে কাঁদো, এসেছে কান্নার দিন/দীর্ঘ দুই-দশকের জমানাে শােকের ঋণ/আজ শােধ করাে অনন্ত ক্রন্দনে। কবি নির্মলেন্দু গুণ তাঁর ‘আগস্ট শােকের মাস, কাঁদো’ কবিতাটি লিখেছিলেন শােকাবহ আগস্ট নিয়ে।

বছর ঘুরে আমাদের জীবনে আবারও এসেছে এক গভীর বেদনার মাস, নীরবে কান্নার মাস, তীব্র প্রতিবাদের মাস। বিশ্ব রাজনৈতিক পরিমন্ডলে এই আগস্ট মাসের পৈশাচিক নির্মমতার রাজনৈতিক তাৎপর্যও রয়েছে কেননা পৃথিবীর অন্য কোনাে জাতির ইতিহাসে এমন শােকাবহ আগস্ট আর নেই। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বাঙালির প্রিয় নেতা, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর সহধর্মিণীসহ পরিবারের প্রায় সব সদস্যকেই ঘাতকচক্র নৃশংসভাবে হত্যা করেছিল। এমনকি শিশু রাসেলকেও বর্বর ও নৃশংস হায়েনারা রেহাই দেয়নি। দেশের বাইরে থাকায় সেদিন খুনীদের হাত থেকে বেঁচে গিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী কৃষকরত্ন শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা।

হাজার বছরের শাসন-শােষণ আর পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে মুক্ত করে বাঙালি জাতিকে যিনি স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব এনে দিয়েছেন, এনে দিয়েছেন লাল-সবুজের পতাকা সেই মহান নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে এদেশের ক্ষমতালােভী কিছু মানুষরূপী নরপিশাচ রাতের অন্ধকারে নির্মমভাবে সপরিবারে হত্যা করে সেদিন।

গভীর শ্রদ্ধা ও অবনতচিত্তে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সকল সদস্যকে স্মরণ করছি এবং নির্মম হত্যাকান্ডের নিন্দা ও ঘৃণা জানাচ্ছি। প্রত্যাশা করছি মুজিবশতবর্ষে এই শােককে শক্তিতে পরিণত করার অভয়মন্ত্রে উদ্দীপিত হবাে আমরা সবাই।

আমরা সকলেই জানি, আগস্ট মাসে বাংলাদেশে সংঘটিত হয়েছিলাে ইতিহাসের ভয়াবহতম হত্যাকান্ড ও নারকীয় গ্রেনেড হামলা। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে মানবতার শক্র প্রতিক্রিয়াশীল ঘাতকচক্রের হাতে বাঙালি জাতির মুক্তি আন্দোলনের মহানায়ক, বিশ্বের লাঞ্ছিত-বঞ্চিত-নিপীড়িত মানুষের মহান নেতা, বাংলা ও বাঙালির হাজার বছরের আরাধ্য পুরুষ,। বাঙালির নিরন্তন প্রেরণার চিরন্তন উৎস, স্বাধীন বাংলাদেশ রাষ্ট্রের স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করা হয়।

সেদিন ইতিহাসের নিষ্ঠুরতম এই হত্যাকান্ডে বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী, মহীয়সী নারী বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর একমাত্র ভ্রাতা শেখ আবু নাসের, জাতির পিতার জ্যেষ্ঠ পুত্র বীর মুক্তিযােদ্ধা ক্যাপ্টেন শেখ কামাল, দ্বিতীয় পুত্র বীর মুক্তিযােদ্ধা লেফটেন্যান্ট শেখ জামাল, কনিষ্ঠ পুত্র নিস্পাপ শিশু শেখ রাসেল, নবপরিণীতা পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রােজী জামাল, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক শেখ ফজলুল হক মণি ও তাঁর অন্তঃসত্ত্ব স্ত্রী বেগম আরজু মণি, স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম সংগঠক ও জাতির পিতার ভগ্নিপতি আব্দুর রব সেরনিয়াবাত, তাঁর ছােট মেয়ে বেবী সেরনিয়াবাত, কনিষ্ঠ পুত্র আরিফ সেরনিয়াবাত, দৌহিত্র সুকান্ত আব্দুল্লাহ বাবু, ভাইয়ের ছেলে শহীদ সেরনিয়াবাত, আব্দুল নঈম খান রিন্টু, বঙ্গবন্ধুর প্রধান নিরাপত্তা অফিসার কর্নেল জামিল উদ্দিন আহমেদ ও কর্তব্যরত অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারী নৃশংসভাবে নিহত হন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর সকল অনুভূতি, ত্যাগ, সংগ্রাম, বীরত্বপূর্ণ নেতৃত্ব, অদম্য স্পৃহা, দৃঢ় প্রত্যয়, বাঙালি জাতির প্রতি গভীর ভালােবাসা, মমত্ববােধ, রাজনৈতিক দূরদর্শিতা ও আদর্শের দ্বারা সমগ্র বাঙালি জাতিকে উজ্জীবিত করে স্বাধীনতা অর্জনের চূড়ান্ত আত্মত্যাগে দীক্ষিত করে তুলেছিলেন। ‘৪৮-এর ৪ জানুয়ারি ছাত্রলীগের জন্মলাভ, ৪৮-এর মার্চে উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা ঘােষণার প্রতিবাদে আন্দোলন, ‘৪৯-এর ২৩ জুন আওয়ামী লীগের জন্ম, ‘৫২-এর রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন, ‘৫৪-এর যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, ‘৬২-এর শিক্ষা আন্দোলন, ‘৬৬-এর ৬-দফা, ‘৬৮-এর আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা ও ১১-দফা, ‘৬৯-এর গণ-অভ্যুত্থান, ‘৭০-এর নির্বাচনে আওয়ামী লীগ’-এর নিরঙ্কুশ বিজয়সহ বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ইতিহাস সৃষ্টিকারী নানা ঘটনার মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতির স্বাধীনতা অর্জনের আকাক্সক্ষা চূড়ান্ত লক্ষ্যে এগিয়ে যায়।

১৯৭১ সালের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণে স্বাধীনতা সংগ্রামের অগ্নিশপথে ঐক্যবদ্ধ হয় বাঙালি জাতি। ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘােষণা করলে শুরু হয় সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধ। বঙ্গবন্ধুর কালজয়ী নেতৃত্বে পাকিস্তানি দুঃশাসনের বিরুদ্ধে দীর্ঘ ২৪ বছরের আন্দোলন-সংগ্রামের স্ফুলিঙ্গে উজ্জীবিত ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে অর্জিত হয় বাংলাদেশের স্বাধীনতা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালির স্বাধীনতা ও মুক্তির প্রতীক। তিনি বাংলার মাটি ও মানুষের পরম আত্মীয়, শত বছরের ঘাের নিশীথিণীর তিমির বিদারী অরুণ, ইতিহাসের বিস্ময়কর নেতৃত্বের কালজয়ী স্রষ্টা, বাংলার ইতিহাসের মহানায়ক, স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা, স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা। বাঙালি জাতির পিতা, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি। উন্নত সমৃদ্ধ সােনার বাংলার স্বপ্ন সারথী।

এখানে উল্লেখ্য ‘৭৫-এর ১৫ আগস্ট নরপিশাচরূপি খুনিরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করেই ক্ষান্ত হয়নি, বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার প্রক্রিয়া বন্ধ করতে ঘৃণ্য ইনডেমনিটি আইন জারি করে। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট থেকে দীর্ঘ ২১ বছর বাঙালি জাতি বিচারহীনতার কলঙ্ককের বােঝা বহন করতে বাধ্য হয়। জাতির পিতার সুযােগ্যকন্যা দেশরত্ন জননেত্রী কৃষকত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গঠিত সরকার বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচারের কাঠগড়ায়। দাঁড় করিয়ে নিয়মতান্ত্রিক বিচারিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ২০১০ সালে ঘাতকদের ফাঁসির রায় কার্যকর করার মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করে। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, বাংলার মাটিতে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হবেই।

বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর হত্যাকারী কর্নেল ফারুক ও কর্নেল রশিদ বিবিসিতে একটি ইন্টারভিউ দিয়েছিলাে। সেখানে তারা স্পষ্ট বলেছিলাে, তাদের সঙ্গে জিয়াউর রহমান জড়িত এবং খুনি জিয়ার মদদেই এই ঘটনা ঘটাতে সক্ষম হয়েছিল তারা। এটা প্রমাণিতও হয় তখন, কেননা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর মানা হয়নি সংবিধান। নিয়মানুযায়ী ভাইস প্রেসিডেন্ট সৈয়দ নজরুল ইসলামকে রাষ্ট্রপতি না করে রাষ্ট্রপতি ঘােষণা করা হয় খন্দকার মােশতাককে,আর খন্দকার মােশতাক রাষ্ট্রপতি হয়েই জিয়াকে বানায় সেনাবাহিনীর প্রধান।

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরিকল্পনার অংশ হিসেবে জিয়ার সঙ্গে দেখা করে মেজর ফারুক। ১৯৭৬ সালের ২ আগস্ট যুক্তরাজ্যের আই টিভিতে প্রচারিত গ্রানাড়া টেলিভিশনের ‘ওয়ার্ল্ড ইন অ্যাকশন’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে এ্যান্থনী ম্যাসকারেনহাসকে দেওয়া সাক্ষাঙ্কারে মেজর ফারুক বলেছিলেন, “প্রথমেই আমরা জেনারেল জিয়াকে উপযুক্ত ব্যক্তি বলে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি। ১৯৭৫ সালের ২০ মার্চ সন্ধ্যাবেলা তার সাথে সাক্ষাতের ব্যবস্থা করি। জেনারেল জিয়া বলেন, আমি একজন সিনিয়র অফিসার; আমি এ ধরনের ব্যাপারে জড়িত হতে পারি না। তােমরা জুনিয়র অফিসাররা যদি এটা করতে চাও, তাহলে এগিয়ে যাও।”

ফারুকের ভাষ্যমতে, “আসলে কথাবার্তার একপর্যায়ে আমরা বলাবলি করছিলাম যে দুর্নীতি ছড়িয়ে পড়েছে। কোনাে কিছু ঠিকমতাে চলছে না। দেশে একটা পরিবর্তন দরকার…’ “ঠিক, ঠিক, চলাে আমরা বাইরে যাই লনে গিয়ে কথা বলি।” বলেন জিয়া।

লনে আসার পর ফারুক সরাসরি আসল কথায় এলেন। তিনি বললেন, “আমরা পেশাদার সৈনিক। আমরা দেশের সেবা করি, কোনাে ব্যক্তির নয়। সেনাবাহিনী, বেসামরিক প্রশাসন, সরকার-সব নর্দমায় ডুবতে বসেছে। আমাদের এটা পরিবর্তন করতে হবে। আমরা কনিষ্ঠ সেনা কর্মকর্তারা একটা পরিকল্পনা করেছি। আমরা আপনার সমর্থন চাই, আপনার নেতৃত্ব

—“আমি দুঃখিত, আমি এ রকম কোনাে কিছুতে জড়িত হতে চাই না,” জিয়া উত্তর দেন। “তােমরা
যদি কিছু করতে চাও, তাহলে সেটা জুনিয়র অফিসারদেরই করতে হবে।”—

তাদের এই কথােপকথনের বিষয়টি জিয়া রাষ্ট্রপতি বা আর্মি চিফ অব স্টাফকে অবহিত করেননি। এমনকি খুনি জিয়া ১৯৭৯ সালের ৯ জুলাই কুখ্যাত ইনডেমনিটি অধ্যাদেশকে আইনে রূপান্তর করেন। সেদিন সংবিধানের পঞ্চম সংশােধনীর মধ্যে দিয়ে তার আমলে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার বাধাগ্রস্ত করেন। ইনডেমনিটি অধ্যাদেশকে আইনে রূপান্তর করে জিয়া প্রমাণ করেছেন তিনি বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের রক্ষাকারী এবং এই হত্যার ষড়যন্ত্রের মূল কুশিলবদের একজন।

বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারবর্গকে যারা হত্যা করেছিল বা তার সঙ্গে জড়িতদের আইনি ব্যবস্থা থেকে অনাক্রম্যতা বা শাস্তি এড়াবার। ব্যবস্থা প্রদানের জন্য “ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ” আইন প্রণয়ন করা হয়েছিল। ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর তারিখে আরেক খুনি খন্দকার মােশতাক আহমেদ এ ইনডেমনিটি (দায়মুক্তি) অধ্যাদেশ জারি করেন। এটি ১৯৭৫ সালের অধ্যাদেশ নং ৫০ নামে অভিহিত ছিল। পরে ১৯৭৯ সালে খুনি জিয়া কর্তৃক এটি অনুমােদিত হয়, যার ফলে এটি একটি আনুষ্ঠানিক আইন হিসেবে অনুমােদন পায়।

খুনি জিয়া সংশােধনীর নামে সংবিধানকে পাকিস্তানি চেতনায় বদলে দিয়েছিলেন। তার করা পঞ্চম সংশােধনীতে বাঙালি জাতীয়তাবাদ বাদ দিয়ে বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ’-এর সূচনা করা হয়। চার মূলনীতির ধর্মনিরপেক্ষতা ও সমাজতন্ত্রের পরিবর্তন আনা হয়। সমাজতন্ত্রের পরিবর্তে ‘সামাজিক ও অর্থনৈতিক ন্যায়বিচার অর্থে ‘সমাজতন্ত্র প্রতিস্থাপন করা হয়। এ সংশােধনী ছিল সংবিধানের মৌলিক কাঠামােগত পরিবর্তন ও পাকিস্তানিকরণ, যা পরবর্তীতে হাইকোর্টের এক রায়ে বাতিল হয়ে যায়।
আসলে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর খুনিদের রক্ষার জন্য বাংলাদেশের সংবিধানে এক অদ্ভুত কেলেঙ্কারির ইতিহাস রচিত হয়।

১৯৭৯ সালের ৯ জুলাই বাংলাদেশ সংবিধানের ৫ম সংশােধনীর পর সংশােধিত আইন বাংলাদেশ সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করা হলে বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের বিচার একেবারে বন্ধ হয়ে যায়। পরে ১৯৯৬ সালের ১২ নভেম্বর সপ্তম জাতীয় সংসদে আইনটি বাতিল হয়। যার ফলে বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের বিচারের পথ আবার খুলে যায়। ২০১০ সালের ফেব্রæয়ারি মাসে বাংলাদেশ হাইকোর্ট সংবিধানের পঞ্চম সংশােধনীকে অবৈধ ঘােষণা করে। খুনি জিয়ার মৃত্যুর পর বিচারপতি আবদুস সাত্তার, এইচ এম এরশাদ এবং ১৯৯১ সালে বেগম খালেদা জিয়া ক্ষমতায় এলেও ইনডেমিনিটি অধ্যাদেশ বাতিল বা রহিত করা হয়নি। ফলে দায়মুক্তি পেয়ে খুনিরা জতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার কথা প্রকাশ্যে বলে বেড়াত।

অধ্যাদেশটিতে দুটি অংশ আছে। প্রথম অংশে বলা হয়েছে, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ভােরে বলবৎ আইনের পরিপন্থি যা কিছুই ঘটুক না কেন, এ ব্যাপারে সুপ্রিমকোর্টসহ কোনাে আদালতে মামলা, অভিযােগ দায়ের বা কোনাে আইনি প্রক্রিয়ায় যাওয়া যাবে না। দ্বিতীয় অংশে বলা আছে, রাষ্ট্রপতি উল্লিখিত ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত বলে যাদের প্রত্যয়ন করবে তাদের দায়মুক্তি দেওয়া হলাে অর্থাৎ তাদের বিরুদ্ধে কোনাে আদালতে মামলা, অভিযােগ দায়ের বা কোনাে আইনি প্রক্রিয়ায় যাওয়া যাবে না।

পরবর্তীতে এরশাদ ক্ষমতায় আসীন হলে ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বরের ইনডেমিনিটি অধ্যাদেশ বাতিল না করে আবার নিজের সুবিধার জন্য দ্বিতীয়বার ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করে যা ১৯৮৬ সালের ১০ নভেম্বর জাতীয় সংসদে পাস হয় এবং সংবিধানের সপ্তম সংশােধনীতে এটি অন্তর্ভুক্ত হয়। আরও পরে চারদলীয় জোট সরকারের সময় ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০০৩ ‘যৌথ অভিযান দায়মুক্তি বিল ২০০৩’ নামে সবশেষে ইনডেমনিটি আইন পাস হয়।

অর্থাৎ বাংলাদেশে মােট তিনবার ইনডেমনিটি আইন পাস করা হয় এবং ২০১০ সালে এসব অধ্যাদেশকে অবৈধ ঘােষণা করা হয়। এ ইনডেমিনিটি ছিল এমন একটি আইন যা ইতিহাসে লজ্জাজনক। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ছাড়াও আব্রাহাম লিংকন, মহাত্মা গান্ধী, রাজিব গান্ধী, ইন্দিরা গান্ধী, বেনজির ভুট্টো, বন্দর নায়েককে গুলি করে হত্যা করা হলেও সেসব দেশে ইনডেমনিটি আইন জারি করা হয়নি কিন্তু বাংলাদেশে করা হয়েছিল। পৃথিবীর কোনাে সংবিধানে লেখা নেই যে, খুনিদের বিচার করা যাবে না।

বাংলাদেশেই প্রথম ঘটেছিলাে এমন ঘটনা এমনকি বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর ২০ বছর পার হলেও কোন রাষ্ট্রপতি বা সরকার প্রধান সেটি বাতিল না করে উল্টো নিজেদের সুবিধা নেওয়ার জন্য ইনডেমনিটি বহাল রাখে। আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পরে ১৯৯৬ সালের ১২ নভেম্বর মানবতা ও সভ্যতা বিরােধী কুখ্যাত ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিল হয়, বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের বিচারে শুরু হয়।

এরপর ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত চারদলীয় জোট সরকার যারা ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারির সমর্থকরা ক্ষমতায় এলে বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ড মামলার কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে, বিচারকগণও বিব্রত হতে থাকেন। ২০০৮ সালের নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয় লাভের পর আওয়ামী লীগ সরকার আবার এ বিচারকার্য চালিয়ে যাওয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করে। ২০০৯ সালে লিভ-টু-আপিল-এর মাধ্যমে এ বিচার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়। আপিল শেষে বারাে জনের মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখেন মহামান্য আদালত।

বঙ্গবন্ধুর খুনিরা হলােঃ লে. কর্নেল শরিফুল হক (ডালিম), লে. কর্নেল আজিজ পাশা, মেজর এ কে এম মহিউদ্দিন আহমেদ, মেজর বজলুল হুদা, মেজর শাহরিয়ার রশিদ, মেজর রাশেদ চৌধুরী, মেজর নূর চৌধুরী, মেজর শরিফুল হােসেন, কর্নেল কিসমত হাশেম, লে, খায়রুজ্জামান, লে, নাজমুল হােসেন, লে, আবদুল মাজেদ।

বিচারের আগেই যাদের মৃত্যু ঘটেঃ খন্দকার মােশতাক আহমদ, মাহবুব আলম চাষী, ক্যাপ্টেন মােস্তফা, রিসালদার সৈয়দ সারওয়ার হােসেন, লে. ক, মােহাম্মদ আজিজ পাশা (বিচার চলাকালে পলাতক অবস্থায় তার মৃত্যু হয়)। ২০১০ সালে বঙ্গবন্ধুর ৫ ঘাতকের ফাঁসি কার্যকর করা হয়। এরা হলােঃ মহিউদ্দিন আহমেদ, বজলুল হুদা, সৈয়দ ফারুক রহমান, সুলতান শাহরিয়ার রশিদ খান এবং এ কে এম মহিউদ্দিন। ২০২০ সালে কলকাতা থেকে ঢাকায় এলে ধরা পড়ে ফাঁসিকাষ্ঠে ঝুলেছে ক্যাপ্টেন আব্দুল মাজেদ।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ৬ জন আসামি এখনও পলাতক৷ এরা হলােঃ
খােন্দকার আব্দুর রশিদ, নূর চৌধুরী, শরিফুল হক ডালিম, রিসালদার মুসলেহ উদ্দিন, রাশেদ চৌধুরি এবং আবুল হাশেম মৃধা৷ তাদের গ্রেফতার করার জন্য ইন্টারপােলের পরােয়ানা রয়েছে৷ বঙ্গবন্ধুর এই পলাতক খুনিদের ফিরিয়ে এনে রায়। কার্যকর করার মধ্যে আমরা প্রায়শ্চিত্ত করতে চাই।

এখানে উল্লেখ্য যে, আব্রাহাম লিঙ্কনকে হত্যার ৩ মাসের কম সময়ের মধ্যে বিচার সম্পন্ন হয়েছিল। ইন্ধিরা গান্ধী হত্যার ৪ বছরের কম সময়ের মধ্যে ও মহাত্মা গান্ধীকে হত্যার ২ বছরের কম সময়ের মধ্যে বিচার কার্যক্রম সম্পন্ন হয়। কিন্তু বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের পর দীর্ঘ ২০ বছর বিচারের বাণী কেদেছিল, বিচারহীনতার সংস্কৃতি পাথরের মতাে চেপে বসেছিল, ।

বিশ্ব সভ্যতায় বাঙালি জাতির ললাটে এঁকে দিয়েছিল কলঙ্ক তিলক। বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার বিচার শুরু করতেই আমাদের
অপেক্ষা করতে হয়েছে দীর্ঘ ২১ বছর এবং ৩৪ বছর পর কার্যকর হয়েছে রায়। তবে এখনও কয়েকজন খুনী পলাতক রয়েছে যাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।
মূলত ৭৫ থেকে ৯৬ পর্যন্ত গণতন্ত্র বন্দী ছিল, আইনের শাসন ছিল অনুপস্থিত। ‘৯৬ সালে বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী কৃষকরত্ন শেখ হাসিনা সরকার গঠন করার পর সংসদে আইন পাস করে কুখ্যাত ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ রহিত করা হয়, যাত্রা শুরু হয় কলঙ্ক মােচনের। বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হয়েছে, খুনিদের একাংশের দণ্ড কার্যকর হয়েছে। এরপরও প্রশ্ন থেকে যায়, যদি ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে থাকতেন কিংবা অভিমানে রাজনীতি থেকে দূরে সরে যেতেন, তাহলে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ কী বাতিল হতাে নাকি সংবিধানের অংশ হয়েই থাকত?

আমরা দেখেছি ১৯৮১ সালে দেশে ফেরার পর জননেত্রী কৃষকরত্ন শেখ হাসিনাকে ৩২ নম্বরের বাড়িতে ঢুকতে দেয়া হয়নি। ৩২ নম্বরের রাস্তায় বসেই তিনি মােনাজাত করেছিলেন সেদিন। এমনকি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামই নিষিদ্ধ করে দেওয়া হয়েছিল বাংলাদেশে। ইতিহাস বিকৃত করা হয়েছিলাে ইচ্ছামতাে। বাঙালির মহান নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান চিরঞ্জীব, তার চেতনা অবিনশ্বর। বাঙালি জাতির অস্থিমজ্জায় মিশে আছেন বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

মুজিবাদর্শে শাণিত বাংলার আকাশ-বাতাস জলসমতল। প্রজন্ম থেকে প্রজন্মের কাছে শেখ মুজিবুর রহমানের অবিনাশী চেতনা ও আদর্শ চির প্রবাহমান থাকবে।
তাঁর সব চিন্তা-ভাবনা ছিল এই বাংলার কৃষক, শ্রমিক, মধ্যবিত্ত, বুদ্ধিজীবী, শিল্পী, সাহিত্যিক, ব্যবসায়ী, সরকারি কর্মচারী, ছাত্র-যুবক, নারী-পুরুষসহ সমগ্র জাতিকে নিয়ে। বারবার তিনি বলেছেন, এ দেশের মানুষের মুক্তির জন্য তিনি সংগ্রাম করছেন, ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য নয়। কীভাবে বঙ্গবন্ধু নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মৃত্যুর মুখােমুখি হয়েও বাঙালির মুক্তি সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছেন, কীভাবে বাঙালি জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করেছেন পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর দীর্ঘ ২৩ বছর আন্দোলন ও সংগ্রামে; সে ইতিহাসই হলাে বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবনের ইতিহাস।

বাঙালির সামষ্টিক স্বার্থ চিন্তাই জাতির পিতাকে এমন সাহসী ও অনমনীয় করতে সাহায্য করেছে। এভাবে ধাপে ধাপে প্রতিটি আন্দোলন-সংগ্রামকে এগিয়ে নিয়ে হয়ে উঠেছেন ইতিহাসের মহানায়ক। কালক্রমে মুক্তি-সংগ্রামের এক মহৎ প্রচ্ছদপট এঁকে বাঙালি জাতির জন্য এনে দিয়েছেন স্বপ্নের স্বাধীনতা। সে কারণেই ষাট-সত্তর দশকের তরুণদের কাছে বঙ্গবন্ধু হয়ে ওঠেন ‘রােল মডেল। নিজে পরিশ্রমী কর্মী ছিলেন। কর্মী থেকে হয়েছেন বিচক্ষণ সংগঠক। সংগঠক থেকে হয়েছেন অতুলনীয় নেতা। নেতা থেকে জাতীয় নেতা, জাতির পিতা, হয়েছেন ‘ফ্রেন্ড অব দ্য ওয়ার্ল্ড’ বা ‘বিশ্ববন্ধু।

মহান নেতা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে আমাদের উৎসব আনন্দে মাতােয়ারা থাকার বছর হলেও মহামারি করােনা সংক্রমণ বিস্তৃতির প্রেক্ষাপটে আমাদের সকলকে এক নতুন জীবনধারা বেছে নিতে হয়েছে, যেখানে উৎসব হয়ে গেছে গৌণ, আয়ােজন সীমাবদ্ধ হয়েছে আয়তনে। মুজিববর্ষের আনন্দ ও আগস্টের শােককে সামনে রেখে আমার নিবেদন বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের ছবি, নামসহ অন্যান্য পরিচয় ব্যবহারে যথাযথ সম্মান প্রদর্শন এবং সকল স্তরে এ ব্যাপারে দায়িত্বশীল আচরণ করার বিধান যথাযথভাবে পালন করতে হবে। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে মনেপ্রাণে ধারণ ও পালন করে মহামারি করােনা প্রতিরােধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দেয়া নির্দেশনা সর্বস্তরে পালন করতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে মেনে সাধ্যমতাে মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে, করােনা টিকা গ্রহণে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে।

বিংশ শতাব্দীর নিষ্ঠুরতম ট্র্যাজেডির মহানায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি মৃত্যুঞ্জয় হয়ে আছেন বাংলাদেশের মানুষের ভালবাসায়। কোনাে কূটকৌশল বাংলাদেশের ইতিহাস থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলতে পারবে না, বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে বঙ্গবন্ধুর অবদান চিরকাল স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। শতাব্দীর পর শতাব্দী বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকবেন বাঙালির অফুরান প্রেরণার উৎস হয়ে।

তাইতাে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে কবি রফিক আজাদের যথার্থ উদ্ধৃতি , এ দেশের যা-কিছু তা হােক না নগণ্য, ক্ষুদ্র তার চোখে মূল্যবান ছিল- নিজের জীবনই শুধু তার কাছে খুব তুচ্ছ ছিল; স্বদেশের মানচিত্রজুড়ে পড়ে আছে বিশাল শরীর।

‘আগস্ট শােকের মাস, পাপমগ্ন, নির্মম-নিষ্ঠুর,তাকে পাপ থেকে মুক্ত করাে কান্নায়, কান্নায়।

কবি নির্মলেন্দু গুণের সাথে কণ্ঠ মিলিয়ে আমরাও কান্নার মাধ্যমে স্মরণ করবাে বেদনাবিধুর এই আগস্ট মাসকে, সেইসাথে শােক থেকে শিক্ষা নিয়ে জননেত্রী কৃষকরতœ শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করে অপ্রতিরােধ্য উন্নয়নের ধারাবাহিক অভিযাত্রায় অগ্রসর হতে হবে আমাদের সকলের। একটা জাতীয় কমিশন গঠন করে ১৫ই আগষ্টের মূল উৎপাটন করতে হবে। এই দাবি করছি। এই ঘটনা ইতিহাসে পাঠ্য বইয়ে অষ্টম শ্রেণী থেকে লিপিবদ্ধ করতে হবে।
লেখক : সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ কৃষক লীগ।