আদমদীঘিতে ক্লাসে ফেরার অপেক্ষায় শিক্ষার্থীরা

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার আদমদীঘিতে করোনা মহামারির কারণে দেড় বছর স্কুল-কলেজ বিমুখ ছিল কোমলমতি শিক্ষার্থীরা। এতদিন তারা ছিল ঘরবন্দি। অ্যাসাইনমেন্ট, অনলাইন-টিভি ক্লাসে নিয়েছে ক্লাসের পাঠ। এ ঘরবন্দি জীবনের অবসান হলো আজ রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) থেকে।

ফলে সশরীরে শিক্ষার্থীদের জন্য খুলছে উপজেলার প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং মাদরাসা শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠছে বিদ্যালয়ের আঙিনা। তবে সংক্রমণ কমে যাওয়ায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হলেও স্বল্প সময় শিক্ষার্থীদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে রাখা হবে। আর শিক্ষার্থী-শিক্ষক-অভিভাবকদের জন্য স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত যাবতীয় বিধিনিষেধ মানতে হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

জানাগেছে, উপজেলায় সরকারি ও বেসরকারি মিলে ১৩৪টির মতো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে। এগুলোর মধ্যে কলেজ ৯টি, উচ্চ বিদ্যালয় ২২টি, প্রাথমিক বিদ্যালয় ৯৮টি, নিন্ম মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৫টি। এরইমধ্যে স্কুল-কলেজসমূহ শিক্ষার্থী বরণের যাবতীয় প্রস্তুতি নিয়েছনি। ধোয়া-মোছা, রঙ-বার্নিশ ও প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে শিক্ষার্থীদের সুরক্ষায় প্রস্তুত শিক্ষক-কর্মচারীরাও।

সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ঘুরে দেখাগেছে, শিক্ষার্থীদের জন্য প্রবেশ পথে স্থাপন করা হয়েছে হাত ধোয়ার বেসিন। সেখানে রাখা হয়েছে হ্যান্ডওয়াশ ও সাবান। সেই সাথে শিক্ষার্থীদের দেহের তাপমাত্রা মাপার যন্ত্রও রাখার ব্যবস্থা করেছে অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। শুধু তাই নয় অনেক প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সুরক্ষার চিন্তা মাথায় রেখে প্রতিটি শ্রেণিকক্ষের কর্ণানে রাখা হয়েছে মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার।

উপজেলার দমদমা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হুমায়ন রশিদ জানান, প্রাথমিকের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের প্রতিদিন ক্লাস হবে। বাকি শ্রেণিগুলোর শিক্ষার্থীদের ক্লাস সপ্তাহে একদিন করে হবে। পরিস্থিতি বিবেচনায় পরে পর্যায়ক্রমে ক্লাস বাড়বে। ক্লাস নেয়ার লক্ষে সকল প্রস্তুতি নেয়া শেষ।

আদমদীঘি ঈশ্বর-পূর্ণ-জয় (আই, পি, জে) উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনজু আরা বেগম জানান, স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত যাবতীয় বিধিনিষেধ মেনে ক্লাস নেয়ার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। সেই সাথে দীর্ঘদিন ধরে স্কুল বন্ধ থাকায় চারপাশের গজানো জঙ্গল ও আগাছাগুলেঅ পরিষ্কার করা হয়েছে।

উপজেলার দমদমা গ্রামের তৃতীয় শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক শারমিন আক্তার জানান, দীর্ঘ প্রায় দেড় বছর স্কুল বিমুখ ছিল তার মেয়ে। স্কুল বন্ধ থাকায় পড়াশোনায় কোনো মন বসতোনা তার মেয়ের। স্কুল খুলে দেয়ায় তিনি অনেকটাই স্বস্তি পেয়েছেন। তবে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষেকে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ বিষয়ে সার্বক্ষণিক তদারকি করা প্রয়োজন বলেও এই অভিভাবক মনে করেন।

আদমদীঘি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মাহাবুবুল হোসেন জানান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আগের পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে যথাযথ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। সে অনুযায়ী প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানদের সাথে জুম মিটিংয়ের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত পরিবেশ দেখতে কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে পরিদশর্নও করা হয়েছে। আশা করছি, সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আগের মতোই পাঠদান ও শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি হবে।