দীর্ঘ ৫৪৩ দিন পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রাণের স্পন্দন

ফাইল ছবি

মানতে হবে ১০ নির্দেশনা, প্রতি বেঞ্চে বসবে একজন শিক্ষার্থী, আপাতত খুলছে না বন্যাকবলিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঙলা প্রতিদিন:
করােনাভাইরাসের কারণে দীর্ঘ ৫৪৩ দিন অর্থাৎ প্রায় দেড় বছর পর উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায় পর্যন্ত শ্রেণিকক্ষে পাঠদান শুরু হচ্ছে আজ রােববার থেকে। প্রতি বেঞ্চে বসবে একজন শিক্ষার্থী। সচল হচ্ছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলাে।এই খবরে ঘরবন্দি শিক্ষার্থীরা যেমন আনন্দে উদ্বেলিত তেমনি উচ্ছ্বসিত শিক্ষকরাও।সরকারের তরফ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খােলার ঘােষণা দেয়ার পর নানা আয়ােজনে শিক্ষার্থীদের বরণের প্রস্তুতি নিয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলাে।

পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার পাশাপাশি সাজানাে হয়েছে বেলুন ও রঙিন কাগজ দিয়ে।নিজেদের চেনা ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের অভ্যর্থনা জানানাে হবে চকলেট ও ফুল দিয়ে। এর পাশাপাশি রাখা হয়েছে আইসােলেশন রুম সুবিধাসহ স্বাস্থ্য সংক্রান্ত নানা পদক্ষেপ। এ পরিস্থিতিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচালনায় শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবকসহ সংশ্লিষ্টদের ৬৩টি নির্দেশনা দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)।

আর যেসব এলাকা বন্যাকবলিত সেসব এলাকার বিদ্যালয়গুলাে খােলার বিষয়ে কোনও বাধ্যবাধকতা নেই বলে জানিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)। গত ৫ সেপ্টেম্বর শিক্ষামন্ত্রীর সভাপতিত্বে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত উচ্চপর্যায়ের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সভা শেষে প্রেস ব্রিফিংয়ে শিক্ষামন্ত্রী দিপু মণি গণমাধ্যমকে বলেন, দেশে করােনার সংক্রমণ দ্রুত কমে যাচ্ছে। জুলাই মাসের তুলনায় সংক্রমণ ৭০ শতাংশ কমেছে। ১২ সেপ্টেম্বর থেকে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান শুরু হবে। প্রথম দিন চার-পাঁচ ঘণ্টা ক্লাস হবে। পর্যায়ক্রমে এই ক্লাসের সংখ্যা বাড়বে।

শ্রেণিকক্ষে পাঠদানকালে শিক্ষার্থী-শিক্ষকসহ সবাইকে মাস্ক পরিধান করতে হবে। পরে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই) থেকে আলাদাভাবে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে পাঠদান কার্যক্রম পরিচালনাসহ বেশ কিছু সতর্কতা ও সচেতনতামূলক নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

এদিকে, দীর্ঘদিন পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠদান কার্যক্রম শুরু হওয়ায় নানা ধরনের। প্রস্তুতি নিয়েছে রাজধানীসহ সারাদেশের স্কুল-কলেজগুলাে।বড় বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা তাদের শিক্ষার্থীদের বরণ করতে নানা আয়ােজন করেছেন। কোনাে কোনাে প্রতিষ্ঠানে রীতিমতাে উৎসবের আয়ােজন করে শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেওয়া হবে। নিজ প্রতিষ্ঠানের ছাত্রীদের বরণ করে এ দিন পাঠদান শুরু করবেন ভিকারুননিসা নূন স্কুলের শিক্ষকরা।

প্রতিষ্ঠানটির একাধিক শিক্ষক জানান, ক্লাসের প্রথম দিন আনুষ্ঠানিকভাবে শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেবেন তারা। বেইলি রােড, আজিমপুর, ধানমন্ডি ও বসুন্ধরায় ভিকারুননিসার চারটি শাখার প্রবেশপথের সব ফটক বেলুন ও কাগজ দিয়ে সাজানাে হয়। তিন ফুট দূরত্ব রেখে শিক্ষকরা গেটের সামনে সারিবদ্ধ হয়ে দাঁড়াবেন। ছাত্রীরা যখন প্রবেশ করবে, শিক্ষকরা করতালি ও ড্রাম বাজিয়ে সংবর্ধনা ও শুভেচ্ছা জানিয়ে তাদের ভেতরে প্রবেশ করানাে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার রাজধানীর উদয়ন উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পরিষ্কারপরিচ্ছন্নতার পাশাপাশি ক্লাসরুম সাজানাে হয়েছে বেলুন ও রঙিন কাগজ দিয়ে । নিজেদের চেনা ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের অভ্যর্থনা জানানাে হবে চকলেট ও ফুল দিয়ে। এর পাশাপাশি রাখা হয়েছে আইসােলেশন রুম সুবিধাসহ স্বাস্থ্য সংক্রান্ত নানান পদক্ষেপ।

এদিকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খােলার খবরে শিক্ষা সরঞ্জাম কেনার পাশাপাশি প্রাতিষ্ঠানিক পোশাক (স্কুল ড্রেস) বানাতে ব্যস্ত সময় কাটিয়েছে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের। বিশেষ করে খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠানগুলাের ড্রেস বানিয়ে থাকে, এমন দর্জি দোকান বা টেইলার্সে বেশি ব্যস্ততা। তবে দীর্ঘ সময় পরে শিক্ষার্থীরা ক্লাসে যেতে নির্দিষ্ট পােশাক নিয়ে স্কুলগুলােতে তেমন কড়াকড়ি থাকবে না।

রাজধানীর নেভি স্কুল অ্যান্ড কলেজ, স্যার জন উইলসন স্কুল, সেন্ট যােসেফ হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজসহ বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান সাধারণ শােভন পােশাকে শিক্ষার্থীরা স্কুলে যেতে পারবে বলে নােটিশ দিয়েছে।

এদিকে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খােলায় উচ্ছ্বসিত শিক্ষকরাও। তারা বলছেন, শিক্ষার্থীরাই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রাণ। তাদের পদচারণায় শ্রেণিকক্ষ মুখরিত না থাকলে পাঠদানের ‘মজাটা আসে না’। প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও কলেজ পর্যায়ের তিনজন শিক্ষকের সঙ্গে আলাপকালে তাদের এমন প্রতিক্রিয়া পাওয়া গেছে। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা শ্রেণিকক্ষগুলােতে জমা ধুলােময়লা পরিষ্কার করা হয়েছে।

সুরক্ষা সামগ্রী রাখাসহ নেওয়া হচ্ছে নানা পদক্ষেপ। করােনাকালেই রাজধানীর কবি নজরুল সরকারি কলেজে অধ্যক্ষ হিসেবে যােগ দিয়েছেন অধ্যাপক আমেনা বেগম। যােগদানের পর এখনও শ্রেণিকক্ষে এই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের পাননি তিনি। দীর্ঘদিন পরে হলেও কলেজ খােলার খবরে উচ্ছ্বসিত এই শিক্ষক।

তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা হচ্ছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রাণ। দীর্ঘদিন পর কলেজ খুলবে, আমরা শিক্ষার্থীদের দেখবাে, ক্লাস করাবাে- এ এক অন্যরকম আনন্দ। তিনি জানান, স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষার্থীদের কলেজ ক্যাম্পাসে বরণ করার জন্য আমরা ইতােমধ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পূর্ণ করেছি। শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা দেওয়ার জন্য আমরা করােনা প্রতিরােধ বুথসহ নিরাপদ পানির ব্যবস্থা করেছি।

এছাড়া আমরা শিক্ষার্থীদের প্রয়ােজনীয় সব কিছুর ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। পুরান ঢাকার আরেক ঐতিহাসিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ইসলামিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় । কথা হয় প্রতিষ্ঠানটির সহকারী শিক্ষক মাে. হারুন। তিনি বলেন, দীর্ঘদিন পর স্কুল খুলবে। এতে আমরা খুবই আনন্দিত। এতােদিন অনলাইনে শিক্ষার্থীদের ক্লাস নিয়েছি। এখন সশরীরে ক্লাস নিবাে। আসলে অনলাইনেতাে শ্রেণিকক্ষের সেই মজাটা আসে না।

অনেকদিন পর শিক্ষার্থীদের আগমন স্কুল প্রাঙ্গণে সজীবতা ফিরে আসবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা আমাদের সর্বোচ্চটুকু দিয়ে স্কুলে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা দেওয়ার জন্য সকল ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছি। দীর্ঘদিন স্কুল বন্ধ থাকায় এরই মধ্যে অনেক শিক্ষার্থী পড়াশােনা ছেড়ে শিশুশ্রমে লিপ্ত হয়ে গেছে উল্লেখ করে এজন্য আফসােস করেন এই শিক্ষক। তিনি বলেন, এটা আমাদের জন্য আমাদের দেশের জন্য অত্যন্ত দুঃখজনক বিষয় । দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর স্কুল খুলছে, অনুভূতি কেমন জানতে চাইলে জসিম উদ্দিন বলেন, স্কুল আবার শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হবে।

এটা একজন শিক্ষক হিসেবে আমার কাছে অত্যন্ত আনন্দের বিষয় । লােকজন না থাকায় নিজেই এর প্রস্তুতি নিয়েছি। কিছুটা কষ্ট হলেও শিক্ষার্থীদের কথা ভেবে ভালাে লাগছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার উদয়ন উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ঘুরে দেখা যায়, গেটেই রাখা আছে শরীরের তাপমাত্রা মাপার যন্ত্র। তার পাশে হাত ধােয়ার জন্য স্থাপন করা হয়েছে বেসিন। এক পাশে কোভিড-১৯ বিস্তার রােধে করণীয় নির্দেশনামূলক ফেস্টুন। স্কুলে ঢুকেই দেখা যায় সুন্দর এক দেয়াল লিখন।

গতকাল শ্রেণিকক্ষে গিয়ে দেখা যায়, কর্মচারীরা ধােয়া-মােছার কাজ করছেন। কেউ ঝাড় দিচ্ছেন, কেউ বেঞ্চ পরিষ্কার করছেন। আবার কেউ বেলুন ও রঙিন কাগজ দিয়ে ক্লাসরুম সাজাচ্ছেন। শিক্ষকরা একে অন্যের সঙ্গে কথা বলে নানা প্রস্তুতিমূলক কাজ করছেন।

উদয়ন স্কুলের কর্মচারী শ্যামল চন্দ্র ভৌমিক বলেন, পরিচ্ছন্নতার সব কাজ শেষ। আমরা শিক্ষার্থীদের বরণ করতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত। অনেক দিন পর স্কুল খােলা হচ্ছে, ভালাে লাগছে। শিক্ষার্থীরা আসবে এতেই ভালাে লাগছে।

স্কুলটির প্রাথমিক শাখার এ সমন্বয়কারী বলেন, আমরা আমাদের দিক থেকে শতভাগ প্রস্তুত। বহু আগে থেকেই পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখছি ক্যাম্পাস, যাতে আমাদের শিক্ষার্থীদের কোনাে অসুবিধা না হয়। সব কাজ করেছি। বিদ্যালয়ের সার্বিক প্রস্তুতির বিষয়ে জানতে চাইলে অধ্যক্ষ জহুরা বেগম বলেন, ২০২০ সাল থেকেই পরিচ্ছন্নতা শুরু করেছি। করােনাকালে গেটের পাশে বেসিন বসিয়েছি হাত ধােয়ার জন্য।

গ্লাস, পানির ফিল্টার, পানির ট্যাংক পরিষ্কার করা, সাবান, স্যানিটাইজার, মাস্ক, ফুল, চকলেটসহ সব কিছুর ব্যবস্থা করেছি। সব ধরনের। প্রস্তুতি নিয়েছি। নিজেদের সুরক্ষার বিষয়ে অধ্যক্ষ জহুরা বেগম বলেন, এখানে কর্মরতদের মধ্যে কোভিড-১৯ আক্রান্ত, ডায়াবেটিস আক্রান্ত, বয়স্ক ও অন্তঃসত্ত্বা মায়েরা বাদে সবাই টিকা নিয়েছে। ১০১ জন শিক্ষকের মধ্যে অধিকাংশই টিকা নিয়েছেন।

যারা টিকা নিতে পারেননি তাদের সবাই রেজিস্ট্রেশন করেছেন। দ্রুতই টিকা পাবেন বলে আশা করছি। শিক্ষক-শিক্ষার্থী-অভিভাবকের জন্য মাউশির ৬৩ নির্দেশনা: মহামারি। করােনাভাইরাস পরিস্থিতিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচালনায় শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবকসহ সংশ্লিষ্টদের ৬৩টি নির্দেশনা দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচালনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট গভর্নিং বডি, ম্যানেজিং কমিটি, অভিভাবক, শিক্ষক-শিক্ষার্থী, প্রতিষ্ঠানপ্রধান, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, আঞ্চলিক উপপরিচালক, আঞ্চলিক পরিচালকদের এ নির্দেশনা দেওয়া হয়।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে সভা করা, আনন্দময় শিখন পরিবেশ, মাস্ক পরিধান, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পুনরায় চালুকরণে পরিকল্পনা বাস্তবায়নে ম্যানেজিং কমিটি, ও গভর্নিং বডির সহযােগিতা, নিরাপদ পানি ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে গভর্নিং বডি ও ম্যানেজিং কমিটির জন্য ৫টি নির্দেশনা দিয়েছে মাউশি।

সেগুলাে। হলাে- শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পুনরায় চালুকরণে পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সহযােগিতা, স্বাস্থ্যবিধিতে কোনাে বড় পরিবর্তন আসলে তা বাস্তবায়নে সহযােগিতা, নিরাপদ। পানি ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা নিশ্চিত করা।

প্রতিষ্ঠানপ্রধানের জন্য দেওয়া ১৪টি নির্দেশনা হলাে- শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে আনন্দময় শিখন পরিবেশ, সবার মাস্ক পরিধান, স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে আসন বিন্যাসসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

অভিভাবকদের জন্য নির্দেশনা রয়েছে ৮টি। এর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ হলাে- সন্তানকে মাস্ক পরিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠানাে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাওয়ার জন্য উৎসাহিত করা, প্রতিষ্ঠানে সঠিক সময়ে প্রেরণ ও বাসায় আসা নিশ্চিত করা। শিক্ষকদের ৮টি নির্দেশনা দিয়েছে মাউশি। যাতে রয়েছে, শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা মােটিভেশন দেওয়া, শিক্ষার্থীদের মনােসামাসিক সহযােগিতা, আনন্দঘন পরিবেশে শ্রেণি পাঠদান, হাঁচি-কাশিতে শিষ্টাচার মেনে চলা। শিক্ষার্থীদের জন্যও ৮টি নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এর মধ্যে রয়েছে, রুটিন অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত যাওয়া, দূরত্ব মেনে গমন-প্রবেশ ও ক্লাসে বসা, অকারণে ক্লাস থেকে বের না হওয়াসহ আরও কিছু নির্দেশনাএছাড়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার জন্য ছয়টি, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার জন্য সাতটি, আঞ্চলিক উপপরিচালকের (মাধ্যমিক) জন্য তিনটি ও আঞ্চলিক পরিচালকদের জন্য চারটি নির্দেশনা দেওয়া।

মাউশি জানায়, বন্যা পরিস্থিতির পর এসব এলাকার স্কুলগুলােতে সুবিধাজনক সময়ে শ্রেণি পাঠদান শুরু করতে হবে। তবে বন্যাকবলিত জেলাগুলােতে যেসব বিদ্যালয় বন্যাকবলিত হয়নি, কিংবা আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে না, সেগুলােতে যথাসময়ে শ্রেণি পাঠদান চালু থাকবে।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মাে. গােলাম ফারুক বলেন, ‘যেসব বিদ্যালয় বন্যাকবলিত সেসব বিদ্যালয় খুলে দিয়ে শ্রেণি পাঠদান করার প্রয়ােজন নেই। তারা পরে শ্রেণি পাঠদান শুরু করবে। অনেক বিদ্যালয় আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে, সে বিষয়টিও গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, ‘বন্যাকবলিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খােলার বিষয়ে বিশেষ নির্দেশনা দেয়া হবে। ওই নির্দেশনা অনুযায়ী, তারা সরাসরি বিদ্যালয়ে ক্লাস পরিচালনা করবেন না। তবে অনলাইনে ক্লাস পরিচালনা করতে হবে।

মাউশি জানায়, বন্যায় দেশের প্রায় ১০টি জেলা প্লাবিত হয়েছে।

বন্যার পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র সূত্র থেকে জানানাে হয়, দেশের বিভিন্ন পয়েন্টে পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। শিগগিরই বন্যাকবলিত এলাকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলাে আশ্রয় কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করার জন্য নির্দেশনা দেয়া হবে। এছাড়া বন্যায় অনেক বিদ্যালয়ে পানি জমে যায়, সেসব বিদ্যালয়ে ক্লাস হবে। না। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খােলার ক্ষেত্রে সেসব প্রতিষ্ঠানের কোনও বাধ্যবাধকতা নেই।

বন্যাকবলিতদের পাশে দাঁড়াতে শিক্ষক-কর্মচারীদের নির্দেশনা দেয়া হবে। গত বছরের ৮ মার্চ বাংলাদেশে করােনাভাইরাসের অস্তিত্ব শনাক্ত হয়। গত ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর তথ্য জানায় রােগতত্ত্ব, রােগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)। মরণ ভাইরাসটির বিস্তার রােধে ওই বছরের ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘােষণা করে সরকার।

এরপর সংক্রমণ পরিস্থিতির বিশেষ উন্নতি না হওয়ায় দফায় দফায় ছুটি বাড়ানাে হয়। চলতি বছরের শুরুর দিকে সংক্রমণ কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এলে কয়েক দফা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার প্রস্তুতি নিলেও শেষ পর্যন্ত তা সম্ভব হয়ে ওঠেনি।