শান্তি প্রতিষ্ঠায় প্রয়োজন নারী-পুরুষের সমতায়ন

জেসমিন খাতুন, শিক্ষার্থী ও কোঅর্ডিনেটর, হোয়াইট ডাভ, জাককানইবি-

ডেস্ক রিপোর্ট
একটি যুদ্ধবিহীন বিশ্ব প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ১৯৮১ সালে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে গৃহীত নম্বর ৩৬/৬৭ প্রস্তাব অনুসারে প্রতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসের “তৃতীয় মঙ্গলবার” জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশন শুরু হওয়ার দিনটিকে “আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস” হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। পরবর্তীতে, ২০০১ সালের ৭ সেপ্টেম্বর, জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে গৃহীত ৫৫/২৮২ নম্বর প্রস্তাব অনুসারে ২০০২ সাল থেকে প্রতি বছরের ২১ সেপ্টেম্বর “আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস” হিসেবে উদযাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

প্রতি বছর প্রতি মাসের নির্দিষ্ট কিছু দিনে বিভিন্ন দেশে কিছু দিবস পালিত হয়। ওই নির্দিষ্ট দিনে অতীতের কোনো গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাকে স্মরণ করা বা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে জনসচেতনতা তৈরি করতেই এই সমস্ত দিবস পালিত হয়। পালনীয় সেই সমস্ত দিবসগুলির মধ্যে একটি হল আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস। ২০২১ সালের আন্তর্জাতিক শান্তি দিবসের প্রতিপাদ্য হলো- “একটি ন্যায়সঙ্গত এবং টেকসই বিশ্বের জন্য উত্তম উপায় পুনরুদ্ধার”। আন্তর্জাতিক এই শান্তি দিবস-২০২১ কে সামনে রেখে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু নারী শিক্ষার্থী এবং সংগঠনের সদস্যদের ভাবনা ফুটিয়ে তোলা হয়েছে এবং বিশ্ব শান্তিতে ও শান্তিপূর্ণ সমাজ বিনির্মাণের নারীদের নানামূখী কার্যক্রমগুলোর প্রতিফলন নিয়ে আজকের এই ফিচারটি লিখেছেন- বায়েজিদ হাসান

যদি আমরা প্রাচীন কালের ইতিহাস থেকে শিক্ষা নেই সেখানে নারীরা ছিলো নির্যাতিত, নিপীড়িত। কারণ তারা স্বাবলম্বী ছিলোনা, তারা অক্ষর জ্ঞানহীন ছিলো। এখন যুগ আধুনিক হয়েছে তবুও নানাভাবে আজ অনেকাংশেই নারী নির্যাতিত। খবরের কাগজ খুললেই কেন নির্দয়ের মতো পুরুষ কর্তৃক নারীকে নির্যাতন করার দৃশ্য দেখতে পাই। নারীর প্রতি অবহেলা, নারী প্রতি অন্যায়ের প্রতিবাদে নারীকে স্বাবলম্বী হতে হবে।

এরই ধারাবাহিকতায় তৃনমূল পর্যায়ের নারীদের সৃজনশীল কর্মকে কাজে লাগিয়ে নারীর ক্ষমতায়নে ও শান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজ করতে হবে। আর সেই কাজটি করছে উইমেন পিস ক্যাফের অধীনে পিস এম্বাসেডর ইনিশিয়েটিভ হোয়াইট ডাভ প্রকল্পটি।

যেখানে একজন নারী নিজে স্বাবলম্বী হবে এবং অপরজনকে পথ দেখাবে। আমাদের এই পদক্ষেপে আমরা বিশ্বাস করি, প্রতিটি নারীই স্বপ্ন দেখে আর তাদের শখের গন্ডির বাহিরে অনেক স্বপ্ন আর অব্যক্ত আশা সুপ্তাবস্থায় থেকে যায়। এই স্বপ্নকে বিকশিত করার নামই শান্তি। তন্দ্রাঘোরে আর কতকাল নারীদের সৃজনশীলতাকে বাধাগ্রস্থ করা হবে? মানসিক প্রশান্তি এবং সুস্থ সুন্দর জীবন নিশ্চিত করার লক্ষ্যেই পুরুষের পাশাপাশি সমান ভাবে এগিয়ে যেতে হবে নারীদেরও, শান্তি দিবস উপলক্ষে এ হোক আমাদের অঙ্গীকার।

আদিবাসী নারী ও তরুণদের মাঝে শান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজ করে যাওয়া ‘শৈলসম’ প্রকল্পের সক্রিয় স্বেচ্ছাসেবী প্রবীণ হেনরী ত্রিপুরা মনে করেন-
বাংলাদেশে প্রায় ৪৮টি বা আরো বেশি বিভিন্ন আদিবাসী জাতিগোষ্ঠী রয়েছে। তারা প্রায় সময় বিভিন্নভাবে বৈষ্যমের শিকার হন। তাদের বসবাস প্রান্তিক অঞ্চলে হাওয়ায় সরকার বা বিভিন্ন উন্নয়ন সংস্থাদের সহায়তা তাদের কাছে পৌঁছায় না। এর মধ্যে বিশেষ করে আদিবাসী নারীরা আরও বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হন। ‘শৈলসম’ সে সকল আদিবাসী জাতিগোষ্ঠীদের স্বাস্থ্য সচেতনতা ও অর্থনৈতিক দিক দিয়ে তাদের স্বাবলম্বীতা এবং একই সাথে সমাজের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান ও মোকাবেলায় আদিবাসী যুবদের অংশগ্রহন নিশ্চিত করার মাধ্যমে আদিবাসী সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে।

বিগত বছরের মাঝামাঝি করোনাকালীন কঠিন পরিস্থিতিতে পিস ক্যাফের এই ইনিশিয়েটিভ ‘শৈলসম’ দেশের প্রান্তিক আদিবাসী নারীদের কাছে স্বাস্থ্য সচেতনতা ও করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন কার্যক্রমের মাধ্যমে সচেতনতা তৈরী করে এবং একই সাথে তাদের কাছে স্বাস্থ্য নিরাপত্তার বিভিন্ন সামগ্রী পৌঁছে দেয়। একই সাথে ২৫জন আদিবাসী যুবদের মাঝে নেতৃত্ব, স্বাস্থ্য সচেতনতা, সহিংসতা, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘৃণামূলক বক্তব্য চিহ্নিত ও তার প্রতিরোধের জন্য বিভিন্ন প্রশিক্ষন প্রদান করেন। এছাড়াও আদিবাসী নারীরা যেন তাদের হাতের কাজের দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে পরিবারের জন্য বোঝা না হয়ে নিজেরা আর্থিকভাবে স্বচ্ছল হতে পারে সে লক্ষ্যে বিভিন্ন কার্যক্রম হাতে নেয় আর এভাবেই ‘শৈলসম’ আদিবাসী সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে কাজ করছে।

নারী শান্তি বিষয়ক সংগঠন উইম্যান পিস ক্যাফের কোষাধ্যক্ষ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাদিয়া বিনতে সিদ্দিক বলেন, নারীর প্রতি সহিংসতা সমাজকে পিছিয়ে দিচ্ছে। এ সহিংসতা কেবল ভুক্তভোগীর জন্যই নয়, সমাজের জন্যও ক্ষতিকর। যে শান্তি প্রচেষ্টায় নারীদের কোন অবদান, ভূমিকা, মতামত, সম্মান ও তাদের অধিকার রক্ষার বিষয়টি সচেতন বা অসচেতনভাবে এড়িয়ে যাওয়া হয় সেখানে আর যাই হোক মুক্তি এবং শান্তির দেখা মেলে না।

তাই সমাজ ও জাতির শান্তি-সমৃদ্ধির জন্য একটি আদর্শ সমাজ বিনির্মানে নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ করার কোন বিকল্প নেই। আর এই কাজটিই বিভিন্ন উদ্যোগের মাধ্যমে কাজ করে যাচ্ছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উইম্যান পিস ক্যাফে। যেকোন নারী শিক্ষার্থীর সাথে কোনো ধরনের হয়রানির সংবাদ পেলে উইম্যান পিস ক্যাফে সর্বদা কঠোর ও সোচ্চার ভূমিকা রেখে এসেছে এবং ভবিষ্যতেও তারা তাদের এসকল কাজ অব্যাহত রাখবেন আশা রাখি।

উইম্যান পিস ক্যাফের সহ-সভাপতি ফাইজাহ ওমর তূর্ণা- ব্যক্তিগত জীবনে দক্ষতা উন্নয়নে উইম্যান পিস ক্যাফের ভূমিকা ও স্বাবলম্বী হওয়ার প্রেক্ষাপট উল্লেখ করে বলেন, উইমেন পিস ক্যাফে- শান্তি, সম্প্রীতি, সমতা, নারীর আত্মমর্যাদা, অধিকার ও আত্মনির্ভরশীল হওয়ার লক্ষ্যে ২০১৯ সাল থেকে কাজ করে চলেছে। সমাজে সমতা আনোয়ন এর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ হচ্ছে প্রত্যেক নারীর নিজের কর্মের মাধ্যমে আত্মনির্ভরশীল হয়ে উঠা। আমাদের সমাজ ব্যবস্থায় এখনও নারীরা পুরুষদের থেকে পিছিয়ে আছে, যা নারী ও পুরুষের মাঝে বৈষম্য সৃষ্টির কারণ।

তাই সমতা আনয়নে নারীদের এক ধাপ এগিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে উইমেন পিস ক্যাফে আইডিয়া ভিত্তিক উদ্যোক্তা ট্রেনিং এর আয়োজন করে যার লক্ষ্য ছিল সমাজিক সমস্যা সমাধানের মাধ্যমে নারীকে আত্মনির্ভরশীল করে গড়ে তোলা। তারই ধারাবাহিকতায় আমি নিজে ‘আঁরশিলতা’ নামক একটি উদ্যোগ গ্রহণ করে নিজে আত্মনির্ভরশীল হওয়ার চেষ্টা করি ও আমার কাজের মাধ্যমে অন্যদের উৎসাহিত করি।

উইমেন পিস ক্যাফে এই ধরনের উদ্যোগ তৈরিতে আমার উপর পরোক্ষভাবে মনোবল তৈরি করতে সহায়তা করেছে। আমি মনে করি শান্তি আনয়নে নারী পুরুষের সমতা অপরিহার্য ও নারীর আত্মনির্ভরশীলতাই পারে নারীর ভেতরের ভীতিকে কাটিয়ে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে। উইমেন পিস ক্যাফে সচেতনতা বৃদ্ধি, প্রশিক্ষণ কর্মসূচি ও প্রজেক্টের মাধ্যমে নারী ও পুরুষদের আত্মনির্ভরশীলতা আনয়নে সমান সহায়তা করে এসেছে শুরু থেকেই। শান্তি ও সমতা একে অপরের উপর নির্ভরশীল। শান্তি ও সমতা রক্ষায় উইমেন পিস ক্যাফের ভূমিকা সত্যিই প্রশংসনীয়।

শান্তি প্রতিষ্ঠায় উইম্যান পিস ক্যাফের ভূমিকা নিয়ে সংগঠনটির সভাপতি মেশকাতুল জিনান তার ভাবনায় তুলে ধরেন- বাংলাদেশের নারীরা এখন সমাজে শান্তিপ্রতিষ্ঠায় ভুমিকা রাখছে খুব জোরালোভাবে, সমাজের এই শান্তি আরো বেগবান করতে এবং ধরে রাখতে প্রয়োজন নারী-পুরুষ সমতায়ন। যা ধীরে ধীরে বাংলাদেশে প্রসারিত হচ্ছে, এই প্রক্রিয়াকে আরো প্রসারিত করতে উইমেন পিস ক্যাফে, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় কাজ করে যাচ্ছে তৃণমূল পর্যায় থেকে সর্বোচ্চ পর্যায় পর্যন্ত। উইমেন পিস ক্যাফে বিশ্বাস করে সমাজে শান্তিপ্রতিষ্ঠার জন্য সমতা প্রয়োজন, সেই বিশ্বাস থেকে একটি শান্তিপূর্ণ সমাজ বিনির্মাণের লক্ষ্যে কাজ করে যাবে।

উল্লেখ্য নারীর ক্ষমতায়ন, নারীর উদ্ভাবনী ভাবনা বাস্তবায়ন এবং শান্তিপূর্ণ সমাজে নারী উদ্যোক্তা তৈরির জন্য একটি সৃজনশীল প্ল্যাটফর্ম হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে উইম্যান পিস ক্যাফে, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যায়ের এই সংগঠনটি। ইউএন উমেন এবং সেন্টার ফর পিস এন্ড জাস্টিস, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগিতায় সম্প্রতি করোনাকালীন সময়ে সংগঠনটির সরাসরি তত্বাবধানে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়াও সারা দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের প্রায় ১০০ জন নারী শিক্ষার্থীদের সাথে নিয়ে ৫ মাস মেয়াদী ৪টি প্রকল্পে কাজ করেন। প্রকল্প চারটি হলোঃ শৈলসম , ঐকতান, হোয়াইট ডাভ ও আমরা আনিব রাঙা প্রভাত। প্রতিটি প্রকল্পই নারীদের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য, নারীর অধিকার, নারী পুরুষ সমতা, নারীকে আত্মবিশ্বাসী ও স্বাবলম্বী করে তুলতে সর্বোপরি সমাজে শান্তি বিনির্মাণে কাজ করে যাচ্ছে।

আগামী দিনেও আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস পালনের মাধ্যমে পৃথিবীর প্রতিটি কোণায় শান্তির বার্তা পৌঁছে দেওয়ার কাজ চালিয়ে যাবেন এই শিক্ষার্থীরা এবং একটি টেকসই ন্যায়সঙ্গত ও শান্তিপূর্ণ বিশ্বের জন্য নারী পুরুষের সম অধিকার নিশ্চিত করতে হবে। তবেই একটি আলোকিত পৃথিবীর দেখবে আগামী প্রজন্ম।
বায়েজিদ হাসান
কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়