কালের স্বাক্ষী হয়ে দাড়িয়ে আছে ৭শ’ বছরের প্রাচীন মঠ

প্রতিনিধি, ফরিদগঞ্জ
বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলায় ১নং বালিথুবা ইউনিয়নে অবস্থিত পুরাতন প্রাচীন এই মঠ। ফরিদগঞ্জ উপজেলার লোহাগড় গ্রামে ডাকাতিয়া নদীর পাশ্বে’ অবস্থিত, স্থানীয় বয়স্ক ব্যক্তিরা জানায়, প্রায় ৭ শত বছর থেকে ১ হাজার বছরের পুরাতন প্রাচীন এই মঠ তাহাদের পূব’ পুরুষের ধারণা, যা লোহাগড় জমিদার বাড়ির জমিদাররা তৈরি করেছিলেন। লোহাগড় জমিদার বাড়ীর দু ‘ জনেই জমিদার ছিলেন, একজনের নাম ছিলো লৌহ অপর আরেক জনের নাম হচ্ছে গহড়, দু ‘ জনের নাম একত্রে রাখা হয় গ্রামটির নাম লোহাগড়।

জমিদারদের নামানুসারে গ্রামের সাথে মিল রেখেই তাদের স্থাপত্য শৈলির ও নাম রাখা হয় লোহাগড় মঠ। আজ থেকে প্রায় ৭শ’ বছর পূবে’ লোহাগড় জমিদার বাড়ির জমিদাররা এই এলাকাজুড়ে রাজত্ব করতেন। মঠের মত বিশালাকৃতি ৩ টি প্রাসাদ, এই প্রাসাদেই জমিদাররা তাদের বিচারকার্য সম্পাদন করতেন। বিভিন্ন সূত্রে জানাযায়, প্রতাপশালী দুই রাজা, লৌহ এবং গহড় ছিলেন অত্যাচারী রাজা, তাদের ভয়ে কেউ মঠ সংলগ্ন রাস্তা দিয়ে যেতে শব্দ করতেননা। মানুষের কোন অন্যায় অভিযোগ পেলে তাহাদের প্রান কেড়ে নিতো।

লৌহ ও গহড় এই দুই রাজার পরিবারের গবে’ নতুন কোন অতিথি আসলে তারা দু’জনেই বাজী ধরতো তোর পরিবারের পেটে মেয়ে সন্তান আছে, আরেকজন বলতো তোর পরিবারের পেটে ছেলে আছে এই ভাবেই বলতে বলতেই একপযা’য়ে বাজি দরে ঐ গব’বতী মহিলার পেট কেটে যাচাই করতেন ছেলে না মেয়ে, প্রাক ইসলামী যুগের কায়দাকানুন তারা তা করতো।

অত্যাচারী দুই রাজা অন্যায় জুলুমবাজ ছিলেন, তারা দু ‘ জনেই ২০ মন দুধ দিয়ে আনন্দ করে প্রতিদিনেই এই ভাবেই গোসল করতেন। জনৈক এক ব্রিটিশ কতা’ ব্যক্তি ঘোড়া নিয়ে প্রাসাদের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় বলেছিলেন, ”কেমন রাজা’ রে এরা বাবু রাস্তাগুলো ঠিক নেই। পরবতী’তে একথা জমিদারের গোলামরা শুনে লৌহ ও গহড়কে অবহিত করে, কথিত আছে ঐ কতা’ ব্যক্তির জন্য নদীর তীর হতে জমিদার বাড়ি পয’ন্ত সিকি ও আধুলি মুদ্রা দিয়ে রাস্তা তৈরি করা হয়।

যার প্রস্ত ছিলো ২ হাত উচ্ছতা ১ হাত ও দৈঘ্য ২০০ শত হাত, পরবতী’তে ঐ রাস্তাটিতে স্বন’ মুদ্রা দ্বারা ভরিয়ে দেওয়া হয় এবং যখন ঐ ব্যক্তি রাস্তাটি ধরে আসতেছিল তখন এ দৃশ্য দেখে চমকে উঠেন। রাজার শীষ’রা তার প্রতি অত্যাচার করেন, জমিদারি আমলে অসাহায় ও সাধারণ মানুষ ভয়ে তাদের বাড়ীর সামনে দিয়ে চলাচল করতে পারতোনা।

বাড়ির সামনে দিয়ে বয়ে যাওয়া ডাকাতিয়া নদীতে নৌকা চলাচল করতো নিঃশব্দে, ডাকাতিয়া নদীর কূলে তাদের বাড়ির অবস্থানের নিদে’শকা স্বরুপ সূ- উচ্ছ ৫ টি মঠ নিমা’ন করেন, তাদের আথি’ক প্রতিপত্তির নিদশ’ন স্বরুপ তারা। মঠের শিখরে সব মগুলোর মাঝে স্বন’ পদ স্থাপন করেন। জমিদারি প্রথা বিলুপ্তির পর ঐ স্বনের লোভে মঠের শিখরে উঠার অপচেষ্টায় অনেকে গুরুতর আহত হয়, শুধু তাই নয় কেউ কেউ মৃত্যু বরন করেছে বলেও শুনাযায়, মঠটি কে এবং কবে নিমা’ন করেছিলেন এ ব্যপারে সন্দেহ রয়েছে। তবে কিছু কিছু সূত্র থেকে জানা যায় যে ওই দুই ভাই মিলে এই মঠ গুলো নির্মাণ করেছিলেন।

শুরুতে এখানে পাশাপাশি পাঁচটি মঠ ছিলো, তাদের অত্যাচারে নিরিহ সাধারণ মানুষের অভিশাপে অহংকারেের কারনে ২টি বড় দরনের মঠ মাটির নিছে ঢেবে যায়, তবে বর্তমানে এখানে মাত্র ৩ টি মঠ অবশিষ্ট রয়েছে। বত’মানে টিকে থাকা তিনটি মঠ ভিন্ন ভিন্ন উচ্ছতার, সবচেয়ে লম্বা মঠটি সবচেয়ে দেখতে খুব সুন্দর যেটির উপরিভাগে নিন্মভাগের চেয়ে অনেক বেশি নকশার কাজ রয়েছে, এই মঠটির উপরিভাগ দেখতে অনেকটা প্যাগোডার উপরিভাগের মত। মঠটির উপরে কয়েকটি গত’ রয়েছে যেখানে টিয়াপাখি বসবাস করে।

মানুষজন মঠ গুলোর নিকট ভয়ে কম যাওয়ায় বহুবছর দরে এগুলো জোপ জংগলে ঢেকে ছিল,মানুষজন মনে করতো মঠগুলোতে খারাপ আত্মার আনাগোনা রয়েছে এবং এসব খারাপ আত্মা মানুষকে নিয়ে যায়, অথবা মানুষকে হত্যা করে আর এ কারনেই শত শত বছর মানুষজন একা একা এই মঠের কাছে যাওয়ার সাহস করেনি, তবে এখনকার দিনে দেখে বেশ মনে হচ্ছে এটি একটি দশ’নীয় স্থান হিসেবে বেশ জনপ্রিয়। এই মঠ গুলো দেখার জন্য এখানে প্রতিদিনেই দূর দূরান্তর থেকে আসা যাওয়া মানুষের আনাগোনা দেখা যায়।