জ্ঞান নির্ভর অর্থনীতির মূল কেন্দ্রবিন্দু হবে ‘ভিশন ২০২১ টাওয়ার’ : প্রতিমন্ত্রী পলক

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক -ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক : তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন উদ্ভাবনই হচ্ছে এগিয়ে যাওয়ার মূলমন্ত্র আর দেশের আগামী দিনের অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি হবে স্টার্টআপ। তাদের জন্য সরকার ইনোভেশন ইকোসিস্টেম গড়ে তুলবে।

এই ইনোভেশন ইকোসিস্টেম গড়ে তুলার জন্য আমাদের মূল কেন্দ্রবিন্দুতে থাকবে এই” ভিশন ২০২১ টাওয়ার”। এ টাওয়ার হবে সারা বাংলাদেশের জ্ঞান নির্ভর অর্থনীতির মূল কেন্দ্রবিন্দু। এর সাথে যুক্ত থাকবে দেশের আরো ১০টি বিশ্ববিদ্যালয়।

প্রতিমন্ত্রী আজ বিকেলে কারওয়ান বাজার সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের সভা কক্ষে ‘ভিশন ২০২১ টাওয়ার-২’ তৈরির জন্য গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় কর্তৃক বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের কাছে জমি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন গত ৬ বছরে স্টার্টআপে অনেক বিদেশি বিনিয়োগ আসছে। গত এক মাসে ১০০ মিলিয়ন ডলার বৈদেশিক বিনিয়োগ এসেছে। তিনি বলেন প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের পরামর্শে দেশে ৩৯টি হাইটেক পার্ক , ৬৪টি জেলায় শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে।

বর্তমানে দেশের ৩৮শ ইউনিয়ন অপটিক্যাল ফাইবার ক্যাবলের সাথে সংযুক্ত। এর ফলে দেশে বর্তমানে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ১২ কোটি, আইসিটি উপদেষ্টার নির্দেশে গত ১২ বছরে জযথাযথ অবকাঠামো গড়ে তোলার কারণেই এসব সম্ভব হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, গত কয়েকদিন যাবত ই-কমার্স সেক্টরে অস্থিরতা যাচ্ছে উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, আশ্বস্ত করতে চাই ই-কমার্সের প্রসার হবেই। সব ব্যবসা আস্তে আস্তে ডিজিটাল হতে বাধ্য। এ সেক্টরে নিয়ম, আইন, শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে সরকারি-বেসরকারি সেক্টরের সবাই মিলে ক্রমবর্ধমান এ ইন্ডাস্ট্রি যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয় তার জন্য দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে।

তিনি এ ব্যাপারে যথাযত পদক্ষেপ গ্রহণের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।
তিনি বলেন কাওরান বাজারে তৈরি হবে ১২ তলার ভিশন ২০২১ টাওয়ার ।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরী। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ড. খন্দকার আজিজুল ইসলাম। বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের পরিচালক শফিকুল ইসলাম।