হাতের চিকিৎসা করাতে এসে প্রাণ গেল জুডোকা প্রিয়াঙ্কার

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঙলা প্রতিদিন: মাত্র ১৯ বছর বয়সে দুনিয়া ত্যাগ করলেন জুডো খেলোয়াড় প্রিয়াঙ্কা আক্তার। ২০১৯ এসএ গেমসে বাংলাদেশ জুডো দলের প্রতিনিধিত্বকারী এবং এ বছর বাংলাদেশ গেমসে পদকজয়ী জুডোকা প্রিয়াঙ্কা রাজধানীর গ্রিন লাইফ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন।

কোনো মরণব্যাধি বা বিশেষ রোগ ছিল না প্রিয়াঙ্কার। হাতের এক আঙুলের নার্ভের সমস্যাজনিত অপারেশনের জন্য ২৩ সেপ্টেম্বর হাসপাতালে ভর্তি হন।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, হাতের এই নার্ভের সমস্যা কয়েক বছর ধরেই ছিল। এ সমস্যা নিয়েই জুডোতে পদকের পর পদক জিতেছেন প্রিয়াঙ্কা। হাতের নার্ভের চিকিৎসা করাতে এসে প্রাণ গেল মেধাবী জুডোকারের। হাতের সমস্যা নিয়ে বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) হাসপাতালে যান তিনি।। সেখানে যাওয়ার পর সব ধরনের পরীক্ষা করা হয়েছে, সে সব রিপোর্টও ভালো। অন্য কোনো সমস্যা তার ছিল না। ফলে তার মৃত্যু নিয়ে সন্দেহের সৃষ্টি হয়েছে।

প্রিয়াঙ্কার মৃত্যুর বিষয়ে স্বামী শরীফুল ইসলাম বলেন, ‌একদম জলজ্যান্ত একজন ভালো মানুষ, সিম্পল একটা হাতের অপারেশনের জন্য গ্রিন লাইফ হাসপাতালে যায়। শুক্রবার দুপুরে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে গেলে বিকেলে আমাদের জানান তার অবস্থা নাকি ভালো না। এরপর সেখান থেকে তাকে লাশ হিসেবে বের করা হয়।

শরীফুল বলেন, অপারেশনের আগে যখন তাকে ঘুমের ইনজেকশন দেওয়া হয়েছে, তখন সে স্ট্রোক করেছে বা এমন কিছু একটা হয়েছে বলে হাসপাতাল থেকে আমাকে জানানো হয়েছে।

গ্রিন লাইফ হাসপাতালের অ্যাডমিন অফিসার মো. সোহরাব আলী বলেন, প্রিয়াঙ্কার মৃত্যুর বিষয়ে তার পরিবার, জুডো কর্তৃপক্ষ ও পুলিশ প্রশাসনের সঙ্গে কর্তব্যরত চিকিৎসক অধ্যাপক আর আর কৈরী ও অধ্যাপক ডা. খলিলুর রহমান কথা বলেছেন। অপারেশনসহ তার কী সমস্যা হয়েছিল বিস্তারিত ব্রিফ করেছেন।

কখন, কীভাবে মারা যান- জানতে চাইলে তিনি বলেন, চিকিৎসকরা জানিয়েছেন অপারেশনের শেষের দিকে রোগীর কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয়। তারপর হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন থাকাকালীন অবস্থায় বিকেলে তার মৃত্যু হয়। এখানে ভুল চিকিৎসা বা কর্তব্যে অবহেলার কোনো বিষয়ই ছিল না।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বক্তব্য প্রিয়াঙ্কার পরিবার ও তার শুভাকাঙ্ক্ষীরা মানতে পারছেন না। বিকেএসপির সাবেক শিক্ষার্থী ও হকি খেলোয়াড় ইয়াসিন হিমেল বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি প্রিয়াঙ্কা আক্তার (জুডো-১৭) গ্রিন লাইফ হাসপাতালে ভুল চিকিৎসার কারণে মারা গেছেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও তার চিকিৎসা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।’

প্রিয়াঙ্কার আকস্মিক মৃত্যুতে ক্রীড়াঙ্গনে নেমেছে শোকের ছায়া। তার সাবেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বিকেএসপির সতীর্থরা সবাই শোকাহত। তারা জানিয়েছেন, প্রিয়াঙ্কা খুবই মিশুক প্রকৃতির ছিলেন। সব সময় হাসি মুখে সবার সঙ্গে কথা বলতেন। ভালো মানের একজন খেলোয়াড় ছিলেন। জাতীয় পর্যায়ে তার অনেক পদক রয়েছে। বিকেএসপির শিক্ষা কার্যক্রমের পর তিনি বাংলাদেশ আনসারের হয়ে খেলেছেন বলে জানান তার কোচ ফারহানা হালিম।