আজ বিশ্ব হাসি দিবস

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঙলা প্রতিদিন:
আজ শুক্রবার ( ১ অক্টোবর) বিশ্ব হাসি দিবস । বিশ্বজুড়ে অক্টোবর মাসের প্রথম শুক্রবার পালিত হয় বিশ্ব হাসি দিবস। সব জায়গায় সব সময়ে হাসা যায় না। গম্ভীর মিটিং। আপনার হাসি পাচ্ছে। পাশের বাড়িতে তুমুল ঝগড়া। আপনি থামাতে গিয়ে হেসে ফেলছেন। কীভাবে থামাবেন এই হাসি-রােগ? ব্রিটিশ মনােবিদ ডেভিড রবসন জানাচ্ছেন, এমন অহেতুক হাসি আপনাকে পরে হতাশ করে তুলতে পারে। রবসন এই হাসি-রােগের হাত থেকে মুক্তির কিছু চটজলদি টোটকা বাতলেছেন।

• অকারণে অস্থানে হেসে ফেলার সময়ে মনে রাখুন, জায়গাটা আপনার হাসির পক্ষে প্রশস্ত কি না। চার পাশে তাকান। মনে করুন আপনি কেন সেখানে এসেছেন। মনে রাখতে চেষ্টা করুন সেখানে আপনার ভূমিকাটাই বা কী।

• নিজেকেই নিজে চিমটি কেটে হাসি চাপার টোটকাটা সব দেশে সব জাতের মধ্যেই রয়েছে। রবসনের মতে। এতে কিন্তু ভাল কাজ হয়।

• প্রবল হাসির সময়ে হাসি চাপতে হলে দুঃখের স্মৃতি মনে আনার টোটকাটাও প্রাচীন। কিন্তু এতে সব সময়ে কাজ না-ও হতে পারে। সেই সময়ে কোনও শারীরিক যন্ত্রণার কথা ভাবলে হাসি প্রশমিত হতে পারে।

বছরের ৩৬৫ দিনে প্রায় সাড়ে চারশ’ দিবস পালিত হয়। কিন্তু এমন অনেক দিবস রয়েছে যার কথা সাধারণ মানুষ জানেই। ঠিক তেমনি হাসি দিবস। বিশ্ব পালন করবে দিবসটি। সাড়ম্বরে না হলেও প্রতিবছর বাংলাদেশেও দিবসটি পালিত হয়।

১৯৬৩ সালে শিল্পী হারভে রােজ বল হলুদ রঙের বৃত্তের মধ্যে দুটো চোখ আর একটি অর্ধচন্দ্রাকৃতির মুখের ছবি আঁকেন, যা স্মাইলি হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। স্মাইলির বাণিজ্যিক ব্যবহারে ব্যাপক পরিচিতি পান যুক্তরাষ্ট্রের শিল্পী হারভে। তার চেষ্টায় ১৯৯৯ সাল থেকে অক্টোবরের প্রথম শুক্রবারটি বিশ্ব হাসি দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে।

অবশ্য বিশ্বব্যাপী হাসযােগ আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা ড. মদন কাটারিয়ার ১৯৯৮ সালে ভারতের মুম্বাইতে ভ্রাতৃত্ব ও বন্ধু তৃ ছড়িয়ে দেওয়ার ব্রত নিয়ে ‘হাসি দিবস’ পালন করেন।