মালদ্বীপের কাছে ২-০ গোলে হারলো বাংলাদেশ

স্পোর্টস ডেস্ক: নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে স্বাগতিক মালদ্বীপের বিপক্ষে ২-০ ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ। আগের দুই ম্যাচের তুলনায় এদিন মলিন ছিলো ফুটবলারদের পারফরমেন্স। এই হারে ফাইনাল খেলার সমীকরণ কঠিন হয়ে গেলো অস্কার ব্রুজনের দলের জন্য। সেই সঙ্গে এই মালদ্বীপের বিপক্ষে ১৮ বছর ধরে থাকা জয়ের খরা ঘুচানোর সুযোগটাও হারালো বাংলার ফুটবলাররা।

ঘরের মাঠ, চেনা গ্যালারি। স্বাগতিক দলের সমর্থনে এদিন হাজার চারেক মালদ্বীপ ফুটবল ভক্ত গ্যালারিতে নিজ দলের সমর্থনে ফাটিয়েছেন গলা। ম্যাচ শেষে তার প্রতিদানটাও দিয়েছেন আলী আশফাকরা।

গেল দুই ম্যাচের তুলনায় নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে অনেকটাই ছন্নছাড়া ফুটবল জামালদের। ম্যাচের প্রথম মিনিটে বাংলাদেশের আক্রমণ। বিপলুর দুর্বল শট মালদ্বীপ গোলরক্ষক মোহাম্মদ ফয়সালে আটকা। এরপর বেশ কয়েকটি কাউন্টার এটাক বাংলাদেশের। কিন্তু মালদ্বীপ ডিফেন্সে বাংলার ফরোয়ার্ডদের বারেবার অসহায় আত্মসমর্পণ।

৩৮ থেকে ৪৩ মিনিটের মধ্যে ৩টি আক্রমণ মালদ্বীপের। তারিক-তপুতে বাধা পড়ে সেই আক্রমণগুলো। সাথে বিপদ থেকে আপাতত রক্ষা।

প্রথমার্ধের শেষ বাশি বাজার আগে বক্সের বাইরে ফ্রি কিক পায় মালদ্বীপ। ফ্রি কিক বাধা পড়ে বাংলার ওয়াল জিকোতে। গোলশূন্য থেকে বিরতিতে যায় দু দল।

বিরতি থেকে ফিরে ম্যাচের ৫৪ মিনিটে মালদ্বীপের আলী ফাসিরের এর দূরপাল্লার শট আটকে যায় জিকোতে। তবে ৫৬ মিনিটে হয়নি রক্ষা। কর্নার থেকে বক্সে জটলায় বাইসাইকেল কিকে গোল করেন মালদ্বীপ এর স্ট্রাইকার হামজাহ মোহাম্মদ। উল্লাসে মালদ্বীপ গ্যালারি।

ম্যাচের ৬৬ মিনিটে ৩ পরিবর্তন বাংলাদেশের। বিপলু, রহমত আর ইব্রাহিমের পরিবর্তে সুফিল, সুমন আর জুয়েলে ভরসা রাখতে চেয়েছেন কোচ। কিন্তু তাতে আর বদলায়নি খেলার ধরণ, উলটো ম্যাচের ৭৪ মিনিটে প্রতিপক্ষের ফরোয়ার্ড নিয়াজ হোসেনকে বক্সে সোহেল রানা ফাউল করলে পেনাল্টি পায় স্বাগতিকরা। পেনাল্টি থেকে আলী আশফাকের নিখুঁত ফিনিশিং।

এরপর আর ম্যাচে ফেরা কঠিন হয়ে যায় বাংলাদেশের জন্য। শেষে ২-০ ব্যবধানে হেরে ফাইনাল খেলার সমীকরণটা কঠিন করে ফেললো জামাল-জিকোরা।