কাবাডি খেলায় ত্রিশালের দুলু যেভাবে বহুবার স্বর্ণ পদক পান

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি:
কাবাডি উপমহাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় খেলা। বর্তমানে কাবাডি আন্তর্জাতিক ভাবেও বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। এই খেলা সাধারণত কিশোর থেকে শুরু করে প্রাপ্তবয়স্ক ছেলেরা খেলে থাকে। বিশেষ উৎসব জমজমাট আয়োজনের মধ্য দিয়ে কাবাডি খেলার আয়োজন করা হয়।

সেই কাবাডি খেলে দেশ-বিদেশে কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখেছেন ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের বাহাদুরপুর চকরামপুর এলাকার অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ আশরাফুল ইসলাম দুলু ।

তিনি শুধু বাংলাদেশ নয়। দেশের হয়ে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে কাবাডি খেলে একাধিকবার অংশগ্রহন করে স্বর্ণ পদক জিতেছেন। আশরাফুল আলম দুলু ১৯৮৮ সালে পুলিশ বাহিনীতে কাবাডি খেলোয়ার হিসেবে যোগদান করেন।এরপর ১৯৯১ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত দেশ-বিদেশে কখনো খেলোয়ার আবার কখনো কোচ হিসাবে সর্বমোট ১০ টি স্বর্ণপদক ও ৪ টি রৌপ্য সহ দুটি ব্রোঞ্জ পদক পেয়েছেন। এছাড়াও কাবাডি কোচ ফোর্সে অংশগ্রহন করে ভারত থেকে তিনটি সনদপত্র অর্জন করেন।

তিনি খেলোয়ার হিসেবে জাপান, ভারত, নেপাল, চীন , ইন্দোনেশিয়া সহ বিভিন্ন দেশে সফর করেছেন।

জানাযায়, আশরাফুল ইসলাম দুলু বিভিন্ন কাবাডি প্রতিযোগীতায় ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ, বাংলাদেশ পুলিশ, বাংলাদেশ জাতীয় কাবাডি দলের পক্ষে অধিনায়কের দায়িত্ব পালন ও একাধিকবার শ্রেষ্ঠ খেলোয়ারের পুরস্কার অর্জন করেন। ১৯৮৯ সাল থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কাবাডি দলের নিয়মিত খেলোয়ার ও অধিনায়ক ছিলেন এবং একাধিকবার শ্রেষ্ঠ খেলোয়ার হিসাবে চ্যাম্পিয়ন হন।

১২তম এশিয়ান গেমস ১৯৯৪ সালে হিরোশিমা জাপানে রৌপ্য পদক জিততে সক্ষম হন। ১৯৯৭ সালে জাপান বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ টুনামেন্ট অংশগ্রহন কওে জাপান দলকে পরাজিত করে স্বর্ণপদক পান। তিনি ২০১০ সালে থেকে বাংলাদেশের কাবাডি কোচ হিসেবে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন।

তিনি পুলিশ বাহিনী থেকে অবসরে গেলেও বর্তমানে ১৯ তম এশিয়ান গেমস ২০২২ সালের প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে বাংলাদেশ জাতীয় পুরুষ কাবাডি দলের কোচ হিসাবে নিযুক্ত আছেন। চলতি বছর বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ৫৭ ব্যাটালিয়ান কাবাডি দলের কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

আশরাফুল ইসলাম দুলু জানান, অবসরে গেলেও খেলাধুলার পাশাপাশি এলাকার অসহায় মানুষের পাশে থেকে কাজ করতে চান।