মার্কিন দূতাবাসে রহস্যজনক রোগ হাভানা সিনড্রোমের হানা

বাইরের, ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের রাজ্য সচিব কলম্বিয়া সফরে আসার আগে দেশটিতে ‘হাভানা সিনড্রোম’ রোগের সম্ভাব্যতা যাচাই করছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে বিবিসি এ তথ্য জানায়।

কলম্বিয়ার রাজধানী বোগোতা শহরে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাসের কয়েকজন কর্মী সম্প্রতি এই রহস্যজনক রোগে আক্রান্ত হয়। এর ফলে সবসময় কানে এক যন্ত্রণাদায়ক শব্দ হতে থাকে, এর সঙ্গে যুক্ত হয় ক্লান্তি ও মাথা ঘোরা।

সর্বপ্রথম ২০১৬ সালে কিউবায় প্রথম এই রোগের খবর পাওয়া যায়। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মার্কিন রাষ্ট্রদূতেরা এরপর থেকে এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার খবর দিতে থাকে।

এই রোগের উৎপত্তি সম্পর্কে এখনো কিছু জানা যায়নি। তবে এটি অত্যাধুনিক কোন ‘অস্ত্রের’ প্রভাব বলেও অনেকে মনে করেন।

মঙ্গলবার ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, কলম্বিয়ায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত ফিলিপ গোল্ডবার্গ সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে দূতাবাসের কয়েকজন ‘ব্যাখ্যা করা যায় না’ এমন রোগে আক্রান্ত বলে নিশ্চিত করেন।

কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট ইভান দাকু নিউইয়র্ক টাইমসকে বলেন, এই ঘটনায় তদন্ত চলছে। এই তদন্তে মার্কিন বাহিনী নেতৃত্ব দিচ্ছে বলেও যোগ করেন তিনি।

যেসব মার্কিন নাগরিক এই ‘হাভানা সিনড্রোমে’ আক্রান্ত তারা একে কানে অবর্ণনীয় কষ্টদায়ক এক শব্দ বলে উল্লেখ করেছে। প্রায় ২০০ জনের মত আক্রান্ত কয়েক মাস ধরে ক্লান্তি ও অবসন্নতায় ভুগছেন বলেও প্রতিবেদনে জানানো হয়।

মোট আক্রান্তের অর্ধেকেরও বেশি লোক মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ-এর কর্মী বলে জানায় টাইমস।

শুক্রবার জার্মানির বার্লিনে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাসে ‘হাভানা সিনড্রোম’ নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এর কারণ ও এর জন্য কে দায়ী তা খুঁজে বের করা হবে বলে প্রতিশ্রুতি দেন।

মার্কিন দূতাবাসের যেসকল কর্মচারী এই রোগে আক্রান্ত তাদেরকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার একটি বিলে সাক্ষর করার পর রাষ্ট্রপতি একথা বলেন।

প্রসঙ্গত, কলম্বিয়ার বোগটায় পরবর্তী সপ্তাহে মার্কিন সেক্রেটারি অফ স্টেট অ্যান্থনি ব্লিঙ্কেন সফরে যাওয়ার কথা ছিলো। এর আগেই এমন সংবাদ পাওয়া গেল।

এর আগে গত আগস্টে, ভিয়েতনামে একই ধরণের রোগে দুজন রোগী আক্রান্তের খবরে মার্কিন ভাইস-প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস তার সফর পিছিয়ে দেন।