কিডনি বিক্রির ভয়ংকর তথ্য দিল এলাকাবাসী

প্রতিনিধি, জয়পুরহাট : জয়পুরহাটের কালাই উপজেলার প্রায় ৪০টি গ্রামের সহজ-সরল দরিদ্র মানুষদের কৌশলে নানা প্রলোভন দেখিয়ে কিডনি বিক্রি করতে বাধ্য করছেন দালাল চক্রের সদস্যরা।

দারিদ্র্যের কারণে দালালদের প্রলোভনে মোটা অংকের টাকার চুক্তিতে কিডনি বিক্রির পর তাদের চুক্তির টাকা না দিয়ে উল্টো ওই দালাল চক্রই তাদেরই দিচ্ছেন নানা রকম হুমকি। অনেকেই নিজ বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। কোনো কোনো পরিবার আবার দালালদের মাধ্যমে কিডনি বিক্রি করতে মাসের পর মাস বাড়ি থেকে উধাও হওয়ার অভিযোগ রয়েছে।

স্থানীয় প্রশাসন ও আইন শৃংঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতায় দালাল চক্ররের সদস্যরা ধরাও পড়ছেন মাঝে মাঝে। কেউ আইনের বেড়াজাল থেকে বেড়িয়ে প্রকাশ্যে ঘুরছেন। কিডনি বিক্রির পর নিজেই অপরাধী হওয়ায় প্রশাসনের কাছে মুখ খুলতে পারছেন না তারা।

উল্লেখ্য, ১৯৯৯ সালের অঙ্গ প্রতিস্থাপন আইনের ২ বৎসর থেকে ৩ বছর সশ্রম কারাদণ্ড এবং অনধিক ৫ থেকে ১০ লক্ষ টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ড দণ্ডনীয় হইবেন এমন আইনের বিধান আছে।

স্বদেশ প্রতিদিনের অনুসন্ধান ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ২০১১ সাল থেকে কালাই উপজেলার মাত্রাই ও উদয়পুর ইউনিয়নের প্রায় ৪০টি গ্রামে বেকার, দিন মজুর, ভ্যান চালক, হতদরিদ্র সহজ-সরল মানুষকে টার্গেট করে দালাল চক্র ও দাদন ব্যবসায়ীরা।

তাদের সংসারের অভাবের কারণে কিছু টাকা চড়া সুদে ধার দেন দালাল চক্র ও দাদন ব্যবসায়ীরা। তাদের ধার ও সুদের টাকা সময় মতো না দিতে পারলে শুরু হয় তাদের শরীর থেকে কিডনি খুলে নেওয়ার অভিনব কৌশল।

কাউকে ঢাকায় গার্মেন্টসে চাকরি, কাউকে রিকশা চালানো, কাউকে মিল ফ্যাক্টারিতে কাজের বেশি বেতনের প্রলোভন দেখায়। তারপর তাদের ঢাকায় নিয়ে যায়। কৌশলে দালাল চক্রের চুক্তি করা ক্লিনিক ও হাসপাতালগুলোতে তাদের কিডনি দেওয়ার জন্য ৩ থেকে ১০ লক্ষ টাকা দেওয়া হবে বলে পরীক্ষা করান।

তার পরেই তাদের নির্ধারিত জায়গায় রেখে বিভিন্ন জেলা থেকে পাসপোর্ট ও ভিসা সম্পূর্ণ করে তাদের ভারতে দালালদের চুক্তিকরা হাসপাতালে কিডনি ট্রান্সফারের জন্য পাঠান। কিডনি দেওয়ার পর হাসপাতালের ব্যবস্থাপত্র বা অন্য কোনো কাগজপত্র না দিয়ে শুধু পাসপোর্ট দিয়ে তাদের বাংলাদেশে পাঠানো হয়।

দেশে আসার পরই শুরু হয় তাদের শারীরিক নানা অসুস্থতা ও তারা নিজেই পড়েন আইনি নানা জটিলতায় এবং স্থানীয় প্রভাবশালী দালালদের কাছে টাকা চাইলে চুক্তির টাকা না দিয়ে, দেন নানা রকম হুমকি। এ পর্যন্ত ৬ থেকে ৭টি মামলা হয়েছে। তারা অনেকে জামিনে আছে।

কালাই উপজেলার মাত্রাই মদনাহার গ্রামের আজিজুল ইসলাম বলেন, সংসারের অভাবের কারণে আমি ২০ হাজার টাকা হামিদুল নামে এক প্রতিবেশির কাছে ধার নেই। তার পরে আমি ধারের টাকা দিতে পারি না তখন সে আমাকে টাকার জন্য চাপ দেয়। তখন হামিদুল বলেন টাকা না দিতে পারলে তোর কিডনি বেচ ১০ লাখ টাকা পাবি। আমি বাধ্য হয়ে ও হামিদুলের চাপে ঢাকাতে যায়।

তারা এক হাসপাতালে আমার পরীক্ষা করে কিছু দিন এক ঘরে রেখে (৪১৮৬৩৩৭৮৭১ নাম্বার) পাসপোর্ট করে পরে ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে ভিসা করে আমাকে ভারতে পাঠায় অপারেশন করে কিডনি খুলে নেয়। ভারতে ৭-৮ মাস থেকে ২২ জুলাই ২০২০ তারিখে বাংলাদেশ পাঠায়।

দেশে এসে দালাল হামিদুলের কাছে ১০ লাখ টাকা চাইলে সর্বমোট সাড়ে ৩ লাখ টাকা আমাকে দিয়েছে। বাকি টাকা চাইলে আমাকে হুমকি দেয়। আমার ডান ধার ব্যাথা করে। আমি কাজ করতে পারি না ।

কালাই উপজেলার কুসুমসাড়া গ্রামের অটোরিকশা চালক মো. মোস্তফা বলেন, আমার কোনো জমিজমা নেই। আমি খুব গরিব মানুষ। কয়েক বছর আগে মেয়েদের বিয়ে দেওয়ার জন্য আমি কলকাতায় কিডনি বিক্রি করেছি।

এখন কোনো মতো অটোরিকশা চালাই শরীরটা ভালো নয় ব্যথা করে। কী করব ভাই অভাবের তাড়নায় করেছি। কুসুমসাড়া এলাকার রাজমিস্ত্রীর হেলাপারের স্ত্রী কারিনা বেগম বলেন, আমাকে ঢাকায় গার্মেন্টসে ভালো বেতনে চাকরির কথা বলে প্রতিবেশী এক দালাল আমাকে ঢাকায় নিয়ে যায়।

সেখানে গার্মেন্টসে কাজ করা অবস্থায় সাড়ে ৬ লাখ টাকা দিবে ছোট একটা কিডনির অপারেশন করলে, এমন প্রলোভন দেখিয়ে আমার পরীক্ষা নিরীক্ষা করে ভারতে নিয়ে গিয়ে কিডনি খুলে নেয়। তার কাছে টাকা চাইলে উল্টো দিকে আমাকেই হুমকি দেয়। পরে বাধ্য হয়ে চেয়ারম্যান মেম্বারের কাছে দারে দারে ঘুড়ে বিচার বা টাকা না পেয়ে আদালতে মামলা করেছিলাম মামলার পর আসামীরা কেউ গ্রেফতার হয়নি।

পরে স্থানীয় প্রভাবশালীদের হস্তক্ষেপে ৩ লাখ টাকা দিয়ে আপোষ করতে বাধ্য করে। আপোষের পর এই মামলার আসামীরা প্রকাশেই ঘুরছেন এবং আমাদের হুমকির মধ্যে রেখেছে। আমরা গরিব মানুষ ১ শতক জমিও নেই আমার স্বামীর, পরের জায়গায় থাকি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকে বলেন, দিন দিন দালালদের দৌড়াত্ত ও কিডনি বিক্রেতা বাড়ছে। স্থানীয় প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় কালাই উপজেলার ২০/৩০ জন মহাজন প্রকৃতির দালাল ও দাদন ব্যবসায়ী একটি কিডনি বিক্রি চক্রের শক্তিশালী নেটওয়ার্ক গড়ে তুলে ৫ শতাধিক কিডনি এই এলাকা থেকে বিক্রি করেছে।

আগে দালালদের ধরতে হবে ও শাস্তি দিতে হবে। এছাড়াও এলাকাবাসীরা জানান কুসুমসাড়া, মদনাহার, দিঘীপাড়া গ্রামের পরিবারসহ বসতবাড়িতে তালা দিয়ে কিডনি বিক্রি করতে গেছে।

এছাড়াও মদনাহারের হামিদুলের ছোট ভাই আমিনুর কিডনি বিক্রি পর সে নিজেই দালাল চক্রের সদস্য হয়েছে। এমন অনেকেই কিডনি বিক্রির পর হয়ে যাচ্ছেন দালাল।

উপজেলার মাত্রাই ইউনিয়নের মদনাহার গ্রামের গ্রেফতারের আগে দালাল হামিদুল ইসলাম স্বদেশ প্রতিদিনকে বলেন, আজিজুলের কিডনি বিক্রি করিনি। আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।

অনুসন্ধান চলাকালে উদয়পুর ও মাত্রাইয়ের বিভিন্ন্ গ্রামের অনন্য কিডনি বিক্রেতারা ও দালাল চক্রের সদস্যরা এলাকায় গাঁ ঢাকা দেন, তাদের পাওয়া সম্ভব হয়নি।

উপজেলার মাত্রাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আ ন ম শওকত হাবীব তালুকদার লজিক এবং উদয়পুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ওয়াজেদ আলী দাদা স্বদেশ প্রতিদিনকে বলেন, যারাই কিডনি বিক্রি করছেন তারাই আবার দালাল হয়ে যাচ্ছেন। হটাৎ করে কিডনি বিক্রির প্রবণতা বেশি শোনা যাচ্ছে।

স্থানীয় প্রশাসন ও আমরা জনপ্রতিনিধিরা তাদের সচেতন ও কিডনি বিক্রি বন্ধ করতে সভা সেমিনারসহ নানা কর্মসূচি নিয়মিত করা হয়। এছাড়াও কিডনি বিক্রি দালাল চক্রের কোনো তথ্য পেলেই আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে জানানো হয়।

কালাই থানার অফিসার ইনচার্জ সেলিম মালিক বলেন, কিডনি বেচাকেনা যেকোনো অভিযোগ বা তথ্য পেলেই আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়া হচ্ছে। জয়পুরহাট সিভিল সার্জন ডা. ওয়াজেদ আলী বলেন, একটি কিডনি বিক্রি করলে ২ কিডনির বদলে ১টি কিডনির উপর চাপ পড়ে শরীরে নানা রকম ক্ষতি ও সমস্যা হতে পারে। সরাসরি আইন প্রয়োগ করা আমাদের সুযোগ নেই।