চলচ্চিত্র প্রয়াস ‘মনোলোক’

আনন্দ ঘর প্রতিবেদক, বাঙলা প্রতিদিন:
রাজধানীর ‘গুলশান ক্লাব’ লেমডা হলে অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো হাফিজ আলম বক্স্ প্রযোজিত এবং শহীদ রায়হান রচিত ও পরিচালিত ব্যতক্রমধর্মী পূর্ণদৈর্ঘ্য মনস্তাত্বিক চলচ্চিত্র প্রয়াস ‘মনোলোক’ এর শুভ মহরত। আজ বুধবার (১৭ নভেম্বর) অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সব্যসাচী সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, প্রাক্তন সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, এমপি।

স্বাধীন বাংলাদেশের অনিবার্য অভূদ্যয়, স্বাধীনতা উত্তর রাজনৈতিক প্রবাহ, স্বাধীনতার পক্ষ- বিপক্ষ, বিরাজমান মতবিরোধ এবং রাজনৈতিক জীবনে তাঁর প্রতিফলন ঘটেছিল যেসব গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, তাদের অচেতন মনের অব্যক্ত চেতনা এবং দর্শন নিয়ে বাস্তবের মননভূমিতে দাঁড় করানোর এই দীর্ঘ প্রস্তুতিরই আজ ছিলো আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন।

বলতে গেলে এ ছিলো দেশবাসীর হৃদয়ে স্বাধীনতার দীর্ঘ লালিত স্বপ্ন, বাংলাদেশ ও এর বিরোধিতার দর্পণে নতুন করে অবলোকনের এক বিরল ও বিমূর্ত দার্শনিক যুদ্ধের বুদ্ধিবৃত্তিক রণক্ষেত্র।

নির্মাতা শহীদ রায়হান এর সুদৃঢ় বিশ^াস, ‘মনোলোক’, চলচ্চিত্রের রূপালী পর্দার বাইরে বাস্তবের নিকষ সাদা-কালো জগতে দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব ও গণমানুষের মনন জগতে এক দুর্ভেদ্য মানসিক সুরক্ষা বলয় নির্মানে এবং জাতীয় জীবনে শত্রু-মিত্র নির্ণয়ে সুদূরপ্রসারী ভূমিকা রাখবে।

চলচ্চিত্র প্রয়াস ‘মনোলোক’ এর আখ্যানভাগে বিন্যস্ত হয়েছে স্বাধীনতা এবং স্বাধীনতা-বিরোধিতার রাজনৈতিক অবস্থান ও দার্শনিক চিন্তাধারা এবং গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা-রাখা কিছু মানুষের অপ্রকাশিত মানসিক গতি-প্রকৃতির কাল্পনিক বিশ্লেষণ ও সংলাপে বিন্যস্ত করার এক অতি স্পর্শকাতর প্রচেষ্টা, যা হয়তো বা বাস্তবের প্রকাশিত অবস্থানের পরিচিত ধারণাকেও উত্তীর্ণ করবে তাদের নির্ভৃত মননের অব্যক্ত, অপ্রকাশিত ধারণা-কাঠামোকে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে খ্যাতিমান নাট্য ও সংস্কৃতি ব্যক্তিত্ব আসাদুজ্জামান নূর তাই যথার্থই এ উদ্যোগকে অভিষিক্ত করেছেন ব্যতক্রর্মী বিভূতি এবং সপ্রশংস অভিনন্দনে। প্রচলিত চিত্ররীতির গন্ডি ছাড়িয়ে যুক্তরাজ্যে প্রবাসী চিত্রানুরাগী, এটিএন বাংলা ইউকে এর প্রধান নির্বাহী ও মনোলোক এর প্রযোজক হাফিজ আলম বক্স্ ও এ সময়ের নিষ্ঠাবান কৃতি চিত্রনির্মাতা শহীদ রায়হানের এই সাহসী উদ্যোগে সাথী হয়েছেন তার বেশ কয়েকজন চিত্র-সতীর্থ, যাদের সুযোগ্য সহায়তা এবং পরামর্শ এই উদ্যোগকে পূর্ণতার দিকে অনেকটাই এগিয়ে দিয়েছে।

এই ঐতিহাসিক মনোচিত্র প্রস্ফুটনের চরিত্র-বিন্যাস ছিলো আর এক কঠিন অভিযাত্রা যাতে স্বতঃস্ফূর্ততার সাথে সঙ্গী হয়েছেন দেশের মঞ্চ ও চিত্রাকাশের এক গুচ্ছ খ্যাতিমান পেশাজীবী অভিনয়শিল্পী, যাঁদের মধ্যে রয়েছেন- নিপুন,ফজলুর রহমান বাবু, দিপা খন্দকার,সমু চৌধুরী, এম এ বারী, এ কে আজাদ সেতু,জয়িতা মহালনবিশ, নেয়াজ তারেক, মাসুদ মহিউদ্দিন, আশরাফুল আশীষ, আরিয়ান প্রমূখ। প্রধান চিত্রগ্রাহকঃ সাহিল রনি, কস্টিউম ডিজাইনারঃ পৃথি মনি, শিল্প নির্দেশনাঃ রহমত উল্লাহ বাসু। মেক-আপ- মহম্মদ আলী বাবুল। শ্যুটিং স্টুডিওঃ নাইন এ্যান্ড হাফ।

এই আনুষ্ঠানিক সূচনাপর্বে সবার অভিন্ন উপলক্ষ্য ছিলো দেশপ্রেমিক ও সচেতন দর্শক, যাদের সাদর গ্রহণযোগ্যতা এবং প্রশংসা অথবা সমালোচনার জন্য অধীর প্রতীক্ষা সমগ্র ‘মনোলোক টিম’ এর অভীন্ন প্রত্যাশা।