ঢাকা গ্যালারিতে নাজিয়া আন্দালিব প্রিমার দ্য মিস-ট্রেইস – (ভুল-দাগ)

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঙলা প্রতিদিন : দেশের সবচেয়ে প্রগতিশীল, প্রথিতযশা, এবং বিশিষ্ট দৃশ্য শিল্পী নাজিয়া আন্দালিব প্রিমা (চেয়ার, প্রেমা আর্টে ফাউন্ডেশন; প্রতিষ্ঠাতা, বাংলাদেশ ক্রিয়েটিভ ফোরাম; প্রেসিডেন্ট, উইমেন ইন লিডারশিপ; পরিচালক, বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরাম) তাঁর একটি কন্সেপচুয়াল শিল্প প্রদর্শনী ‘দ্য মিস-ট্রেইস (ভুল -দাগ)’ সম্প্রতি রাজধানীতে উদ্বোধিত হয়েছে।

এই প্রদর্শনীতে শত শত শিল্পপ্রেমিক এবং শিল্পানুরাগি অংশগ্রহণ করেছেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়েছে ঢাকা গ্যালারিতে – যারা এই প্রদর্শনীর গর্বিত আয়োজক ছিলেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সম্মানিত প্রধান অতিথি ছিলেন জনাব আসাদুজ্জামান নূর, এমপি। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট শিল্পী, অধ্যাপক মোহাম্মদ ইউনুস; মিসেস সারা যাকের, থিয়েটার অভিনেতা/পরিচালক; জনাব আলী রেজা ইফতেখার, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও, ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড এবং মোস্তফা খালিদ পলাশ, প্রতিষ্ঠাতা, ঢাকা গ্যালারী।

মিস-ট্রেইস (ভুল-দাগ), একটি অনন্য প্রদর্শনী যা শিল্পীর পরিচয় এবং তার অবিভক্ত চিন্তাধারনার প্রতিফলন। প্রিমা – একজন শিল্পানুরাগি এবং উদ্ভাবনী গুণসম্পন্ন শিল্পী যিনি বিগত ২৫ বছর ধরে শিল্প নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে আসছেন। অসামান্য চিন্তাধারা এবং সৃজনশীলতার মাধ্যমে, তিনি ভিজ্যুয়াল এক্সপ্রেশন এবং উদ্ভাসনের মধ্যে সফল সংযোগ স্থাপন করতে পেরেছেন। তিনি একজন ভিন্নধর্মী শিল্পী যার অনুশীলনের প্রক্রিয়াও শিল্প ও শিল্পের অন্তর্নিহিত অর্থের প্রতি উপাসনা । এই প্রদর্শনীটিতে ৫০ টিরও বেশি শিল্পকর্মের প্রতিনিধিত্ব করবে যা প্রিমা একজন একাকী নারী হিসাবে তাঁর অপরিসীম যাত্রার বর্ণনা দিয়ে তৈরি করেছেন। তিনি বাংলাদেশের শিল্প জগতের একজন বিদ্রোহী শিল্পী এবং একজন স্বাধীন নারীর স্বাক্ষর।

১৯ই নভেম্বর ২০২১ তারিখে মিস-ট্রেইস (ভুল-দাগ) এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সাথে সাথে এই প্রতিভাবান শিল্পীর জন্মদিনও। প্রদর্শনীটি ২০শে নভেম্বর ২০২১ থেকে ৩রা ডিসেম্বর ২০২১ থেকে প্রতিদিন দুপুর ০৩:৩০ থেকে রাত ০৮:০০ পর্যন্ত সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

নাজিয়া আন্দালিব প্রিমা, বাংলাদেশের একজন প্রগতিশীল ও সৃজনশীল শিল্পীদের মধ্যে একজন, তিনি একই সাথে একজন উদ্যোক্তা এবং একজন সক্রিয় সৃজনশীল কর্মী। তাঁর মননশিল ও অতুলনীয় কাজ ক্রমাগত বাংলাদেশি নারীদের প্রথাগত চিন্তাধারাকে ভাবাতে বাধ্য করে। ২০১৯ সালে ৫৮তম ভেনিস বিয়েনেলে বাংলাদেশ জাতীয় প্যাভিলিয়নে প্রিমার কাজ উপস্থাপন করা হয়েছে। তাঁর কাজগুলি এশিয়ান আর্ট বিয়েনাল, ফুকুওকা মিউজিয়াম রেসিডেন্সি, তাসখন্দ বিয়েনাল, ইস্তানবুল বিয়েনাল, ভেনিস ইন্টারন্যাশনাল আর্ট এক্সপো (২০১০, ২০১২), ক্যানস ২০১২-এ প্রদর্শিত হয়েছে। কাজগুলো আরও প্রদর্শিত হয়েছে বিশ্বের বেশ কিছু মর্যাদাপূর্ণ আর্ট ফেস্টিভালগুলোতে (আর্ট বাসেল মায়ামি, টুয়ুপ আর্ট ফেয়ার/ইস্তানবুল, দুবাই আর্ট ফেস্টিভ্যাল, ঢাকা আর্ট সামিট, দিল্লি ইন্টারন্যাশনাল আর্ট ফেস্টিভ্যাল), গ্যালারি এবং জাদুঘরে। তাঁর কিউরেটরিয়াল প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে বেশ কয়েকটি বড় আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী (বাংলাদেশ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স)। নিজস্ব সৃজনশীল প্রক্রিয়ায় তিনি তাঁর পরীক্ষামূলক কৌশলগুলির মাধ্যমে, শুধুমাত্র শিল্পে নয়, মধ্যস্থতার সাথে বিভিন্ন মিডিয়ার সমস্ত বিন্দুকে সাফল্যের সাথে সংযুক্ত করেছেন। তিনি ক্রমাগত শেখার মাধ্যমে এবং নিজেকে চ্যালেঞ্জ করার মাধ্যমে একজন ব্যতিক্রমী শিল্পীতে পরিণত হয়েছেন। প্রিমা এমন একটি নাম যা তার নিজস্বতার মাধ্যমে সত্যিই অনন্য।