অবশেষে মারা গেলেন দগ্ধ মা-ছেলে

মুগদায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঙলা প্রতিদিন : রাজধানীর মুগদায় একটি বাসায় গ্যাস লিকেজ থেকে সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ চারজনের মধ্যে মা ও ছেলে অবশেষে না ফেরার দেশে চলে গেলেন।

নিহতরা হলেন-প্রিয়াংকা বাড়ৈ (৩২) ও তার পাঁচ বছরে ছেলে অরুপ বৌদ্ধ ওরফে রউফ।

সোমবার দিবাগত রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বার্ন ইনস্টিটিউটের আইসিইউতে তাদের মৃত্যু হয়।

এঘটনায় একই পরিবারের ৪ জন দগ্ধ হয়। তারা হলেন: সুধাংশু বৌদ্ধ (৩৫), তার স্ত্রী প্রিয়াংকা বাড়ৈ (৩২), একমাত্র ছেলে অরুপ বৌদ্ধ ওরফে রউফ(৫) ও সুধাংশুর শাশুড়ি শেফালী রাণী বাড়ৈ (৫৫)।

আজ ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (ওসি) মো. বাচ্চু মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আজ মঙ্গলবার সকালে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. এস এম আইয়ুব হোসেন সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সোমবার সকাল সাড়ে ৭ টার দিকে রাজধানীর মুগদা মাদবর গলি ৩৭ নং বাড়ি পাঁচতলা বাসার নিচতলায় রান্নাঘরে এ ঘটনা ঘটে। দগ্ধ অবস্থায় তাদের সবাইকে সকাল ৯ টার দিকে উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। তাদের মধ্যে চিকিৎসাধীন প্রিয়াঙ্কা ও তার পাঁচ বছরের ছেলে অরূপ হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) মারা গেছে।

পুলিশ ও হাসপাতাল সূএে জানা যায়, প্রিয়াঙ্কা সোমবার দিবাগত রাত ২ টার দিকে ও তার ছেলে রাত ১১টার দিকে মারা গেছে। প্রিয়াঙ্কা শরীরের ৭২ শতাংশ ও তার ছেলের শরীরে ৬৭ শতাংশ বার্ন ছিল। এছাড়া চিকিৎসাধীন প্রিয়াঙ্কার মা শেফালী (৫৫) ও প্রিয়াঙ্কার স্বামী সুধাংশু (৩৬) অবস্থাও আশঙ্কাজনক। তাদের মধ্যে প্রিয়াঙ্কার মার শরীরের ৩৫ শতাংশ ও প্রিয়াঙ্কার স্বামীর শরীরের ২৫ শতাংশ বার্ন রয়েছে।

দগ্ধ প্রিয়াংকার বড় ভাই পলাশ বাড়ৈ জানান, তার বোন পরিবারসহ গ্রামের বাড়ি শরিয়তপুর জেলার ভেদেরগঞ্জ উপজেলার নারায়ণপুর গ্রামে থাকেন। বোন জামাইয়ের পেট ব্যাথার চিকিৎসার কারণে গত পরশু পরিবার নিয়ে ঢাকায় আসেন। মিটফোর্ড হাসপাতালে চিকিৎসা চলছিল তার। সকালে ঘুম থেকে উঠে প্রিয়াংকা পানি গরম করতে রান্না ঘরে যায়। গ্যাসের চুলা চালু করে দিয়াশলাই জ্বালাতে রান্না ঘরে বিকট শব্দ হয়। এতে বাসায় থাকা তারা ৪ জনই দগ্ধ হন।

এদিকে, মুগদা থানার উপ পরিদর্শক (পি-এসআই) ইব্রাহিম খলিল জানান, আগুনে বাসার অধিকাংশ জিনিসই পুড়ে গেছে। জানালার গ্লাসও ভেঙে গেছে। ধারণা করা হচ্ছে চালু করে রাখা গ্যাসের চুলা থেকে রান্না ঘরে গ্যাস জমে ছিলো। আগুন জ্বালাতেই গ্যাস বিস্ফোরণ হয়েছে।

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (ওসি) মো. বাচ্চু মিয়া আরো জানান, মুগদা এলাকা থেকে গ্যাস লিকেজ থেকে বিস্ফোরণ হয়ে দগ্ধ চারজন আসছে। তাদের মধ্যে দু’জন মারা গেছে। তাদের মরদেহ মর্গে রাখা হয়েছে। এ বিষয়টি মুগদা থানা পুলিশকে অবগত করা হয়েছে।