শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০১:৫৩ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
‘কোস্ট গার্ডের উপ-মহাপরিচালক কর্তৃক VBSS Course for Officer এর ব্যবহারিক প্রশিক্ষণ পরিদর্শন ও সনদপত্র প্রদান ২০২২ সালের প্রথমার্ধে মেটলাইফের ১,২৭৯ কোটি টাকার জীবন বিমা দাবি নিষ্পত্তি টঙ্গী বন্ধু সমাজ কল্যাণ সংস্থার প্রধান কার্যালয় উদ্বোধন দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জে সাড়ে ৩৩ লক্ষ টাকার ইয়াবাসহ ১ জন গ্রেফতার ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক ও রবি মােবাইল অপারেটরের মধ্যে চুক্তি সই সেপ্টেম্বর থেকে নির্বাচন পর্যন্ত রাজপথ দখলে রাখবে আওয়ামী লীগ : তথ্যমন্ত্রী জাকজমক ভাবে অনুষ্ঠিত হলো ওমেন্স ইরার সবচেয়ে বড় বিজনেস সামিট বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর ১১তম এয়ারক্রাফ্ট এক্সিডেন্ট ইনভেস্টিগেশন কোর্সের সনদ বিতরণ অনুষ্ঠিত বাহার ঢাকা বিভাগ ও মহানগরের নতুন কমিটি নিম্নআয়ের মানুষ ১০০ টাকায় কবর দিতে পারবেন ডিএনসিসির কবরস্থানগুলোতে অনলাইন কেনাকাটায় বিকাশ পেমেন্টে ইনস্ট্যান্ট ক্যাশব্যাক সাউথইস্ট ব্যাংকের ৮% নগদ এবং ৪% বোনাস লভ্যাংশ ঘোষনা

ডিজেলের বোঝা মাথায় নিয়ে আগাম আলু চাষে ব্যস্ত কৃষক

শাহিন হোসেন, দিনাজপুর : আগের বার (গতবার) আলু লাগায় (রোপন করে) কোন লাভ পাই নাই, ২০ হাজার টাকা লোস (লোকশান) হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত গরু-বাছুর বিক্রি করে মহাজন সুজতে (পরিশোধ) হয়েছে।

সেই টাকা এখনও মহাজন সুজা (পরিশোধ) হয়নি, এখনও বাকী আছে। আস্তে আস্তে সুজতে (পরিশোধ) হচ্ছে। তারপরও ধার মহাজন করে আলু লাগাতে (রোপন) হচ্ছে। কি করব কৃষি কাজ করে চলা যাবে না।

এভাবে গৃহস্থবাড়ী (কৃষি) করতে হচ্ছে, উল্টা-পাল্টা করে। এপাখের (এপাশের) মহাজন করছি, এপাখে (এপাশে) সুজছি (পরিশোধ)। ওপাখের (ওপাশের) মহাজন করছি, ওপাখের (ওপাশের) সুজছি (পরিশোধ)। এভাবে গৃহস্থী করছি। তারপরও বিষ (কীটনাশক) ধারবাকী (বকেয়া) অনেক হয়েছে।

প্রায় ৩০ হাজার টাকার মত বিষ (কীটনাশক) বাকী (বকেয়া)। আলুর বীজ বাকী হয়েছে ৫০ হাজার টাকার মতন (মত)। এগুলা কিভাবে শোধ করব। ওর (আমার) মনে হয় যদি আলু লোস (লোকসান) খাই (হয়) তাহলে তো মহাজন সুজা (পরিশোধ) খুব কঠিন মুশকিল। আর যদি লাভ হয় তাহলে মহাজন সুজতে (পরিশোধ) পারব। না হলে কৃষকরা আমরা বাঁচবো না।

এবার আগাম আলু ২ বার লাগাতে হয়েছে। প্রথমবার আলু নষ্ট হয়ে গেছে। আগাম আলুটাতে যদি দাম পাই, তাহলে কিছুটা লাভ হবে। এমনিতে সার-বীজের (কীটনাশক ও বীজ) অনেক দাম। তার উপর সরকার এবার ডিজেলের দাম ১৫ টাকা বাড়াইছে। তাকে করে আমাদের লোস (লোকশান) ছাড়া কিছু দেখা পাচ্ছি না। সরকার যদি তেলের দাম কমায় তাহলে আমরা কৃষকরা বাচতে পারব, নইলে আমরা মরে যাব।

এভাবে নিজের আক্ষেপের কথা সামনে প্রকাশ করছিলেন দিনাজপুর সদর উপজেলার উলিপুর গ্রামের কৃষক কুশল চন্দ্র রায়।

দেশের শীর্ষ খাদ্য উৎপাদনকারী জেলা হিসেবে পরিচিত দিনাজপুর জেলায় গত ১ সপ্তাহ ধরে আগাম জাতের আলুর বীজ রোপনের কার্যক্রম চলছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে- এ পর্যন্ত জেলায় ১০ ভাগ আগাম আলুর বীজ রোপন সম্পন্ন করা হয়েছে। এবছর আগাম ও পরের জাত সব জেলার ১৩টি উপজেলায় ৪৮ হাজার ৫৯০ হেক্টর জমিতে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এই জমিগুলো থেকে ১০ লাখ ৫৯ হাজার ৭৪৮ মেট্রিক টন আলু উৎপাদন হবে। গত বছর জেলার ৫০ হাজার ২১৭ হেক্টর জমিতে ১০ লাখ ৮০ হাজার ২০০ মেট্রিক টন আলু উৎপাদন হয়েছিল। চলতি বছর প্রথম পর্যায়ে আগামী ৩০ থেকে ৩৫ দিনের মধ্যে আগাম জাতের আলু বাজারে উঠতে পারে বলে আশা প্রকাশ করেছেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক প্রদীপ কুমার গুহ।

শুধু কুশল চন্দ্র রায়’ই নয়। তার মত বহু আগাম জাতের আলু চাষীর মাথায় ডিজেলের মুল্য বৃদ্ধির বোঝা হয়ে দাড়িয়েছে।

একই গ্রামের আগাম আলু চাষী আক্তারুজ্জামান বলেন, আগাম জাতের আলুর আমরা রোপন করেছি। এর মধ্যে কিছুটা নষ্ট হয়েছে, কিছু ভালো আছে। এখন আশা রাখছি এখন দাম ভালো পাওয়া যায়। না হলে তো লোস হয়ে যায়। তার উপর সার ও তেলের দাম বেশি। সার ও তেলের দাম বেশির কারণে আমাদের কতটা পোষাবে (লাভ) আমরা এখন এই মুহুর্তে বলতে পারব না।

তবে আশা করি যদি হয় তবে তো হবে, না হলে তো আর কিছু করার থাকতে না। আমাদের কৃষকদের অবস্থা দুরাবস্থা। সব সময় দুরাবস্থা। সরকার যদি আমাদের কৃষকদের সহযোগিতা করে, তাহলে তো হয়। কিন্তু এখন কৃষকদের কথা বিবেচনা করে সার ও তেলের দামে কিছুটা ভর্তুকি দেয়, তাহলে আমরা কৃষকরা বাঁচি। কিন্তু কৃষকদের যে অবস্থা, বর্তমানে অনেক কৃষক জমি ছাড়ে দিচ্ছে।

আগাম আলু চাষী রুহুল আমিন জানান, আমরা আগাম আলু ৪ বিঘা জমিতে রোপন করেছি। এর মধ্যে ১ বিঘার বীজ নষ্ট হয়েছে। এমনিতেই সব কিছুর দাম বেশি। এর মধ্যে আবার ডিজেলের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়ছে। এতে আমাদের খরচ অনেক বেড়ে গেছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সূত্রটি জানায়, আগাম জাতের মধ্যে গ্যানোলা ও কারেজ জাতের আলুর বীজ রোপন করা হয়েছে। যা আগামী ৩০ থেকে ৩৫ দিনের মধ্যে বাজারে পাওয়া যাবে। এছাড়াও আমন ধান কর্তনের পর জমিগুলোতে সারা বছর খাওয়ার মত আলুর বীজ রোপন করা হবে। এর মধ্যে ডিসেম্বরে ডায়মন্ড, কার্টিলাল, স্টারিজ, দেশী জাতের চল্লিশা, রোমানা, পেট্রোনিজ রোপন করা হবে। এছাড়াও জানুয়ারী মাসের শুরুতেই হাইব্রিড লেডিরোসেটা, বারী-২, বারী-৯, এটলাস ও দেশী জাতের স্থানীয় আলু লাল পাকড়ি, সাদা পাকড়ি, বগড়াই, সেলবিলাতী, কাবেরী, জলপাই, সাদপাটনায় ও লালপাটনায় আলুর বীজ রোপন করা হবে। সব মিলিয়ে এক দিকে আগাম জাতের আলুর বাজারে উঠবে এবং সারা বছর খাওয়ার আলুর বীজ রোপন করা হবে। ডিসেম্বর ও জানুয়ারীতে রোপন করা আলু এপ্রিল মাসে বাজারে উঠবে।

এদিকে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক প্রদীপ কুমার গুহ বলেন, লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী আলুর ফলন অর্জন করতে কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে কৃষকদের ক্ষেত পরিচর্যা, বালাই নাশক, কীটনাশক ব্যবহার ও প্রয়োজনীয় পরামর্শ ও সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে। তবে আগাম জাতের আলুর বীজ রোপনের সময় বৃষ্টি হওয়ায় কিছু বীজ নষ্ট হয়ে গেছে। তবে সে জায়গায়গুলোতে কৃষকদের আবারও বীজ রোপনের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। দিনাজপুর কৃষি বিভাগ সব সময় কৃষকদের আপদে-বিপদে পাশে থাকবে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 www.banglapratidin.net
ব্রেকিং নিউজ :

This will close in 3 seconds