পাকিস্তানি সেনাদের আত্মসমর্পণ শুরু

হাসান রাউফুন : ১৯৭১ সালের ১৩ ডিসেম্বর মুক্তিবাহিনীরা ঢাকায় ঢুকে পড়ে। নিরস্ত্র জনতা রাস্তায় নেমে আসে। চারদিকে উড়তে থাকে বাঙালির বিজয় নিশান। বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় শত শত পাকিস্তানি সেনা আত্মসমর্পণ করে।

ময়নামতিতেই আত্মসমর্পণ করে এক হাজার ১৩৪ জন। আর সৈয়দপুরে আত্মসমর্পণ করে ৪৮ পাঞ্জাব রেজিমেন্টুের অধিনায়কসহ ১০৭ পাকিস্তানি সেনা।

খুলনা, বগুড়া ও চট্টগ্রামে হানাদারদের সঙ্গে মুক্তিবাহিনী ও স্থানীয় মানুষের অবিরামযুদ্ধ চলে। নজিবনগল্পে তখন চরম উত্তেজনা। যৌথবাহিনী জয়দেবপুর, টঙ্গী ও সাভার হয়ে ঢাকার উপকণ্ঠে উপস্থিত হয়।

লেকর্নেল শফিউল্লাহর ‘এস ফোর্স ঢাকার উন্দেশে রওনা হয়ে ঢাকার উপকণ্ঠে ডেমরা পৌছায়। বাংলাদেশের নিয়মিত বাহিনীর সর্বপ্রথম ইউনিট হিসেবে ঢাকার শীতলক্ষার পূর্বপাড়ে পাড়ায় পেীছায়। নীলফামারী, মানিকগঞ্জ ও বগুড়া জেলা পাক হানাদার মুক্ত হয়।

রেডিও পাকিস্তান ঢাকা কেন্দ্রের অনুষ্ঠান বন্ধ হয়ে যায়। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের স্টুডিওতে বসে বার্তা বিভাগীয় প্রধান কামাল লােহানী, আলী যাকের ও আলমগীর কবির ঘন ঘন সংবাদ পরিবেশন করেন ঢাকা ছাড়া বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা মুক্ত।

যুদ্ধ জয়ের নিশ্চয়তা জেনেই বাংলাদেশের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয় নজরুল ইসলাম এবং প্রধানমন্ত্রী তাজউনি আহা এক বিবৃতিতে বলেন, ‘বাংলাদেশ থেকে জাতিসংঘের যেসব কর্মী, কুটনৈতিক, প্রতিনিধি ও বিদেশি নাগরিক নিরাপদে সরে আসতে চান বাংলাদেশ সরকার তাদের সম্ভাব্য সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা দেবে।’