বুদ্ধিজীবী নিধনের নীলনকশা প্রণয়ন

হাসান রাউফুন : ১৪ ডিসেম্বর জয় বাংলা স্লোগান দিয়ে শত শত মুক্তিবাহিনী ফাঁকা গুলি বর্ষণ ও উল্লাস করতে করতে জয়পুরহাটের ডাকবাংলােতে প্রবেশ করে। পাকিবাহিনী ও রাজাকার, আলবদররা পালিয়ে বগুড়া ও ঘােড়াঘাটের দিকে যায়। জয়পুরহাটের ডাকবাংলাে প্রাঙ্গণে প্রথম স্বাধীনতার মানচিত্র খচিত পতাকা উত্তোলন করেন বাঘা বাবলু (মুক্তিবাহিনী কমান্ডার খন্দকার আসাদুজ্জামান বাবলু)। মুক্ত হয় জয়পুরহাট, চাপাইনবাবগঞ্জ, সিরাজগঞ্জ। মুক্তিবাহিনীদের আক্রমণে টিকতে না পেরে মধ্যরাতে পাকবাহিনী ঈশ্বরদীর অভিমুখে পালিয়ে যায়।

ভোর রাতে হাজার হাজার জনতা জয় বাংলা স্লোগান দিয়ে সিরাজগঞ্জ শহর দখল করে এবং আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীন বাংলার মাটিতে বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করা হয়। সকালে পাকবাহিনীর ৩৫-৪০ জনের একটি দল মুক্তিবাহিনীদের হাতে নাস্তানাবুদ হয়ে টাঙ্গাইল থেকে বিতাড়িত হয়ে ঢাকার পথে জিরাবাে এলাকার ঘােষবাগ গ্রামের এসে পৌছালে নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চর গেরিলাবাহিনীর খপ্পরে পড়ে। কিশাের মুক্তিবাহিনী দশম শ্রেণির ছাত্র গােলাম মােহামুদ পশীর টির রক্তে মুক্ত হয় সাগর।

ভাের থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে পলায়নপর পাকবাহিনীর বিরুদ্ধে মুক্তিবাহিনীদের সঙ্গে চলতে থাকে মরণপণ যুদ্ধ। ক্লাসদী মুক্তিবাহিনী ক্যাম্প থেকে মুক্তিবাহিনীরা পাকিসবাদের ওপর গুলিবর্ষণ করতে করতে এগিয়ে যায়। মুক্তিবাহিনীর গুলিতে বেশকিছু পাকিসৈন্য মারা যায় এবং কিছু মারা যায় তিতাস নালীতে ডুবে। শেষরাতে পাকবাহিনীর এ দেশীয় দালাল- রাজাকার, আলবদর, আলশামস বাহিশীর লােকজন বাড়ি বাড়ি গিয়ে হানা দিয়ে বুদ্ধিজীবীদের ধরে নিয়ে যায় । পাকহানাদার চক্র যখন আত্মসমর্পণ করে ঠিক তখনই বাংলাদেশকে মেধাশূন্য করার নীল নকশা প্রণয়ন করেন রাও নন আলি।

৯ আগস্ট এই জন্য হত্যাযজ্ঞের নীলনকশা তৈরি করে এবং ১৪ ডিসেম্বর বুদ্ধিজীবীদের নির্বিচারে হত্যা করে বধ্যভূমিতে ফেলে দেয়। যাদের হত্যা করা হয় তারা হলেন- অধ্যাপক গােবিন্দচন্দ্র দেব, অধ্যাপক জ্যোতির্ময় গুহঠাকুরতা, অধ্যাপক গিয়াসউজিন আহমদ, আধ্যাপক রাশিকুল হাসান, অধ্যাপক হবিবুর রহমান, মুনীর চৌধুরী, মােফাজ্জল হায়দার চৌধুরী, ডাক্তার রাব্বি, ডাক্তার ফজলে রাব্বী, ডাক্তার মুর্তজা, ডাক্তার নোহামুদ শফি, ডক্টর সন্তোষ ভট্টাচার্য, ডক্টর সিরাজুল হক খান, ডক্টর ফয়জুল মহী, ডক্টর আবদুল আলীম চেীধুী, ডক্টর আবদুল খায়ের, আনােয়ার পাশা, হাসান, আ,ন,ম গোলাম মােস্তফা, শহীদুল্লাহ কায়সার, সাংবাদিক সিরাজুদ্দীন হোসেন, নিজামউদ্দিন আহমেদ, গুণাঃ আবু তালেব, শহীদ সাবের, সৈয়ল নাজমুল হক, আলতাফ মাহমুদ, জহির রায়হান, সাংবাদিক সেলিনা পারভীন, কবি মেহেরুন্নেসা প্রমুখ।

দিবসটি বাঙালি জাতির ইতিহাসে এক বেদনাবহ দিন। প্রতিবছর এই দিনে অগণিত মানুষ দেশের স্বাধীনতার জন্য আত্মােৎসর্গকারী শহিদ বুদ্ধিজীবীদের স্মৃতি স্মরণ করে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন করে। বাংলাদেশ সরকার ১৪ ডিসেম্বর শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবস হিসেবে ঘােষণা করে। মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের তথ্যানুযায়ী, সারা দেশে ৪৬৭টি বধ্যভূমির সন্ধান পাওয়া গেছে। ঢাকা ও এর আশপাশে ৪৭টি বধ্যভূমি চিহ্নিত করা হয়েছে। পাকবাহিনীরা বুদ্ধিজীবীসহ বহু মানুষকে নির্মমভাবে হত্যা করে বধ্যভূমিতে ফেলে দেয়। বহু বধ্যভূমির মধ্যে রায়েরবাজার বধ্যভূমি একটি। মিরপুর রায়েরবাজারে শহিদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধ অবস্থিত।