শোকাবহ বেদনাবিধুর স্মৃতির প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা

আজ শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবস

রফিকুল ইসলাম রতন : তিহাসের পাতায় কালাে অক্ষরে উৎকীর্ণ বেদনাবিধুর শােকাবহ দিন ১৪ ডিসেম্বর। দিনটিতে বাঙালি জাতি তাদের মেধা ও মননের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের হারিয়েছে। আমরা হারিয়েছি জাতির পথপ্রদর্শক শিক্ষক, বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক, শিল্পী, সাহিত্যিক, চিকিৎসক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, সমাজসেবক, আইনজীবী ও প্রকৌশলীসহ অসংখ্য কৃতী সন্তানকে। সেই স্বজন হারানাে বিয়ােগ-ব্যথা বুকে ধারণ করে দুঃসহ কষ্ট নিয়ে তাদের পরবর্তী প্রজন্ম বাংলার লাল-সবুজের পতাকার মাঝে আজও তাদের খুঁজে বেড়ান।

এসব ঘাতক দালালদের বিচারের দাবিতে এত দিন সমগ্র জাতির সঙ্গে তারা সরব বা নীরব দাবি জানালেও বিগত তিন দশক তা ছিল রাষ্ট্রীয়ভাবে উপেক্ষিত।

দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্র এবং পাকিস্তানি ভাবধারার বিগত দিনের তথাকথিত মুক্তিযোদ্ধা ও রাজাকার ঘাতক দালালদের আশ্রয়-প্রশ্রয়দাত্র সরকারগুলাে যা করেনি, সেই দুরূহ ও ঝুঁকিপূর্ণ কাজটি সম্পন্ন করে ভূয়সী প্রশংসা কুড়িয়েছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

স্বাধীনতার চার দশক পরে হলেও শেষ পর্যন্ত অত্যন্ত স্বচ্ছ ও আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন বিচারিক আদালতের রায়ে এসব স্বাধীনতাবিরােধী খুনি, জাতির শক্ত, পাকিস্তানের দালাল নরপিশাচদের ফাঁসি কার্যকর হওয়ায় বুকের চাপা কষ্ট কিছুটা হলেও দূর হয়েছে। কলঙ্কমুক্ত হয়েছে বাঙ্গালি গাতি।

দীর্ঘ ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ শেষে বিজয়ের ঠিক উষালগ্নে পাক হানাদার বাহিনী তাদের এ দেশীয় দোসর রাজাকার, আল-বদর ও আল-শামসদের সহায়তায় বেছে বেছে ধরে নিয়ে শিাাবে হত্যা করেছে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বুদ্ধিরীদে। ২৫ মার্চ রাতে অপারেশন সার্চলাইট পরিকল্পনার সঙ্গেই লত বুদ্ধিজীবী হত্যার পরিকশা করা হয়।

সেই পৈশাচিক কান্নাত থেকে পাকিস্তান বাহিনী যে হত্যাযজ্ঞে শুরু করে, তার অন্যতম প্রধান লক্ষ্যই ছিল বুদ্ধিজীবী হত্যা-বান্তালি জাতিকে মেধাশূন্য করা। অপারেশন ঢাকালীন তারা হাতের আঁধারে খুঁজে খুঁজো বুদ্ধিজীবীদের ধরে নিয়ে অত্যন্ত নির্মম-নিষ্ঠুর ও বিভৎসভাবে হত্যা করে। আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধ তাে বটেই, সমকালীন বিশ্বের ইতিহাসে তথাকথিত যুদ্ধের নামে এত বুদ্ধিজীবী হত্যার কোনাে নজির কোথাও নেই।

যখন হানাদার বাহিনী সুস্পষ্টভাবে বুঝতে পারছিল যে পরাজয় কেবল সময়ের ব্যাপার মাত্র, তখন তাদের নীল নকশা অনুযায়ী প্রতিহিংসা চরিতার্থ এবং বাঙালি জাতিকে মেধাশূন্য ও পঙ্গু করে দেয়ার পরিকল্পনার অংশ হিসেবেই নরপিশাচরা এই জঘন্য এবং হৃদয়বিদারক হত্যাকাণ্ড চালায়।

টার্গেট করে শুধু ১৪ ডিসেম্বরেই নয়, যুদ্ধকালীন ৯ মাস এমনকি ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তান বাহিনীর আত্মসমার্পণ ও মুক্তিযুদ্ধের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তির পরও ঘটেছে নির্মম ঘটনা। চুড়ান্ত বিজয় অর্জনের প্রায় দেড় মাস পরও বিহারিদের সহযােগিতায় রাজাকার, আলবদররা স্বনামধন্য চলচ্চিত্র নির্মাতা জহির রায়হানকে ধরে নিয়ে গিয়ে মিরপুরে হত্যা করে ‘৭১-এর ৩০ জানুয়ারি।

ওইসব ঘাতক, রাজাকার ও আল-বদরদের বংশধর রা আজও স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের বিরুদে, মুক্তিযুগ্ধের নেতৃত্বদানকারী সরকারের বিরুদ্ধে এক সাগর রক্তের বিনিময়ে অর্জিত লাল-সবুজ পতাকার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, ১৪ ডিসেম্বরের বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ড নিছকই কেবল হত্যাকাণ্ড নয়।

এটি ছিল সুপরিকলি ও গভীর ষড়যন্ত্র ও নীল নকশার একটি অংশ। উইকিলিকসের মাস করা ওই সময়কার মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের গােপন দলিল, মুক্তিযুদ্ধের দলিলপত্র ও গবেষণা, বাংলাপিডিয়া, ওয়ার ক্রাইমস ফ্যাক্টস ফাইডিং কমিটির অনুসন্ধান এবং শহিদ বুদ্ধিজীবী কোষগ্রন্থ থেকে যেসব তথ্য পাওয়া যায়, তাতে সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয় যে, পাক বাহিনীর যুদ্ধ পরিকল্পনার অন্যতম শীল। নকশা ছিল বুদ্ধিজীবী হত্যা।

পাকি প্রেসিডেন্ট মে: জেনারেল ইয়াহিয়া খান ও কসাই শানে থতি পূর্ব-পাকিস্থানের ভুরি মে: জেনারেল জিয়া খানের পরামর্শে তাণেই ঘুর ঘনিষ্ট মে: লেনারেল প্লাও ফরমান আলী ছিলেন বুদ্ধিনী হত্যাকাণ্ডের নীল নকশার মল প্রণয়নকারী। আর তাকে এ কাজে সহযােগিতা করে জামায়াতে ইসলামী নেতা কুখ্যাত গোলাম মা ও তালের ছাত্র ইসলামী স্কুত্রি সংঘের নেতা আল-বদর বাহিনীর প্রধান মতিউর রহমান নিজামী, আলী আহসান মােহামুন জাহিদ, আবদুল কালে মােল্লা, ওঁলানা আল মান্নান, সালাহউদ্দিন কাদের চেীধুরী, চেীধুরী মঈনুন ও আশরাফুজ্জামান গংরা।

এসব কুখ্যাত ব্রাকার আল-বদর নেতা (পলাতক চৌধুরী মঈনুদ্দীন ও আশরাফুজ্জামান) ছাড়া যাদের ইতােমধ্যেই মানবতাবিরোধী এ যুদ্ধাপরাধের দায়ে সর্বোচ্চ আদালতের রায়ে ১াসি হয়েছে, তাল্লা শুধু বুদ্ধিৰী হত্যার তালিকাই তৈরি করে দেয়নি, এরা নিজ হাতেও হত্যা করেছে অসংখ্য মুক্তিযােদ্ধা, সাধারণ নিরীহ মানুষ ও বুদ্ধিজীবীদের।

স্বাধীনতার পর ধ্বংসপ্রাপ্ত বঙ্গবন থেকে (যেটি ছিল বাঙালি হত্যার নীল নকশার কাসিম বাজার কুঠি) উৱার করা রাও ফরমান আলীর একটি ডায়েরিতে অনেক নিহত ও জীবিত বুদ্ধিজীবীর নাম ও ঠিকানা পাওয়া যায় । তাছাড়া আইয়ুব শাসন মিলের তথ্য সচিব আলতাফ ম এহরের এক সাক্ষাৎকার কেও ইরমান আলীর বুদ্ধিৰিী হত্যার নীল নকশার কথা জানা যায়।

ব্লও মনির খালরি এই ডায়েরিতে বুদ্ধিজীবী হত্যার তালিকার সঙ্গে ঢাকার মার্কিন দূতাবাসের সামরিক গােয়েন্দা বাহিনীর মি. হেইট ও সিআইএ’র সদস্য মি, ভুসপিকের নামও পাওয়া যায়। এ থেকে অনুমান করা যায় যে, পাক বাহিনীর বুদ্ধিজীবী হত্যার নীল নকশার সঙ্গে হয়তাে তৎকালীন সিআইএ’রও একটি ভূমিকা ছিল। এছাড়া ১৬ ডিসেম্বরের পরে আল-বদর বাহিনীর তাপারেশন ইন চার্জ চৌধুরী।

মঈনুষ্পীয় ও প্রধান জল্লাদ শরফুজ্জামান খানের নাখালপাড়া বাসা থেকে তাদের ব্যক্তিগত যে ভায়েরি উদ্ধার ব্রা হয়, তাতেওঁ ২০ জন বুদ্ধিজীবীর নাম-ঠিকানা এবং ঢাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের কোয়ার্টারের নাম ও নম্বর লেখা ছিল। মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় ট্রাইবুনালে সাক্ষা দেয়ার সময়।

আশরঞ্জামানের ব্যক্তিগত গাড়িচালক মিজুঙ্গিন বলেন যে, তার মালিক আশরাফুজ্জামান ডিসেম্বর মাসের শেষের দিকে অনেক বুদ্ধিজীবীকে হত্যা করে। রায়ের বাজার ও মিরপুরের শিলিবাড়ি বানিতে ঠেলে নেন। দেশ জাপান হওয়ার পর এ দুটি বধ্যভূমিতে আশরাঞ্জামানের হত্যা করা লাশ তিনি দেখতে পান বলেও ট্রাইবুনালকে জানান গাড়িচালক নাফিজুদ্দিন।’

তথ্যানুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে যে, ডিসেম্বরের ৪ তারিখ থেকে ঢাকার কারফিউ নিয়েই মূলত পাবাহিনী বুদ্ধিজীবী হত্যা পরিকা বাস্তবায়নে উদ্যোগী হয়। ১০ ডিসেম্বর রাও ফরমান আলীর সঙ্গে মোয়াতের অপারেশন ইন চার্জ চেীধুরী মঈনুদ্দীন ও প্রধান জল্লাদ আশরাফুজ্জামানের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

কাকে কোন জায়গা থেকে কখন ধরে এনে কোথায় হত্যা করা হবে এসবই তারা চুড়ান্ত করে এই বৈঠকে। এ হত্যাকাণ্ড শুধু ঢাকাতেই তারা সীমাবদ্ধ রাখেনি, ঢাকার বাইরে দেশের বহু এলাকাতেওঁ বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়েছে। তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, পাকবাহিনী ও তাদের চিহ্নিত দোসররা চট্টগ্রাম, সিলেট, ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, রাজশাহী, বগুড়া, রংপুর, দিনাজপুর, পাবনা, খুলনা, যশাের, বরিশাল, পটুয়াখালী, কুমিল্লা, নােয়াখালী ও কুষ্টিয়াসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে শিক্ষাবিদ, কবি, সাংবাদিক, সাহিত্যিক, শিল্পী, চিকিৎসক, সমাজসেবক ও দানবীর, প্রকৌশলী ও আইনজীবীদের বেছে বেছে ধরে নিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে লাশ বধ্যভূমিতে ফেলে দিয়েছে। হিসাবে দেখা গেছে, ঢাকা বিভাগে-২১২ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ২৩৪ জন, খুলনা বিভাগে ২৮৬ জন ও রাজশাহী বিভাগে ২৭৭ জনসহ সারাদেশে ১ হাজার ৩৫ জন বুদ্ধিজীবীকে ওরা হত্যা করেছে। এর মধ্যে স্কুল ও কলেজে শিক্ষক ৯৩৮, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ২১ এবং আইনজীবী ৪১ জন। তাছাড়া ২৫ মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত ঢাকায় য়ে কয়েকজন স্বনামধন্য বুদ্ধিজীবীকে ওই হানাদার বাহিনী হত্যা করেছে তাদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ২৩, ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালের চিকিৎসক ২১ ও সাংবাদিক ১৪ জনের সঠিক নাম পরিচয় পাওয়া গেছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নিহত শিক্ষকদের মধ্যে যারা ছিলেন পরম পূজনীয় তাদের মধ্যে উল্লেখযােগ্য অধ্যাপক ডু, মুনির চৌধুরী (বাংলা সাহিত্য), অধ্যাপক ডু, গােবিন্দ চন্দ্র দেব (দর্শনশাস্ত্র), অধ্যাপক ড. মােঃ হায়দার চৌধুরী (বাংলা সাহিত্য), অধ্যাপক ড. আনােয়ার পাশা (বাংলা সাহিত্য), অধ্যাপক ড, জ্যোতির্ময় গুহঠাকুরঙ্গ (ইংরেজি সাহিত্য), অধ্যাপক ড, আবুল খায়ের (ইতিহাস), অধ্যাপক ড. সিরাজুল হক খান (শিক্ষা), অধ্যাপক ড. এএনএম ফাইজুল মাহী (শিক্ষা), উ, রাশিকুল হাসান (ইংরেজি সাহিত্য), ড, হুমায়ুন কবীর (ইংরেজি সাহিত্য, সাজিদুল হাসান (পদার্থ বিদ্যা), ফজলুর রহমান খান (মৃত্তিকা বিজ্ঞান), এনএম মনিরুজ্জামান (পরিসংখ্যান), এ তালিঃ (ভূবিদ্য), শরত আলী (গণিত), এআরকে থালেম (পূণার্থীবি), অনুদ্ধৈপায়ন ভট্টাচার্য (পদার্থবিদ্যা), এমএ মালেক (শিক্ষা), এমা সাদত আলী (শিক্ষা), সন্তোষ ভট্টাচার্য (ইতিহাস), গিয়াসউদ্দিন আহমদ (ইতিহাস), ব্লাশীদুল হাসান (ইংরেজি), ও, আবুল কালাম আজাদ (গণিতজ্ঞ) ও এম মর্তুজা (চিকিৎসক)।

সাংবাদিকদের মধ্যে যারা শহিদ হয়েছেন তারা হলেন- শহিদুল্লাহ কায়সার, নিজামুদ্দীন আহমেদ, সিরাজুদ্দীন হােসেন, সেলিনা পারভীন, আ ন ম গােলাম মোস্তুফা, খন্দকার আবু তালেব, এম.এ মন্নান, সৈয়দ নাজমুল হক, আবুল বাশার, শিব সাধন চক্রবর্তী, চিশতী শাহ হেলালুর রহমান, মুহাদি আখতার এ এ কে এম।

এছাড়া গীতিকার ও সুরকার আলতাফ মাহমুদ, লেখক ও চলচ্চিত্রকার জহির রায়হনি, ভাষা সৈনিক ও প্রখ্যাত রাজনীতিবিদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত, দানবীর ও বিশিষ্ট সমাজসেবক রণদা প্রদাস সাহা, বিশিষ্ট সমাজসেবক ও আয়ুর্বেদিক চিকিৎসক নুতন চন্দ্র সিংহ, শিক্ষাবিদ ও আয়ুর্বেদিক চিকিৎসক অধ্যক্ষ যােগেশ চন্দ্র ঘােষ ও কবি মেহেরুন্নেসাকে ওরা ধরে নিয়ে গিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের মধ্যে যাদের হত্যা করা হয় তারা হলেন- অধ্যাপক ডা. মোহান ফজলে রাব্বি (হৃদরােগ), অধ্যাপক ডা. আলীম চৌধুরী (চ), অধ্যাপক ডা. শামসুদ্দীন আহমেদ, অধ্যাপক ডা. আবুল আলিম চেীধুরী, ডা. হুমায়ুন কবীর, ড. আজহারুল হক, ডা. সােলায়মান খান, জা, আয়েশা বদেরা চৌধুরী, ডা, সির উদ্দিন তালুকদার, ড. মনসুর আলী, ডা. মােহাম্মদ মতুয়া, ডা. মফিজ উদ্দিন খান,
ডা, জাহাঙ্গীর, ডাঁ, নুরুল ইমাম, ডা, এসকে লালী, হেনাচত্র বসাক, ডা. লায়লুল হক, ভা, অাসানুল হক, জী, রােশান্তের অহনী, ডা. আজহফিল হক ও জা, মোহাঙ্গন শক্তি। স্বাধীনতা যুদ্ধের ৯ সে পাক হানাদার বাহিনী ও তাদের এ দেশীয় দোসর রাজাকার, আলবল ও আলিশামসদের হাতে নিহত দেশের বুদ্ধিজীবী এবং জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযােদ্ধাদের ঋণকর ও বধ্যভুমি খুজে বের করার জন্য এয়ার ক্রাইস ফ্যাক্টস হাইত্তি কমিটি ১৯৯০ সালের ১৪ ডিসেম্বর থেকে গবেষণা ও অনুসন্ধান শুরু করে। ইতােমধ্যেই তারা ৯৪২টি বধ্যভুমি শনাক্ত করতে পেরেছে।

এসব বধ্যভূমি সংরক্ষণ এবং তাতে স্মৃতি ফলক স্থাপনের জন্য উচ্চ আদালতের একটি নির্দেশনাও বাস্তবায়ন করছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। সঙ্গত কারণেই আমরা অশি করব জাতির এসব কৃতী সন্তানদের সুতি সংরক্ষণ করে তাণে বিশাল কাশের বোঝার কিছুটা হলেও যেন আমরা শােধ করতে পারি। সব শহিদের পুণ্য আত্মাির প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা।
লেখক: সম্পাদক, দৈনিক স্বদেশ প্রতিদিন।