বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে বাঙালির উল্লাস

হাসান রাউফুন : ১৫ ডিসেম্বর বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে অধিকাংশ রণাঙ্গনে চলছিল মুক্তিকামী জনতার বিজয়োল্লাস। পাকবাহিনীকে আত্মসমর্পণের জন্য ভারতীয় সেনাপ্রধানের ঘোষণার পর বিকেল ৫টা থেকে পাকিস্তানি অবস্থানের ওপর বোমাবর্ষণ বন্ধ করে মিত্রবাহিনী।

চারদিক থেকে ব্যর্থতার ফলে পাকবাহিনী বুঝে ফেলে তাদের পরাজয় নিশ্চিত। অবরুদ্ধ ঢাকা অচল হয়ে পড়ে। ইস্টার্ন কমান্ডের প্রধান জেনারেল আমির আবদুল্লাহ খান নিয়াজি মার্কিন দূতাবাসের মাধ্যমে ভারতের কাছে যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব পাঠান। ভারত তা প্রত্যখ্যান করে বিনা শর্তে আত্মসমর্পণের দাবি জানায়। ভারতীয় সেনাপ্রধান জেনারেল মানেকশ সকাল ৯টার মধ্যে আত্মসমর্পণের সময়সীমা বেঁধে দিয়ে জরুরি বার্তা পাঠান নিয়াজির কাছে।

বার্তায় বলা হয়, ‘আত্মসমর্পণের প্রস্তুতির জন্য ১৫ ডিসেম্বর বিকেল ৫টা থেকে ১৬ ডিসেম্বর ৯টা পর্যন্ত বিমান হামলা বন্ধ রাখা হবে। কিন্তু এর মধ্যে আত্মসমর্পণ না করলে প্রচণ্ড বিমান হামলা শুরু করা হবে।’ নিয়াজির আত্মসমর্পণের খবরে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি বৈঠক বসে।

জাতিসংঘে উত্থাপিত সবগুলো প্রস্তাব ছিঁড়ে ফেলে জুলফিকার আলি ভুট্টো অধিবেশন থেকে সদলবলে বেরিয়ে যান। বেরিয়ে যাওয়ার আগে তিনি বলেন, ‘এটাই বোধ হয় আমার শেষ বক্তৃতা। এখানে আত্মসমর্পণ করতে আসিনি।’ জাতিসংঘকে জালিয়াতি ও ধোঁকাবাজির পীঠস্থান আখ্যা দিয়ে ভুট্টো বলেন, ‘ফ্রান্স ও ব্রিটেন স্পষ্টভাবে কোনো পক্ষ না নেওয়ায় পাক-ভারত যুদ্ধবিরতি বিষয়ে কোনো চুক্তি হতে পারল না।’

গভীর রাতে প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান নিয়াজিকে নির্দেশ দেন, ‘ভারতের সেনাবাহিনীর প্রধান আত্মসমর্পণের জন্য যেসব শর্ত দিয়েছেন সেসব মেনে নেওয়া যেতে পারে।’ আত্মসমর্পণের নির্দেশ পেয়ে নিয়াজি কান্নায় ভেঙে পড়েন।

রাত ২টার মধ্যে তিনি সব স্থানে অবস্থানরত পাকবাহিনীকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়ে তারবার্তা পাঠান। কিছুক্ষণ পরপর ফিল্ড মার্শাল শ্যাম মানেকশর স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র ও আকাশবাণী থেকে আত্মসমর্পণের আহবান প্রচার করেন। আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানে যৌথবাহিনীর অধিনায়ক অরোরা সস্ত্রীক ঢাকায় এলে বিমানবন্দরে অভ্যর্থনা জানান নিয়াজি।

যৌথবাহিনীর যৌথ আক্রমণে আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হয় পাকবাহিনী। ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর চাঁপাইনবাবগঞ্জ দখল করতে গেলে শহিদ হন। স্বাধীনতার পর বাংলাদেশ সরকার তাকে বীরশ্রেষ্ঠ উপাধিতে ভূষিত করে।