জানুয়ারি থেকে কর্মী যাবে মালয়েশিয়া

* কর্মী নিয়োগের খরচ লাখ টাকার নিচে * নতুন কর্মীর বেশির ভাগ খরচ নিয়োগকর্তার * কর্মীদের বয়স হবে ১৮ থেকে ৪৫ বছর পর্যন্ত

বিশেষ প্রতিনিধি, বাঙলা প্রতিদিন: দুর্নীতি ও সিন্ডিকেট করে কর্মী পাঠানোর অভিযোগে ২০১৮ সালে বাংলাদেশিদের জন্য বন্ধ হয়ে যায় মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার। তিন বছর পর নতুন সমঝোতা চুক্তির মাধ্যমে আবারো বাংলাদেশিদের জন্য দরজা খুলেছে দেশটি। নতুন বছরের (২০২২ সাল) জানুয়ারি মাসের মধ্যেই মালয়েশিয়ায় কর্মী নিয়োগ শুরু হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ।

তিনি বলেছেন, জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) ডাটাবেজের মাধ্যমে শ্রমিক পাঠানো হবে। কর্মীরা ন্যূনতম খরচে সেখানে যেতে পারবেন। এছাড়া মালয়েশিয়া যাওয়ার ব্যাপারে কারো সঙ্গে কোনো ধরনের আর্থিক লেনদেন না করার জন্য পরামর্শ দেন মন্ত্রী। এদিকে, মালয়েশিয়ায় কর্মী নিয়োগের খরচ লাখ টাকার নিচে নামতে পারে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ।

তিনি বলেন, চুক্তি অনুযায়ী কর্মীর আসা যাওয়ার টিকিটসহ মালয়েশিয়া প্রান্তের খরচ নিয়োগকর্তার। এখানে কর্মীর ব্যয় বলতে তার গ্রামের বাড়ি থেকে ঢাকায় আসার খরচ, পাসপোর্ট তৈরি, বিএমইটি ফি, কল্যাণ বোর্ডের সদস্য ফি, মেডিক্যাল ফি এবং রিক্রুটিং এজেন্সির সার্ভিস চার্জ। মঙ্গলবার মন্ত্রী এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, মালয়েশিয়া প্রান্তের খরচের মধ্যে আছে রিক্রুটমেন্ট এজেন্সি নিয়োগ, মালয়েশিয়ায় গমনের প্লেন ভাড়া, আবাসন, কর্মে নিয়োগ। কর্মীকে নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর খরচ নিয়োগ কর্তা বহন করবেন। নিয়োগকর্তা নিজ খরচে মালয়েশিয়ান রিক্রুটিং এজেন্ট নিযুক্ত করতে পারবেন। মালয়েশিয়ায় যাওয়ার পর বাংলাদেশি কর্মীর ইমিগ্রেশন ফি, ভিসা ফি, স্বাস্থ্য পরীক্ষার খরচ, ইন্স্যুরেন্স সংক্রান্ত খরচ, করোনা পরীক্ষার খরচ, কোয়ারেন্টিন সংক্রান্ত খরচসহ সব ব্যয় মালয়েশিয়ার নিয়োগকর্তা বা কোম্পানি বহন করবে। নিয়োগকর্তা কর্মীর মানসম্মত আবাসন, বিমা, চিকিৎসা ও কল্যাণ নিশ্চিত করবেন।

ইমরান আহমদ বলেন, আগে সরকার নির্ধারিত অভিবাসন ব্যয় এক লাখ ৬০-৬৫ যাই থাকুক না কেন, এখন তা থেকে অনেক কমে আসবে। কারণ সেই ব্যয়ের বেশিরভাগ খরচই নিয়োগকর্তা বহন করবেন। আগে বিমান ভাড়া আমাদের কর্মীরা দিতেন, যার কারণে ওই ব্যয় ছিল। এবার আশা করি অনেক কমে যাবে। আমাদের রিক্রুটিং এজেন্সির চার্জ যাই হোক, সেটা আমাদের কর্মীদের ওপর পড়বে। মালয়েশিয়ার অংশেরটা নিয়োগকর্তা দেবেন। সার্ভিস চার্জ নির্ধারণ করা নেই। তবে আইডিয়া করা যায়, দুই-তিন মাসের বেতনের বেশি হওয়া উচিত না।

সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন বলেন, ‘অভিবাসন আইন অনুযায়ী আমরা অভিবাসন ব্যয় নির্ধারণ করতে পারি। সেটা করে একটা ধারণা দিতে পারি খরচ কেমন হতে পারে। মালয়েশিয়ার সঙ্গে নতুন চুক্তির আলোকে সর্বোচ্চ কত টাকা নিতে পারবে, সেটা নির্ধারণ করব।’

মালয়েশিয়ায় কর্মী নিয়োগের ব্যাপারে সমঝোতা স্মারক সই শেষে দেশে ফিরে গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর ইস্কাটনে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা জানান। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন।

এর আগে বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠাতে গত রোববার একটি সমঝোতা চুক্তি (এমওইউ) সম্পন্ন হয়েছে। এতে বাংলাদেশের বাংলাদেশের পক্ষে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ ও মালয়েশিয়ার পক্ষে দেশটির মানবসম্পদমন্ত্রী এম সারাভানান চুক্তিতে সই করেন। এই চুক্তির ফলে প্রায় তিন বছর বন্ধ থাকার পর ফের উন্মুক্ত হচ্ছে মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার।

দীর্ঘ তিন বছর বন্ধ থাকার পর গত ১০ ডিসেম্বর বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিতে অনুমোদন দেয় মালয়েশিয়া। দেশটির সব সেক্টরে কর্মী নেওয়ার অনুমোদন দেয় মালয়েশিয়ার মন্ত্রিপরিষদ। বিশেষ করে গৃহকর্মী, বাগান, কৃষি, উৎপাদন, পরিষেবা, খনি ও খনন এবং নির্মাণ খাতে বাংলাদেশি কর্মী নেবে দেশটি।

কূটনৈতিক সূত্র বলছে, মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার খোলার চেষ্টা বারবার ব্যাহত করেছে ১০টি রিক্রুটিং এজেন্সি। তাদের তৈরি সিন্ডিকেটের অবৈধভাবে এ বাজার দখলের চেষ্টায় ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর থেকে এটি বন্ধ হয়ে যায়। ওই সময় মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক বিশেষ কমিটির বৈঠকে ১ সেপ্টেম্বর থেকে বাংলাদেশের শ্রমিক নিয়োগ বন্ধ করে দেয় দেশটি।

জানা গেছে, আগের চেয়ে এবারের সমঝোতা স্মারকে বেশকিছু বিষয়ে পরিবর্তন আসছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্যÑ জিটুজি প্লাস পদ্ধতি উল্লেখ থাকছে না, যুক্ত হচ্ছে মালয়েশিয়ার রিক্রুটিং এজেন্সি, থাকছে কর্মীদের বাধ্যতামূলক বিমা, কর্মীদের দেশে ফেরার ব্যবস্থা ও খরচ বহন করবে নিয়োগদাতা, চুক্তি মেয়াদে কর্মীদের দায়িত্ব নিতে হবে মালয়েশিয়ার রিক্রুটিং এজেন্সিকেও, বয়স নির্ধারণ করা হয়েছে ১৮ থেকে ৪৫ বছর পর্যন্ত। তবে কর্মীদের মালয়েশিয়া যেতে অভিবাসন ব্যয় বা খরচ কতো হবে, তা শিগগির জানা যাবে।

এদিকে, মালয়েশিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী এম সারাভানান ও বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশ থেকে নতুন কর্মীর প্লেন ভাড়া নিয়োগকর্তা বহন করবেন এবং চুক্তি শেষে কর্মী ফেরত পাঠানোর খরচও নিয়োগকর্তার।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় জানায়, এই সমঝোতা স্মারকের আওতায় বাংলাদেশি কর্মীদের মালয়েশিয়া প্রান্তের সব খরচ নিয়োগকর্তাই বহন করবেন। এসব খরচের মধ্যে রিক্রুটমেন্ট এজেন্সি নিয়োগ, মালয়েশিয়ায় আনয়ন, আবাসন, কর্মে নিয়োগ ও কর্মীর নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর খরচ অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

এছাড়া নিয়োগকর্তা নিজ খরচে মালয়েশিয়ান রিক্রুটিং এজেন্ট নিযুক্ত করতে পারবেন। মালয়েশিয়ায় যাওয়ার পর বাংলাদেশি কর্মীর ইমিগ্রেশন ফি, ভিসা ফি, স্বাস্থ্য পরীক্ষা, ইন্স্যুরেন্স, করোনা পরীক্ষা, কোয়ারেন্টিন সংক্রান্ত খরচসহ সব ব্যয় মালয়েশিয়ার নিয়োগকর্তা বা প্রতিষ্ঠান বহন করবেন। নিয়োগকর্তা কর্মীর মানসম্মত আবাসন, বিমা, চিকিৎসাও নিশ্চিত করবেন।

চুক্তির বিষয়ে একটি সূত্র জানায়, মালয়েশিয়ার সঙ্গে স্বাক্ষরিত চুক্তিতে কর্মীদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট অনেক বিষয় আছে। মালয়েশিয়ার সঙ্গে কম্বোডিয়া ও নেপালের যেমন চুক্তি হয়েছিল সেটার আদলেই এ স্মারক তৈরি করা। শুধু বয়সের ক্ষেত্রে বাংলাদেশিদের জন্য ন্যূনতম ১৮ বছর এবং সর্বোচ্চ ৪৫ বছর নির্ধারণ করা হয়েছে।

চুক্তি অনুযায়ী মালয়েশিয়া সরকারের প্রাইভেট রিক্রুটিং অ্যাক্ট ১৯৮১ অনুযায়ী নিবন্ধিত এবং সে দেশের সরকার অনুমোদিত প্রতিষ্ঠান এবং বাংলাদেশে নিবন্ধিত রিক্রুটিং এজেন্সিগুলো কর্মী নিয়োগের বিষয়ে কাজ করবে। বাংলাদেশের সঙ্গে এই চুক্তির মেয়াদ হবে পাঁচ বছরের জন্য। মেয়াদ শেষে দুই পক্ষের সম্মতিতে মেয়াদ বাড়ানো যেতে পারে।

সূত্রটি জানায়, কর্মীর সঙ্গে চুক্তিতে তার বেতন উল্লেখ থাকতে হবে। চুক্তির মেয়াদ কতদিন সেটাও উল্লেখ থাকবে। কর্মীকে তার বেতন মাসের সাত তারিখের মধ্যে পরিশোধ করতে হবে এবং তা ব্যাংক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে দিতে হবে। সাধারণ কর্মঘণ্টা হবে ৮ ঘণ্টা। অতিরিক্ত সময়ের জন্য ওভারটাইম দিতে হবে। সপ্তাহে একদিন ছুটি ভোগ করতে পারবেন কর্মী। এছাড়া কর্মীর ভিজিট পাসের মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার তিন মাস আগেই নিয়োগকর্তাকে নবায়ন করতে হবে। তা না করতে পারলে জরিমানা নিয়োগকর্তাকেই বহন করতে হবে।

চুক্তি অনুযায়ী, প্রথমবার কর্মীর সেদেশে প্রবেশের জন্য বিমান ভাড়া নিয়োগকর্তা বহন করবেন। চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার পর মালয়েশিয়া থেকে ফেরত যাওয়ার জন্য যাবতীয় খরচও নিয়োগকর্তা বহন করবেন। তবে দুর্ঘটনাজনিত কারণসহ চার কারণ ছাড়া দেশে ফেরত যেতে চাইলে খরচ কর্মীকে বহন করতে হবে। আবার যদি কর্মী কোনো অবৈধ কাজে লিপ্ত হয় তাহলে কর্মীর খরচেই তাকে দেশে ফেরত পাঠানো হবে।

সূত্রটি জানায়, কর্মীর পাসপোর্ট নিয়োগকর্তা নিজের হেফাজতে রাখতে পারবেন না। চুক্তি অনুযায়ী সিকিউরিটি ডিপোজিট, প্রসেসিং ফি, ভিজিট পাস, ইন্স্যুরেন্স, মালয়েশিয়ায় মেডিক্যাল চেকআপ ফি, ইমিগ্রেশন সিকিউরিটি ক্লিয়ারেন্স, বায়োমেডিক্যাল, ভিসা প্রসেসিং, ভিসা, উড়োজাহাজের টিকিট, বাংলাদেশ হাইকমিশনের সত্যায়িতকরণ, মালয়েশিয়ার রিক্রুটিং এজেন্সির সার্ভিস চার্জ এবং করোনা পরীক্ষার ব্যবস্থা নিয়োগকর্তা করবেন। তবে বাংলাদেশে যদি কোনো রিক্রুটমেন্ট খরচ থাকে সেটা কর্মীকে বহন করতে হবে। যদি কোনো কর্মীর আর্থিক সুবিধার প্রয়োজন হয় তবে তিনি নিয়োগকর্তার কাছ থেকে ঋণ নিতে পারবেন এবং নিয়োগকর্তা কর্মীর মাসিক বেতন থেকে সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ হারে কেটে নিতে পারবেন।

চুক্তি স্বাক্ষরের আগে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ বলেছিলেন, মালয়েশিয়ার বাজার নিয়ে অতীতে অনেক কিছু হয়েছে। আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর সেগুলো দূর করার চেষ্টা করছি। সফল হব কিনা সেটা নির্ভর করবে সমঝোতা স্বাক্ষরের পর। মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন জানিয়েছিলেন, শুধু মালয়েশিয়া নয়, অদূর ভবিষ্যতে সব কর্মী ডাটাব্যাংক থেকে যাবে। মালয়েশিয়া দিয়ে সেটা শুরু হবে বলে আশা করছি।