সিলেটে ক্যান্সার ইউনিটের ভিত্তি স্থাপন

সিলেট অফিস: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেটে সমন্বিত ক্যানসার, কিডনি ও হৃদরোগ ইউনিটের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন। ৯জানুয়ারী রোববার দুপুরে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এই ভিত্তি স্থাপন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। প্রধানমন্ত্রী গণভবন প্রান্ত থেকে ভিডিও কনফারেন্সে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন।

জানা গেছে, স্থানীয় পর্যায়ে চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে দেশের আটটি বিভাগে সরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অধীনে হচ্ছে সমন্বিত ক্যানসার, কিডনি ও হৃদরোগ ইউনিট। আজ রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একযোগে এসব ইউনিটের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ২০২০ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর এই প্রকল্প একনেক সভায় পাস হয়। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ৩৮৮ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে গণপূর্ত অধিদপ্তর।

এসব ইউনিটে ক্যানসার প্রতিরোধ ও স্ক্রিনিং সেবা ছাড়াও হাসপাতালভিত্তিক ও জনগোষ্ঠীভিত্তিক ক্যানসার নিবন্ধন, অপারেশন ও কেমোথেরাপি, গাইনি হেমাটোলজি ও অনকোলজি বিভাগও চালু থাকবে।

সিলেটের এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এই ইউনিট স্থাপন করা হচ্ছে। দুটি বেজমেন্টসহ ১৫ তলার ফাউন্ডেশন দিয়ে একটি ভবন নির্মাণ করা হবে।

আজ ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘এক বছরের নিচে এবং ৬৫ বছরের ঊর্ধ্বে যারা, মানে একেবারে শিশু ও বয়োবৃদ্ধ যারা তাদের চিকিৎসাটা যাতে বিনা মূল্যে দেয়া যেতে পারে, সে ধরনের পরিকল্পনাও আমাদের রয়েছে।’

দেশে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১ দশমিক ৩৯ থেকে ১ দশমিক ৩৩-এ দাঁড়িয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এর বেশি আর কমানোর দরকার নেই। আমাদের নতুন জনসংখ্যাও দরকার, আর যুবসমাজও দরকার। এটা আমাদের দেখতে হবে।’ শেখ হাসিনা বলেন, ‘করোনা মোকাবিলার জন্য আমরা বিশেষ প্রণোদনাও দিয়েছি, তা ছাড়া টিকা সংগ্রহ করা, টিকা ক্রয় করা, পরীক্ষা করা এবং ভ্যাক্সিনেশন-পৃথিবীর বহু দেশ কিন্তু বিনা পয়সায় দেয় না, অনেক উন্নত দেশও দেয় না। বাংলাদেশে আমরা কিন্তু ভ্যাকসিন বিনা পয়সায় দিচ্ছি।’

টিকা নিতে দেশবাসীর প্রতি আহŸান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘অনেকে ভয় পান। গায়ে সুই ফোঁটাবে সেই ভয়ও আছে। নানা ধরনের অপপ্রচারও ছিল, কিন্তু সবার প্রতি অনুরোধ থাকবে, করোনাভাইরাস এবং নতুন আবার আরেকটি ভ্যারিয়েন্ট দেখা গেছে ওমিক্রন, এর হাত থেকে বাঁচার জন্য, এটি সব থেকে বেশি শিশুদের ধরছে, সে জন্য ১২ বছর বয়স পর্যন্ত শিশুদের টিকা দেয়ার ব্যবস্থা নিয়েছি। আমি সবাইকে অনুরোধ করব, আপনারা ভয় না পেয়ে টিকাটা নিয়ে নেন।’

বিশেষায়িত ক্যান্সার ইউনিটের জন্য সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১৫তলা ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন উপলক্ষে সিলেটের জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত বিশিষ্টজনের সাথে ভাচুর্য়ালি সংযুক্ত হন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এসময় সিলেটের জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন- সিলেটের জেলা প্রশাসক এম. কাজী এমদাদুল ইসলাম, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নাসির উদ্দিন খান, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন, সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ব্রায়ান বঙ্কিম হালদার, সিলেট স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিভাগীয় পরিচালক ডা. হিমাংশু লাল রায়, সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি আল আজাদ, ওসমানী হাসপাতালের সেবা তত্ত¡াবধায়ক (ভারপ্রাপ্ত) রিনা বেগম, বাংলাদেশ নার্সেস এসোসিয়েশন (বিএনএ) সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল শাখার সভাপতি শামীমা নাসরিন ও সাধারণ সম্পাদক ইসরাইল আলী সাদেক প্রমুখ।

সিলেটে ফুডপান্ডার রাইডাররা রাস্তায় : ৮ দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে সিলেটে আন্দোলনে নেমেছেন ফুডপান্ডার রাইডাররা। ৯ জানুয়ারি রবিবার নগরীতে মিছিল ও ফুডপান্ডা কার্যালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন। এছাড়াও স্বেচ্ছায় কর্মবিরতি গ্রহণকারী রাইডারদের বন্ধ আইডি দ্রæত খুলে দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন তারা।

বেলা ২টায় সিলেট আলিয়া মাদরাসা মাঠ থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে জিন্দাবাজার ও বারুতখানাসহ নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলরোডস্থ ফুডপান্ডা অফিসের সামনে গিয়ে শেষ হয়। পরে তারা সেখানে বিক্ষোভ প্রদর্শন ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন।

রাইডারদের ৮ দফা দাবি হচ্ছে- ডেলিভারি চার্জ বাড়ানো, ব্যাচ অনুযায়ী ডেলিভারি চার্জ চার্ট আকারে অফিসের দেওয়ালে টানানো, প্রত্যেক রাইডারকে ১ বছর মেয়াদে ১টি করে ব্যাগ ও ২টি টিশার্ট বিনামূল্যে দিতে হবে, ১৮ বছরের নিচে কোনো রাইডার নিয়োগ দেওয়া যাবে না, কাস্টমারের কোনো অভিযোগের সত্যতা যাচাই না করে কোনো রাইডারকে শাস্তি দেওয়া যাবে না, প্রত্যেক রাইডারকে পরিচয়পত্র দিতে হবে, মোবাইলে ত্রæটির কারণে ফোন পরিবর্তন করলে সেই রাইডারকে অবগত না করে বরখাস্ত করা যাবে না এবং ওয়ালেটের টাকার লিমিট বাড়াতে হবে।

‘ফুডপান্ডা রাইডার সিলেট জোন’র উদ্যোগে পালিত এ কর্মসূচিতে দুই শতাধিক রাইডার উপস্থিত ছিলেন।

সিলেট পর্যটনে নতুন সংযোজন সুরমা নদীতে ট্যুরিস্ট নৌকা : সিলেটের পর্যটন ক্ষেত্রে একের পর এক সংযোজিত হচ্ছে নতুন আকর্ষন। এবার সুরমা নদীতে পর্যটকদের জন্য বিশেষ ধরনের নৌকার ব্যবস্থা করা হয়েছে। নদী ভ্রমন করে নগর ঘুরে দেখার এ যেন এক ভিন্ন মাত্রার সংযোজন । এটি বাস্তবায়ন করেছে সিলেট পর্যটন শিল্প সমবায় সমিতি। নতুন বছরের প্রথম দিন থেকে নান্দনিক এ ট্যুরিস্ট নৌকা দিয়ে শুরু হয়েছে যাত্রা।

পর্যটকদের নির্মল আনন্দ দিতে খরস্রোতা সুরমায় নান্দনিক কয়েকটি নৌযানের মাধ্যমে সুরাম রিভার ট্যুরিজমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম।

প্রকৃতিকন্যা সিলেটে রয়েছে পর্যটনের অপার সম্ভাবনা। রিভার ট্যুরিজম বা নৌ পর্যটন এখানে দারুণ সম্ভাবনাময় একটি খাত। যা সিলেটের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভিন্নমাত্রা এনে দিতে পারে। এমন সম্ভাবনা থেকে সুরমা নদীতে ছোট ছোট নৌযান দিয়ে পর্যটকদের নৌ ভ্রমণের সুযোগ করে দিবে।

সিলেট পর্যটন শিল্প সমবায় সমিতির সভাপতি হুমায়ুন কবির লিটন জানান, মূলত রিভার ট্যুরিজমকে পর্যটনের মূলধারায় সম্পৃক্ত করতে এই উদ্যোগ। সিলেটের জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় চারটি নৌকা দিয়ে যাত্রা শুরু করেছে সুরমা রিভার ট্যুরিজম।

তিনি জানান, সুরমার দুই তীরে বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান রয়েছে। পর্যটকদের পরিবেশ বান্ধব দৃষ্টিনন্দন ছোট নৌকা দিয়ে সেই স্পটগুলো ঘুরে দেখানো হবে। যেমন- শাহজালাল (রহ:) যে সিঁড়ি দিয়ে সুরমা নদী পার হয়েছিলেন ঐতিহ্যবাহী সেই সিঁড়ি বা গেইটসহ নদীর পাড়ের সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে পারবেন ভ্রমণকারীরা। বিশেষ করে শেখ হাসিনা শিশু পার্ক সুরমা নদীর তীরেই অবস্থিত। কর্তৃপক্ষ যদি পিছনের গেইট দিয়ে দর্শনার্থী প্রবেশের সুযোগ দেয়, তাহলে পর্যটকরা একসাথে নৌ ভ্রমণ ও পার্ক এর সৌন্দর্য্য উপভোগ করার সুযোগ পাবে। এ ব্যপারে পার্ক কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ আলোচনা চলছে। তবে নৌ ভ্রমণ করতে হলে বাধ্যতামূলক লাইফ জ্যাকেট পরতে হবে।

‘সিলেট পর্যটন শিল্প সমবায় সমিতি’র সাধারণ সম্পাদক ফখরুল ইসলাম মিয়া জানান, সমিতির সদস্যদের ক্ষুদ্র বিনিয়োগের মাধ্যমে রিভার ট্যুরিজমের যাত্রা। চারটি নৌকা নিয়ে যাত্রা শুরু। ঐতিহ্যবাহী কিনব্রিজের চাঁদনী ঘাট থেকে সুরমা রিভার ট্যুরিজমের নৌকাগুলো চলাচল করবে। আপাতত প্রতিদিন ২টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নৌকাগুলো পরিচালনা করা হবে। পরবর্তীতে পর্যটকদের চাহিদার উপর নির্ভর করবে সময় বৃদ্ধি।

সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম বলেন, সিলেটের পর্যটন শিল্পে সুরমা রিভার ট্যুরিজম নতুন এবং চমকপ্রদ একটি সংযোজন। পর্যটনে অপার সম্ভাবনাময় এই শহরে প্রতি সপ্তাহে ৫০-৬০ হাজার পর্যটক বেড়াতে আসেন। এত পর্যটকের আগমণ আমাদেরকে প্রাণিত করে, এখানে ট্যুরিজম নৌবহর গড়ে ওঠা সম্ভব। কিন্তু আমাদের উপলব্ধির অভাবে সুরমা নদী নাব্যতা হারিয়েছে, পানি দূষিত হচ্ছে। তাই সম্মিলিতভাবে সবার সচেতনতা আমাদের শহরকে সুন্দর এবং শ্রীবৃদ্ধি করতে পারে। বিশ্বের অনেক জায়গায় নদীর পাড়েই সভ্যতা গড়ে উঠেছে এবং সিলেটও গড়ে উঠেছে সুরমা নদীর পাড়েই।